কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মায়ের শূণ্যতা কাঁদাতো সৈয়দ আশরাফকে


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১২ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ১:১১ | বিশেষ সংবাদ 


শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও সৈয়দা নাফিসা ইসলামের চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। রাজনৈতিক কারণে বাবাকে অনেকবার জেলে যেতে হয়েছে। এই সময়ে পরিবারকে পড়তে হয়েছে বিপর্যয়ের মুখে। সব প্রতিকূলতাকে মোকাবেলা করে পরিবারকে আগলে রেখেছেন সৈয়দা নাফিসা ইসলাম।

১৯৭৫ সালের ৩রা নভেম্বর কেন্দ্রীয় কারাগারে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার হন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামসহ জাতীয় চার নেতা। সে সময়েও সন্তানদের কাছে পরম নির্ভরতার প্রতীক ছিলেন সৈয়দা নাফিসা ইসলাম। বাবাকে হারানোর পর মা-ই ছিলেন ছয় ভাইবোনের একমাত্র আশ্রয়।

২০০১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান সৈয়দা নাফিসা ইসলাম। মায়ের এই শূণ্যতা কাঁদাতো সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে। মাকে হারানো ছিল তাঁর জীবনের এক বড় বিপর্যয়। জীবদ্দশায় সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম তাঁর কথাবার্তা এবং আলাপচারিতায় বহুবার মা হারানোর সেই বেদনার কথা প্রকাশ করেছেন।

বছর তিন-চার আগে একটি বেসরকারি টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাতকারে মায়ের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বার বার অশ্রুসজল হতে দেখা গেছে সৈয়দ আশরাফকে।

ওই সাক্ষাতকারে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছিলেন, মায়ের কথা ভুলা যায় না। মা এমন একটা, সকল কিছুর উর্ধ্বে মা। মায়ের কোন বিকল্প নেই। উনি জন্মদাতা, উনি লালন পালন করেছেন। দেহের ভেতরে নয় মাস। এরপর এই ভূমিতে এসেছি আমরা সবাই। মায়ের সঙ্গে সন্তানের যে সম্পর্ক, এটা আল্লাহর সৃষ্টি। এটা এমন একটা বিষয় যে যা তুলনাহীন।

মায়ের সঙ্গে কোন কিছুরই তুলনা হয় না মন্তব্য করে সৈয়দ আশরাফ বলেছিলেন, বাবাই হোক আর আত্মীয়স্বজনই হোক, বন্ধুবান্ধবই হোক। মা মা-ই। তার কোন অদ্বিতীয় নাই। আমার মায়ের সঙ্গে আমার অত্যন্ত সুখকর, অত্যন্ত গভীর সম্পর্ক যেমন একজন সন্তানের থাকে, তেমনি ছিল। সবকিছুই ভুলা যায়, কিন্তু মা কে ভুলা যায় না। আমরা কেউই কিন্তু মাকে কোনদিন ভুলতে পারিনি।

সৈয়দ আশরাফ বলেছিলেন, আমাদের জীবনের যা কিছুই, এখন যে আমি এই পর্যায়ে আসছি, এটা সম্পূর্ণই আমার মায়ের দান। তিনিই আমাকে গড়ে তুলেছেন। মা প্রায় শতভাগ আমাদের অংশ। মা সর্বত্রই আছেন। আমাদের যে গড়ে ওঠার যে আচার আচরণ, এই বয়সেও এখানেও মায়ের প্রভাব আছে।

রোজা ও ঈদের স্মৃতিচারণ করতে গিয়েও সৈয়দ আশরাফ মায়ের প্রসঙ্গ টেনে এনেছিলেন। তিনি বলেন, মায়ের হাতে ইফতারের কথা এখনো মনে হয়। করল্লা সিদ্ধ করে ঘি দিয়ে ভাতের সাথে মাখিয়ে তিনি ইফতার দিতেন। মা এমনভাবে এই ইফতারটা তৈরি করতেন তা আমাদের তিতা না মিষ্টি মনে হতো। উনি নিজে মাখিয়ে দিতেন। দেশ-বিদেশে অনেক জায়গায় ইফতার করলেও মায়ের ইফতারের মতো এমন স্বাদের ইফতার আর কোথাও পাই না।

মাকে অসম্ভব রকমের ভালবাসতেন সৈয়দ আশরাফ। মায়ের প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসার প্রকাশ ঝরেছিল সৈয়দ আশরাফের কণ্ঠে।

তিনি বলেন, মা যেমন শাসন করতেন, সেভাবে আদরও করতেন। সকল আদরের সঙ্গে মায়ের আদর তুলনাহীন। এটা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। মা ভাল রান্না করতে পারতেন। প্রতিটি রোজার সময় ইফতারি নিজের হাতে তৈরি করতেন। আমরাও মায়ের হাতের ইফতারি সারা রোজা মাসের খাওয়ার জন্য আগ্রহে থাকতাম। রোজা আসলে, ইফতারের সময় বসলে, মায়ের দেয়া ইফতারের কথাই আমার মনে পড়ে। মায়ের স্মৃতি হয়তো কেউ ভুলতে পারে না। ঢাকা শহরে ফাইভ স্টার হোটেল আছে, শেরাটন বলেন, সোনারগাঁও বলেন বা ওয়েস্টিন বলেন বড় বড় হোটেলে এক প্লেট ইফতারের দাম দেখা যায় ১০ হাজার টাকা। কিন্তু এই ইফতারের সঙ্গে মায়ের তৈরি ইফতারের কোন তুলনা হয় না। মায়ের তৈরি ইফতার টাকার অঙ্ক দিয়ে পরিমাপ করা যায় না, এটি অমূল্য।

ঈদের মতো বিশেষ দিনে মায়ের সম্পর্কে বলতে গিয়ে সৈয়দ আশরাফ বলেছিলেন, ছোটবেলায় মা নিজেই গোসল করাতেন, শুকাইতেন। নিজেই নতুন কাপড় পরাতেন। তারপর পাঠাতেন ঈদগাহে। নামাজ পরে আসার পরে মা অপেক্ষা করতেন ঈদের খাবার খাওয়ার জন্য। উনি সব কিছু সাজিয়ে রাখতেন। প্রথমে সেমাই মিষ্টি ছিল। পিঠা। মা নিজেও পিঠা তৈরি করতেন।

মিষ্টি পিঠা, ঝাল পিঠা, মাংস পিঠা, বিভিন্ন ধরনের পিঠা ছিল তখনকার সময়ে ঈদের শুরুতেই খাওয়া। তারপর মাছ-মাংস। মাছ-মাংসও উনি স্পেশালি রান্না করতেন ঈদের জন্য। একটা পরিপূর্ণ প্রশান্তি ছিল, মায়ের হাতে তৈরি ইফতারসহ মার তৈরি ঈদের খাবার। সবসময়ে আমরা উদগ্রীব ছিলাম। আমরা অনেক সময় বলতাম, বছরে দুইবার কেন ঈদ হয়, আরো বেশি কেন হয় না! তাহলে আমরা আরো বেশি মায়ের সুস্বাদু খাবার উপভোগ করতে পারতাম।

প্রিয় মায়ের মতোই গত ৩ জানুয়ারি সৈয়দ আশরাফ নিজেও চলে গেছেন সকল চাওয়া-পাওয়ার উর্ধে। তাঁর এই চিরবিদায় এখন কাঁদাচ্ছে পুরো বাংলাদেশকে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর