কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


প্রিয় নেতার অপেক্ষায় কিশোরগঞ্জ


 স্টাফ রিপোর্টার | ৫ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ৯:০১ | বিশেষ সংবাদ 


আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে কাঁদছে কিশোরগঞ্জ, কাঁদছে বাংলাদেশ। আওয়ামী লীগের চরম বিরুদ্ধবাদীরাও বলছেন, এ এক অপূরণীয় মৃত্যু। রাজনীতির এই মহানায়কের প্রস্থানে কিশোরগঞ্জজুড়ে শোকের ছায়া। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেবলই শোকগাঁথা আর অতল শ্রদ্ধা।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জে উনার বিরোধী দলের লোকজনও অশ্রুসজল হচ্ছেন। দলমত নির্বিশেষে কিশোরগঞ্জবাসী তাঁদের শোকগাঁথা প্রকাশ করছেন প্রিয় এই নেতার জন্য।

এমন কোনো কিশোরগঞ্জবাসী নেই যে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে হৃদয়ে বেদনার সুর বাজছে না। প্রিয় নেতার আত্মার মাগফেরাত কামনায় ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের আয়োজনে করা হচ্ছে দোয়া। প্রিয় নেতাকে শেষবারের মতো একনজর দেখতে ব্যাকুল হয়ে প্রতীক্ষায় আছেন শোকাহত জনতা।

জেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়েছে, রোববার (৬ জানুয়ারি) সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মরদেহ হেলিকপ্টারে করে কিশোরগঞ্জে আনা হবে। দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠে তাঁর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। জানাজার পর লাশ ময়মনসিংহে নিয়ে যাওয়া হবে।

কিশোরগঞ্জের অনেকের মতে, তিনি রাজনীতির এক অনন্য কবি। তাঁর কবিতার কারুকার্যে মোহিত কিশোরগঞ্জবাসী।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ১৯৫২ সালের পহেলা জানুয়ারি ময়মনসিংহ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের সন্তান চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে এবার নিয়ে টানা পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। থাইল্যান্ডে চিকিৎসাধীন থাকায় এবারের নির্বাচনে তিনি সশরীরে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে পারেননি। তাঁর পক্ষে পরিবারের সদস্যরা এবং জেলা আওয়ামী লীগ ও দুই উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছিলেন। এছাড়া ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাও সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিয়েছিলেন। সৈয়দ আশরাফ নির্বাচনী মাঠে অনুপস্থিত থাকলেও বিপুল ভোটের ব্যবধানে তিনি বিজয়ী হন।

স্থানীয়রা বলছেন, মানুষের কাছে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের একটি পরিচ্ছন্ন ইমেজ রয়েছে। তাঁর উদ্যোগে কিশোরগঞ্জে সরকারি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। শতকোটি কোটি ব্যয়ে নরসুন্দা নদী খনন, সংস্কারসহ নরসুন্দাকে ঘিরে লেকসিটি নির্মাণ প্রকল্পের কাজ করা হয়েছে। টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, মৎস্য ইনস্টিটিউট ও নার্সিং ইনস্টিটিউট নির্মাণ, কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণ, গাইটালস্থ আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল আধুনিকায়ন, কিশোরগঞ্জ-হোসেনপুর সড়কসহ বেশকিছু বড় ধরনের উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে। ফলে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের শারীরিক অবস্থা যাই থাকুক না কেন, প্রিয় নেতার প্রতি আস্থার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে মানুষ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে নির্বাচনে বিজয়ী করেছে।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে গত বছরের ৩রা জুলাই তাঁকে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ছয় মাস চিকিৎসাধীন থাকার পর ৩রা জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) রাত সাড়ে ৯টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মরদেহ দেশে আনতে ছোট ভাই মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ সাফায়েতুল ইসলাম ওই রাতেই থাইল্যান্ডের উদ্দেশ্যে রওনা হন। থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে আগে থেকেই সৈয়দ আশরাফের মরদেহের পাশে ছিলেন ছোট দুই বোন ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি ও সৈয়দা রাফিয়া নূর রূপা এবং কন্যা সৈয়দা রিমা ইসলাম।

থাইল্যান্ড থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিশেষ একটি ফ্লাইটে শনিবার (৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মরদেহ দেশে পৌঁছায়।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর