কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নৌকার পক্ষে প্রচারণায় কিশোরগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা


 সাজন আহম্মেদ পাপন | ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার, ২:২৩ | রাজনীতি 


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কিশোরগঞ্জ জেলায় আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের মনোনীত প্রার্থীদের জন্য প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা। মঙ্গলবারও (২৫ ডিসেম্বর) তাঁরা কিশোরগঞ্জ-৫ এবং কিশোরগঞ্জ-৬ আসনের বিভিন্ন এলাকায় তাঁরা গণসংযোগ ও প্রচারণা চালান।

কিশোরগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও জেলা গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন এর নেতৃত্বে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট বিজয় শংকর রায়, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নারায়ন দত্ত প্রদীপ, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর অরুন কুমার সাহা, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক প্রণব সরকার প্রমুখ গণসংযোগ ও প্রচারণায় অংশ নেন।

মঙ্গলবার (২৫ ডিসেম্বর) দুপুর ২টায় ভৈরব উপজেলার শ্রী শ্রী গোপাল জিউর আখরা প্রাঙ্গণে ভৈরব উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষদের সাথে জেলা নেতৃবৃন্দ উঠান বৈঠক করেন।

বিকাল ৫টায় কুলিয়ারচর উপজেলার দাসপাড়া মন্দির প্রাঙ্গণে কুলিয়ারচর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষদের সাথে জেলা নেতৃবৃন্দ উঠান বৈঠক করেন।

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বাজিতপুর উপজেলার শ্রী শ্রী তমালতলা মন্দির প্রাঙ্গণে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষদের সাথে জেলা নেতৃবৃন্দ উঠান বৈঠক করেন।

এসব উঠান বৈঠকে বক্তারা বলেন, কিশোরগঞ্জে তিন লক্ষাধিক সনাতনধর্মী রয়েছে। আমাদের সম্প্রদায়ের তাগিদে আমরা টিমওয়ার্ক করছি। আমরা অসাম্প্রদায়িক চেতনাতে বিশ্বাসী। আওয়ামী লীগসহ ১৪ দল সরকার গঠন করলে আমরা এই দেশে শান্তিতে থাকতে পারি। এ দেশ আমাদেরও। আমাদের ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে হবে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোন ধরণের বিশৃঙ্খলা যেন না ঘটাতে পারে, সেদিকে আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে। ভীতি সঞ্চার করার জন্য তারা হামলাও করতে পারে, সেজন্য আমাদের সকলকেই সর্তক থাকতে হবে। যদি কোন ধরণের বিশৃঙ্খলার অনুমান করতে পারেন তাহলে আমাদের মনিটরিং সেলকে অবহিত করবেন।

জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন বলেন, ২০০১ সাল থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পর্যন্ত সংখ্যালঘু সম্প্রদায় থেকে চাকরি পাওয়া অনেক কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা তাদের বেতন-ভাতা পর্যন্ত পায়নি। সাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসীরা অনেক মন্দির দখল করেছিল। আওয়ামী লীগসহ ১৪ দল সরকার গঠনের পর অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। ৩০শে ডিসেম্বর ভোটের দিন আমাদের আবারও প্রমাণ করতে হবে, এ দেশের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনাতে বিশ্বাসী। আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলের মাধ্যমেই এই দেশে উন্নয়ন হয়।

তিনি বলেন, মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। যদি আমরা আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলকে ক্ষমতায় না আনতে পারি, তাহলে মেগা প্রজেক্টগুলো বন্ধ হয়ে যাবে এবং আমাদের দেশ পিছিয়ে যাবে। সাম্প্রদায়িকতা কমে আসলেই আমরা মাথা উঁচু করে বাঁচতে পারবো। সমগ্র বিশ্বে যারা সংখ্যালঘু তারা কি অভিশপ্ত? বাংলাদেশে হিন্দু, ইন্ডিয়াতে মুসলিম, ইসরাঈলে খ্রিস্টান সবাই কি অভিশপ্ত?

আসুন আমরা ৩০ শে ডিসেম্বর ভোটের দিন আমরা প্রমাণ করে দেই, আমরা অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী। দেশের উন্নয়নে বিশ্বাসী, দারিদ্র্যতা শূণ্যের কোঠায় নামিয়ে আনাতে বিশ্বাসী। তাই আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয় করাতে হবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর