কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পরীক্ষিত এক রক্তের নাম সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম


 সাজন আহম্মেদ পাপন | ৫ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ৭:৪৪ | বিশেষ সংবাদ 


বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলনে দেয়া বক্তব্যে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছিলেন ‘এ রক্ত পরীক্ষিত রক্ত’। তার দেয়া সেদিনের বক্তব্যে কেঁদেছিলেন লাখো জনতা। একজন সৈয়দ আশরাফ বাংলাদেশে আবার কবে জন্ম নেন, তা হয়তো বিধাতাই জানেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, বর্তমান প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম চলে গেছেন পরপারে। রেখে গেছেন দলমত নির্বিশেষে অসংখ্য গুণগ্রাহী। যারা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবেন তাঁকে।

প্রিয় শহর কিশোরগঞ্জে আসার কথা ছিলো বিজয়ীর বেশে। মরণব্যাধি ক্যান্সারকে পরাভূত করে ফিরে আসবেন কিশোরগঞ্জে, আশা ছিল সর্বস্তরের মানুষের। মানুষের সেই আশার আলো নিভিয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য আমৃত্যু কাজ করে গেছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন, দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার। সেই লক্ষ্যে কাজও করে গেছেন। কিশোরগঞ্জ তথা সমগ্র বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষের মাঝে তিনি ছিলেন সততার প্রতীক।

এক-এগারোতে সেনা সমর্থিত সরকার রাজনীতি থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে মাইনাস করার নীল-নকশা নিয়ে যখন এগোচ্ছিলো তখনও যুক্তরাজ্যে ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। বয়সের ভারে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিল্লুর রহমান সব কিছু সামাল দিয়ে পেরে উঠছিলেন না। সেই ক্রান্তিলগ্নে লন্ডন থেকে দেশে ফিরেন সৈয়দ আশরাফ।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল কারাগারে থাকায় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় মুখপাত্রের দায়িত্ব নেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। দৃঢ়চিত্তে আর রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন হওয়া থেকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনাকে মুক্ত করা ও আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় ফিরিয়ে এনে তিনি প্রমাণ করেছিলেন তাঁর রক্ত পরীক্ষিত রক্ত।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ষষ্ঠ সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের আর্দশে দলকে আরো সুসংগঠিত করেন। সাদাকে সাদা এবং কালোকে কালো বলতে বিন্দু পরিমাণ কুন্ঠাবোধ করতেন না। দলের ভেতরে এবং বাইরে বা যেকোন দলের জন্য একজন সততার প্রতীক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তিনি কখনো অন্যায়ের সাথে আপস করেননি।

২০তম জাতীয় সম্মেলনে তিনি বলেছিলেন, ‘আমি আওয়ামী লীগের সন্তান। আওয়ামী লীগের ঘরেই আমার জন্ম। আওয়ামী লীগ যখন ব্যথা পায়, আমার হৃদয়েও ব্যথা লাগে। আওয়ামী লীগের একটা কর্মী যদি ব্যথা পায় সেই ব্যথা আমিও পাই।’

তাঁর এমন কালজয়ী বক্তব্য আজো মানুষকে সমানভাবে আলোড়িত করে। তিনি বাংলাদেশের মানুষকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছেন যে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের অনুভূতি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতারা তাঁকে চেনেন একজন র্নিলোভ, নীতিবান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আর্দশে গড়া একজন স্বল্পভাষী তবে লক্ষ্যে অটুট নেতা হিসেবে।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বিচক্ষণতার জন্য মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁকে ভাই হিসেবে সম্বোধন করতেন। মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অষ্টমবারের মতো সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর বলেছিলেন, “আমাদের সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে আমি আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই। সে আমার ছোট ভাইয়ের মতো। শহীদ পরিবারের সন্তান হিসেবে সে মন-প্রাণ দিয়ে এই সংগঠনকে ভালোবেসেছে, দেশকে ভালোবেসেছে।”

বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে বিরল এমন কারিশম্যাটিক রাজনীতিবিদ না ফেরার দেশে চলে যাওয়ায় কিশোরগঞ্জ তথা বাংলাদেশের মানুষ শোকে স্তব্ধ।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর