কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ জেলায় জেএসসি’তে ৮১ প্রতিষ্ঠানের ৫৩১ জিপিএ-৫


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৫:৪১ | শিক্ষা  


এবারের জেএসসি পরীক্ষায় কিশোরগঞ্জ জেলায় ৮১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে মোট ৫৩১ পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে ১০ বা তার চেয়ে বেশি জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এই ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে পাঁচটিই জেলা শহরের।

মোট ৫৩১টি জিপিএ-৫ এর মধ্যে ১৩৫টি জিপিএ-৫ পেয়ে জেলায় শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে কিশোরগঞ্জ শহরের এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টির মোট ২৩৭ জন পরীক্ষার্থীর সবাই পাশ করেছে।

জিপিএ-৫ প্রাপ্তির দিক থেকে জেলায় দ্বিতীয় হয়েছে কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টির মোট ২৩৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৩৪ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৭জন ছাত্র।

মোট ৩৭টি জিপিএ-৫ পেয়ে জেলায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তির দিক থেকে তৃতীয় হয়েছে বাজিতপুরের আফতাব উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ। তবে প্রতিষ্ঠানটির শতভাগ শিক্ষার্থীই পাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানটি থেকে মোট ৩০৫ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে।

কিশোরগঞ্জ শহরের কিশোরগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৯ ছাত্রী জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৪২৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪০৬ জন পাশ করেছে।

পাকুন্দিয়া পাইলট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মোট ২৬ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩৭৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৪৬ জন পাশ করেছে।

কটিয়াদী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৫ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২২১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৪৫ জন পাশ করেছে।

কটিয়াদী পাইলট বালক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৪ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৪১৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৫৩ জন পাশ করেছে।

কিশোরগঞ্জ শহরের জেলা স্মরণী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২২৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২১৯ জন পাশ করেছে।

কিশোরগঞ্জ শহরের কিশোরগঞ্জ জেলা আইডিয়াল স্কুল থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০ জন। বিদ্যালয়টির ৯৫ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে।

পাকুন্দিয়া উপজেলার আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০ জন। বিদ্যালয়টির ৫১ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে।

এই ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বাইরে হাজী ইউসুফ আলী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৯ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩৩৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৭৮ জন পাশ করেছে।

তাড়াইল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৯ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩৩৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২২৪ জন পাশ করেছে।

হোসেনপুর মডেল পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ৯ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৭০৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪৪৫ জন পাশ করেছে।

ছয়সূতী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২৬২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৩৮ জন পাশ করেছে।

কামালপুর হাজী জহির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩৮৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৩৮ জন পাশ করেছে।

বেগম রহিমা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ১১৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১১৬ জন পাশ করেছে।

ভৈরব সরকারি কেবি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৫০৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪৩৪ জন পাশ করেছে।

হোসেনপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২৭৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৮০ জন পাশ করেছে।

জাঙ্গালিয়া ইউনিয়ন জুনিয়র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩০ জন পাশ করেছে।

পাকুন্দিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৮৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৮০ জন পাশ করেছে।

পাটুয়াভাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ১৭১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৪৪ জন পাশ করেছে।

কুলিয়ারচর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩৯৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩০৬ জন পাশ করেছে।

জালালপুর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ১২২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৯৩ জন পাশ করেছে।

করিমগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ১৭৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১০৮ জন পাশ করেছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর