কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রোববার শেষবারের মতো কিশোরগঞ্জে আসছেন সৈয়দ আশরাফ, কাঁদছে কিশোরগঞ্জ


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৪ জানুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার, ৭:০৭ | বিশেষ সংবাদ 


ছবি: ফেসবুক থেকে সংগৃহীত।

প্রিয় শহর কিশোরগঞ্জে তাঁর আসার কথা ছিলো বিজয়ীর বেশে। মরণব্যাধি ক্যান্সারকে পরাভূত করে জনতার নেতা সুস্থ হয়ে জনতার মাঝে ফিরে আসবেন, এমন প্রত্যাশা ছিল সর্বস্তরের মানুষের। কিন্তু মানুষের সেই আশার আলোটাকে এক ফুৎকারে ফুঁ দিয়ে নিভিয়ে দিয়ে তিনি চলে চলে গেছেন না ফেরার। নিজের শহরে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আসছেন ঠিকই, তবে নিথর দেহটাকে কফিনবন্দী করে।

পারিবারিক সূত্র জানিয়েছেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মরদেহ দেশে আনতে ছোট ভাই মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ সাফায়েতুল ইসলাম রাতেই থাইল্যান্ডের উদ্দেশ্যে রওনা হন। থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে আগে থেকেই অবস্থান করছেন ছোট দুই বোন ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি ও সৈয়দা রাফিয়া নূর রূপা এবং কন্যা সৈয়দা রিমা ইসলাম। শনিবার (৫ জানুয়ারি) বিকালে সৈয়দ আশরাফের মরদেহ নিয়ে তাঁরা ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হবেন। রোববার (৬ জানুয়ারি) তাঁর মরদেহ কিশোরগঞ্জ নিয়ে আসা হবে। দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জ শহরের পুরাতন স্টেডিয়ামে তাঁর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যু সংবাদ প্রচার হওয়ার পর থেকেই কাঁদছে কিশোরগঞ্জ। কিশোরগঞ্জ জেলাজুড়ে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ রাতেই ছুটে যান শহরের স্টেশন রোডের জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে। সেখানে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন নেতাকর্মীরা। এমনকি বিরোধী শিবিরের রাজনৈতিক নেতাকর্মীরাও জানিয়েছেন তাঁদের বেদনার্ত শোকগাঁথা।

শহরের রাজনৈতিক অঙ্গন, সুধী সমাজ, আবাসিক এলাকায় একটিই আলোচনা, ‘আশরাফ ভাই আর নেই।’ শোকে মুহ্যমান শহরে নেমে আসে রাজ্যের নিরবতা। শোকার্ত মানুষজন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করছেন শোক আর নেতার প্রতি ভালবাসার কথা। প্রোফাইলে প্রোফাইলে সৈয়দ আশরাফের সাদাকালো ছবিতে যেন বইছে বেদনার ফল্গুধারা। অকস্মাৎ তাঁর মৃত্যু সংবাদ এসে উপস্থিত হবে, এমনটি কেউ কল্পনাও করতে পারেন নি।

জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম কিশোরগঞ্জবাসীর এক অনুভূতির নাম। মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের সন্তান হিসেবে পারিবারিক ঐতিহ্য এবং একজন সৎ, ভদ্র ও বিনয়ী মানুষ হিসেবে ক্লিন ইমেজের এমন রাজনীতিবিদ বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিরল।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে সৈয়দ নজরুল ইসলাম দেশের হাল ধরেন। ওয়ান ইলেভেনের সময় আজকের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন কারাবন্দী, তখন সৈয়দ আশরাফুল ইসলামও দলের হাল ধরে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে মুক্ত করেন এবং নেতৃত্বের আসনে ফিরিয়ে আনেন। তাঁর মৃত্যু এক অপূরণীয় শূণ্যতার সৃষ্টি করেছে, যা কোন ভাবেই পূরণ হওয়ার মতো নয়।

কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান বলেন, শেখ হাসিনা যেমন জাতির পিতার যোগ্য কন্যা হিসেবে দেশকে নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামও মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করা সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে হিসেবে আমৃত্যু নামের প্রতি সুনাম অক্ষুণœ রেখে গেছেন। শেখ হাসিনার হাতকে বরাবরই শক্ত করেছেন তিনি। শারীরিক মৃত্যু ঘটলেও তিনি চিরঞ্জীব হয়ে থাকবেন।

জেলা গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে আমরা সকল কিশোরগঞ্জবাসীসহ দেশবাসী শোকাহত। তাঁর মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জ তথা এদেশে অসাম্প্রদায়িক ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের রাজনীতির অপূরণীয় ক্ষতি হলো। আমরা তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি এবং মহান সৃষ্টিকর্তা তাঁকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন, সে জন্য প্রার্থনা করছি।

কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মতো এমন সজ্জ্বন এবং ক্লিন ইমেজের নেতা রাজনীতিতে বিরল। ১/১১ এর সময় তিনি তাঁর দূরদর্শিতা এবং কূটনৈতিক মেধা দিয়ে দলকে রক্ষা করেছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে দেশ এক অনন্য রাজনীতিবিদকে হারিয়েছে। আমরা কিশোরগঞ্জবাসী হারিয়েছি আমাদের একান্ত সুহৃদ, পরম বন্ধুকে।

জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এনায়েত করিম অমি বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মতো ভিন্নধারার মহাপুরুষেরা প্রতিদিন জন্মায় না। প্রতিমাসে কিংবা প্রতিবছরেও না। বড়ো অসময়ে চলে গেছেন আশরাফ ভাই। তাঁর এই শূণ্যস্থান একশ বছরেও পূরণ হওয়ার মতো নয়।

এদিকে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের আত্মার মাগফেরাত কামনায় শুক্রবার কিশোরগঞ্জ শহরের সবক’টি মসজিদে জুমআর নামাজে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ১৯৫২ সালের পহেলা জানুয়ারি ময়মনসিংহ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের সন্তান চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

পারিবারিক ঐতিহ্যের সূত্র ধরে তিনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। অংশ নেন একাত্তরের মুক্তিসংগ্রামে। স্বাধীনতার পর তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে অতিকথন ও ক্ষমতার দম্ভ তাঁকে স্পর্শ করতে পারেনি। একজন উদার পশ্চিমা গণতান্ত্রিক রাজনীতিবিদের মতোই তিনি নীরবে নিভৃতে পথ হেঁটেছেন। তদবিরবাজ, মতলববাজ, সুবিধাবাদীরা যেমন তাঁর কাছে ভিড়তে পারেননি, তেমনি দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, ক্ষমতার অপব্যবহারে নুন্যতম কলঙ্কের ছিটেফোটাও তাঁর গায়ে লাগেনি।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের স্ত্রী সৈয়দা শিলা ইসলাম ২০১৭ সালের ২৩শে অক্টোবর লন্ডনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এরপর থেকেই অন্তরালে চলে যান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাঁকে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ছয় মাস চিকিৎসাধীন থাকার পর বৃহস্পতিবার (৩ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের একমাত্র সন্তান সৈয়দা রিমা ইসলাম লন্ডনের এইচএসবিসি ব্যাংকে চাকরি করেন।

কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে এবার নিয়ে টানা পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সংসদে একবারই মাত্র বিরোধী দলের আসনে বসতে হয়েছে তাঁকে। বাকি তিনবারই তিনি বসেছেন সংসদের ট্রেজারি বেঞ্চে। এই তিন সরকারে মন্ত্রীত্ব ছাড়াও টানা দুই বার তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন।

দফায় দফায় মন্ত্রী এবং দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকার পরও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গড়ে তুলেননি সম্পদের পাহাড়। বরং তাঁর সম্পদ দিন দিনই কমেছে। পৈত্রিক বাড়ি ছাড়া তাঁর ব্যক্তিগত কোন বাড়ি, প্লট, ফ্ল্যাট কিছুই নেই। এমনকি সরকারি সুবিধা পরিহার করে স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য তিনি বিক্রি করেছিলেন উত্তরাধিকার হিসেবে পাওয়া গুলশানের বাড়িটি। গুলশানে জাতীয় চার নেতার নামে বরাদ্দ করা প্লট থেকে সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে হিসেবে তিনি ২ শতাংশ জমি পেয়েছিলেন। স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য সেই জমিও তিনি বিক্রি করে দিয়েছিলেন।

আওয়ামী লীগের সাবেক এই সাধারণ সম্পাদকের কিশোরগঞ্জ সদরের যশোদল ইউনিয়নের যশোদল বীরদামপাড়া গ্রামে ১৫ শতাংশ জমির উপরে একটি পৈতৃক বাড়ি এবং ময়মনসিংহের কলেজ রোডে ৮ শতাংশ জমির উপরে একতলা একটি বাড়ি রয়েছে যা তিনি উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছিলেন।

অনাড়ম্বর জীবনে অভ্যন্ত সৈয়দ আশরাফ চিকিৎসার জন্য স্ত্রীকে লন্ডন থেকে জার্মানি নেয়ার জন্য পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় দু’বার প্লেনের টিকিটের তারিখও পরিবর্তন করেছিলেন। স্বভাবতই আজকের রাজনীতিতে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এক বিরল চরিত্র।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর