কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রোববার দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের নামাজে জানাজা


 স্টাফ রিপোর্টার | ৪ জানুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার, ৯:০৩ | বিশেষ সংবাদ 


রোববার (৬ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের পুরাতন স্টেডিয়ামে প্রয়াত আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে শনিবার (৫ জানুয়ারি) সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মরদেহ দেশে আনা হবে। বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় তাঁর মরদেহ দেশে পৌঁছবে।

রোববার (৬ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর কিশোরগঞ্জ, ময়মনসিংহে আরও দুই দফা জানাজা শেষে ওইদিন বাদ আসর ঢাকার বনানী কবরস্থানে তাঁকে সমাহিত করা হবে।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সৈয়দ আশরাফের মৃতদেহ শনিবার (৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছবে। সেখানে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে দলের নেতারা তাঁর মৃতদেহ গ্রহণ করবেন। এরপর সন্ধ্যা ৭টায় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃতদেহ ২১ বেইলী রোডস্থ তাঁর সরকারি বাসভবনে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখান থেকে মৃতদেহ সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের হিমাগারে রাখা হবে।

পরদিন ৬ই জানুয়ারি রোববার সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় মরহুমের প্রথম নামাজে জানাজা শেষে হেলিকপ্টারযোগে মৃতদেহ কিশোরগঞ্জে নিয়ে যাওয়া হবে এবং দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জ পুরাতন স্টেডিয়াম মাঠে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

পরে দুপুর ২টায় ময়মনসিংহ আঞ্জুমান ঈদগাহ মাঠে তাঁর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে মরদেহ ঢাকায় নিয়ে আসার পর বাদ আসর বনানী কবরস্থানে তাঁকে সমাহিত করা হবে।

২০১৮ সালের ৩রা জুলাই তাঁকে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থাতেই তাঁকে কিশোরগঞ্জ-১ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী করা হয়। দেশে না থেকেও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম কিশোরগঞ্জ সদর ও হোসেনপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত এই আসন থেকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

নির্বাচনে বিজয়ী করা প্রিয় নেতাকে নিজেদের মাঝে ফিরে পেতে উন্মুখ ছিলেন কিশোরগঞ্জের মানুষ। কিন্তু থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ছয় মাস মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে তিনি পাড়ি জমিয়েছেন না ফেরার দেশে। চিকিৎসকদের সব প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দিয়ে বৃহস্পতিবার (৩ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন রাজনীতির অনন্য এই কবি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর