কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পরিবর্তনের অপেক্ষায়... নূর মোহাম্মদ


 রাজীব সরকার পলাশ | ১০ জানুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১:২০ | বিশেষ সংবাদ 


পরিবর্তনের অপেক্ষায়.... নূর মোহাম্মদ, আমাদের নূর মোহাম্মদ, হৃদয়ে নূর মোহাম্মদ শব্দগুলো বেশ পরিচিতি লাভ করেছিল কটিয়াদী ও পাকুন্দিয়া উপজেলার আনাচে কানাচে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বিগত প্রায় এক বছর ধরে ফেস্টুন, বিলবোর্ড, টি-শার্ট এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সবচেয়ে বেশি চোখে পড়ে এই স্লোগানগুলো।

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর নূর মোহাম্মদ ১৯৮২ সালে সহকারী পুলিশ সুপার পদে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেন। পুলিশকে আধুনিক সেবা প্রদানের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জায়গায় চাকরির সুবাদে দক্ষ, চৌকস, বিচক্ষণ ও মেধার স্বাক্ষর রাখেন তিনি। পদোন্নতি পেয়ে পুলিশের সর্বোচ্চ মহাপরির্দশক (আইজিপি) পদে আসীন হন।

পরে রাষ্ট্রদূত হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন। রাষ্ট্রদূতের পর যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন নূর মোহাম্মদ। ২০১৫ সালে ফিরে আসেন গ্রামের সাধারণ মানুষের কাছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বেশ আগে থেকেই নিজের এলাকায় তৎপরতা শুরু করেন সাবেক এই পুলিশ প্রধান। নির্বাচনী এলাকায় প্রায় দুইশ’র মতো উঠান বৈঠক, শতাধিক পথসভা ও জনসভা এবং ব্যাপক মানুষের অংশগ্রহণে বিশাল মোটর শোভাযাত্রার মাধ্যমে তিনি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসেন। মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে নিয়মিত সাধারণ মানুষের খোঁজখবর নেয়া, দুঃখ-সুখের কথা শোনার মধ্য দিয়ে হয়ে উঠেন সকলের প্রিয়জন। আস্থার ঠিকানা হয়ে উঠেন ছোট, বড়, তরুণ, যুবা, বৃদ্ধসহ আপামর জনসাধারণের।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিশেষ করে তরুণদের প্রতিদিন সর্বক্ষণ কেন্দ্রবিন্দুতে থেকেছেন তিনি। অসাধারণ ব্যক্তিত্ব, সাবলীল কথায় দলমত নির্বিশেষে সকলের মনে ঠাঁই করে নেন তিনি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হওয়ার জন্য নূর মোহম্মদসহ ১২ জন দলীয় মনোনয়ন পত্র জমা দেন। সকল নাটকীয়তার অবসান ঘটিয়ে সাবেক সফল আইজিপি, রাষ্ট্রদূত ও সচিব নূর মোহাম্মদ মনোনীত হন। সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লাভের মধ্য দিয়ে রাজনীতিতেও ঝলমলে অভিষেক হয় তারুণ্যের এই আদর্শের।

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনী লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নূর মোহাম্মদ প্রায় ৩ লাখ ভোটের ব্যবধানে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

সংসদ সদস্য হিসেবে নূর মোহাম্মদ অভিষিক্ত হওয়ার আগে থেকেই তাঁকে ঘিরে আরো বড় স্বপ্ন দেখে আসছিলেন নিজ সংসদীয় এলাকার মানুষসহ জেলাবাসী। মন্ত্রিসভায় তাঁর ঠাঁই পাওয়ার বিষয়টি যেন ছিল খুবই প্রত্যাশিত। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর এই প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভা থাকে কিশোরগঞ্জ জেলার প্রতিনিধিত্ববিহীন। এ নিয়ে রয়েছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। তবুও আশা ছাড়েননি কেউ।

বিপুল সমর্থনে বিজয়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্তমান চিন্তা অত্যন্ত স্বচ্ছ, যোগ্য এবং সুদূরপ্রসারি। তিনি অবশ্যই মূল্যায়ন করবেন রাজনীতির ঐতিহ্য কিশোরগঞ্জকে। রচিত হবে স্বাধীনতার ৪৮ বছরে অর্থাৎ ২০১৯ সালের নতুন ইতিহাস। পরিবর্তনের অপেক্ষার দিকে চেয়ে রয়েছেন কটিয়াদী ও পাকুন্দিয়াবাসী।

আরো পড়ুন: স্বাধীনতার পর এই প্রথম মন্ত্রীত্বের অপেক্ষায় কিশোরগঞ্জ



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর