কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করলেন মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান


 বিশেষ প্রতিনিধি, ঢাকা | ৩ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার, ৩:৫৫ | নির্বাচনী হালফিল 


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রোববার (২ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনে মনোনয়নপত্র দাখিলকারী বিএনপি প্রার্থী মেজর (অব.) মো. আখতারুজ্জামান রঞ্জন এঁর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। ঋণখেলাপির জামিনদার হওয়ায় তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

মেজর (অব.) মো. আখতারুজ্জামান রঞ্জন তাঁর প্রার্থিতা ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশনে আপিল করেছেন।

সোমবার (৩ ডিসেম্বর) সকাল ৯টায় নির্বাচন কমিশনে আপিল পর্ব শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পরই মেজর (অব.) মো. আখতারুজ্জামান রঞ্জন নির্বাচন কমিশনে (ইসি) গিয়ে আপিল করেন।

রোববার (২ ডিসেম্বর) জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে মেজর (অব.) মো. আখতারুজ্জামান রঞ্জন সহ এই আসনের মোট সাত প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী।

মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া অন্যরা হলেন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী নূরুল ইসলাম, জাতীয় পার্টির প্রার্থী এরশাদ হোসাইন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) প্রার্থৗ মো. লুৎফুর রহমান, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ (বিএমএল) প্রার্থী মীর আবু তৈয়ব মো. রেজাউল করিম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রার্থী মো. সালাউদ্দিন রুবেল এবং স্বতন্ত্র মো. আনিসুজ্জামান খোকন।

এ আসনের ১০ প্রার্থীর মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক আইজিপি, রাষ্ট্রদূত ও সচিব নূর মোহাম্মদ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) প্রার্থী জেলা বিএনপির যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মো. শহীদুজ্জামান কাকন এবং জাকের পার্টি প্রার্থী দলের জাকের পার্টির স্থায়ী কমিটির সদস্য মো. আব্দুল জব্বার এই তিনজনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়।

ইসি’র নির্দেশনা অনুযায়ী, যেসব মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষিত হয়েছে, সেসব প্রার্থীরা তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেতে (বুধবার) ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত কমিশনে আপিলের সুযোগ পাবেন। ৬, ৭ ও ৮ ডিসেম্বর আপিলের বিষয়ে নিষ্পত্তি করবে কমিশন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর