কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আলোর পথে শতফুল


 সাজন আহম্মেদ পাপন | ৩ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার, ১:১১ | কলকাকলি 


সমাজে অবহেলিত বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষার প্রসারে ২০১১ সালের ডিসেম্বরে কিশোরগঞ্জে সুইড বাংলাদেশ বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় গড়ে তোলা হয়। বিগত সাত বছর ধরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ছেলে মেয়েদের মধ্যে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে এই বিদ্যালয়। ক্রীড়া-সংস্কৃতিসহ নানা ক্ষেত্রে নিজেদের মেধা ও প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে চলেছে বিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বুদ্ধি প্রতিবন্ধীদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, সাংবাদিক মোস্তফা কামাল, অ্যাডভোকেট মায়া ভৌমিক, ডা. অজান্তা রানী সাহা, বাদল রহমান, ডা. নিরোদ বিহারী বর্মণ, ডা. রাজ নারায়ণ রায়, অ্যাডভোকেট লুৎফর রশিদ রানা, আব্দুল আউয়াল, রুপক রঞ্জন রায় প্রমুখের প্রচেষ্টায় কিশোরগঞ্জ শহরের রাকুয়াইলে ২০১১ সালের ১৫ ডিসেম্বর বুদ্ধি প্রতিবন্ধীদের জন্য এই স্কুলটি প্রতিষ্ঠিত করা হয়।

বিদ্যালয়ে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৭১ জন। শিক্ষক-শিক্ষিকা রয়েছেন ৯ জন। মা ও শিশু শ্রেণি, বিশেষ শিক্ষা শ্রেণি, বৃত্তিমূলক শ্রেণি ও স্পেশাল এ্যাক্টেভেটিস শ্রেণিতে শিক্ষা দেওয়া হয় এই বিদ্যালয়ে।

অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, কিশোরগঞ্জে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ছেলে মেয়েদের মধ্যে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে এই বিদ্যালয়।

বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন বলেন, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুরা পরিবারের বোঝা না হয়ে যেন দেশ ও সমাজের জন্য কাজ করতে পারে, সেই লক্ষ্যে আমরা স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেছি।

দোলন জানান, প্রতিবন্ধী শিশুরা আমাদের সমাজে উপেক্ষিত ও অবহেলিত হয়ে আসছে। বিশেষ করে প্রতিবন্ধী নারী, শিশু ও বয়োবৃদ্ধদের বৈষম্য ও দুঃখ-কষ্টের সীমা থাকে না। প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, স্বাস্থ্যসেবা, পুনর্বাসন, কর্মসংস্থান ও বিনোদন লাভের পূর্ণ অধিকার রয়েছে। সমাজে প্রতিবন্ধী মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণ, স্বাভাবিক ও সম্মানজনক জীবনযাপনের অধিকার রয়েছে। মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার নূন্যতম মৌলিক অধিকারগুলো তাদের ন্যায্যপ্রাপ্য। তাই প্রতিবন্ধীদের প্রতি আন্তরিক ভালোবাসা প্রদর্শন ও সহানুভূতিশীল হওয়া অত্যাবশ্যক।

স্কুলটির প্রধান শিক্ষক রেজোওয়ানা চৌধুরী বলেন, আমার স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা মূল ধারার স্কুলে শিক্ষা গ্রহণেরও সুযোগ পাচ্ছে। এছাড়া জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান লাভ করেছে।

২০১২ সালে স্পেশাল অলিম্পিক গেমসে ৭ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে তার মধ্যে নাসিমা আক্তার সাঁতারে তৃতীয় স্থান ও সুমাইয়া আক্তার ঝুমা সফট বল নিক্ষেপে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে।

বিভাগীয় পর্যায়ের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় নাসিমা আক্তার একক গানে দ্বিতীয় স্থান ও তাজমহল কবিতা আবৃত্তিতে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে। বিভাগীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় নাসিমা আক্তার ১০০ মিটার দৌড়ে ও স্ট্যান্ডিং লং জাম্পে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে।

রেজোওয়ানা চৌধুরী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই স্কুলের এক ছাত্রীর তৈরি করা রুমাল প্রতিবন্ধী দিবসে ক্রয় করেছিলেন। ২০১৩ সালে ৫ম জাতীয় স্কাউট এ্যাগোনারিতে ৭ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করে। তার মধ্যে কোরআন তেলাওয়াতে ১ম স্থান অর্জন করে মায়মুনা।

প্রধান শিক্ষক রেজোওয়ানা চৌধুরী আক্ষেপ করে বলেন, স্কুলটির নানা অর্জন রয়েছে। কিন্তু স্কুলটি এমপিওভুক্ত হলেও স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা এমপিওভুক্ত হয়নি। স্কুলটিতে মিড ডে মিলের ব্যবস্থা নাই। শিশুদের প্রশিক্ষণের জন্য সরঞ্জামাদির সংকট আছে। স্কুলটির নিজস্ব জায়গাও নেই। শিশুদের খেলাধূলার জন্য কোনো মাঠ নেই। কিছুদিন আগে স্কুলটির কম্পিউটার ও নলকূপ চুরি গেছে।

শত প্রতিকূলতার মাঝেও স্কুলটির ছাত্র-ছাত্রীরা স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে ভূমিকা রেখে চলছে। তাই সরকারের কাছে স্কুলটির শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষ থেকে আমাদের দাবি, এই স্কুলটির দিকে সুনজর দিলে অবহেলিত বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুরা আলোর পথে হাঁটবে এবং সমাজের বিভিন্ন স্তরে তারা আরো বেশি অবদান রাখতে সক্ষম হবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ