কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘ধুমপানসহ তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার কমাতে সচেতনতার বিকল্প নেই’


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ জানুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১:০৩ | স্বাস্থ্য 


জনসাধারণের স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি কমাতে ধুমপানসহ তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। কেননা বাংলাদেশে প্রতি বছর ১২ লাখ মানুষ তামাকজাত দ্রব্যজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এর মধ্যে ১ লাখ ৬১ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন, প্রচার ও পৃষ্টপোষকতা বা প্রণোদনা বন্ধ হলে তা কার্যকর ফল বয়ে আনবে, যা তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য হারে কমাতে ভূমিকা রাখবে।

কিশোরগঞ্জে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন ও প্রচার নিষিদ্ধ এবং পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত বিধান বাস্তবায়নে স্টেকহোল্ডারদের করণীয় বিষয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় আলোচকেরা এসব কথা বলেন।

বুধবার (১৬ জানুয়ারি) রাতে জাতীয় যক্ষ্মা নিরোধ সমিতি (নাটাব) কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার আয়োজনে শহরের একটি রেস্টুরেন্টে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী।

নাটাব কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক সাইফুল হক মোল্লা দুলুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ, বিপিএম।

এছাড়া অতিথি হিসেবে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান ও কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) উপসচিব তরফদার মো. আক্তার জামীল।

মূল আলোচক হিসেবে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন ও প্রচার নিষিদ্ধ এবং পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত বিধান সম্পর্কে বিশদ আলোকপাত করেন নাটাব প্রজেক্ট ম্যানেজার ফিরোজ আহমেদ।

আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন জেলা বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ ওয়াহাব বাদল, নারীনেত্রী অ্যাডভোকেট মায়া ভৌমিক, টিআইবির এরিয়া ম্যানেজার ফজলে এলাহী, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক মোহাম্মদ ফারুক আহামেদ, ছড়াকার জাহাঙ্গীর আলম জাহান, জেলা ক্যাব সভাপতি আলম সারোয়ার টিটু, দৈনিক মানবজমিন এর স্টাফ রিপোর্টার ও কিশোরগঞ্জ নিউজ এর প্রধান সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম, জেলা স্মরণী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাবেয়া আক্তার খাতুন, নাটাব কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তৌকির ইসলাম তন্ময় প্রমুখ।

আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তররের সহকারী পরিচালক হাবিব তৌহিদ ইমাম, নাটাবের সহ-সভাপতি সৈয়দ রেজওয়ান উল্লাহ বাশার, বেসরকারি সংস্থা ওয়েপ এর নির্বাহী পরিচালক মিজানুর রহমান রিপন প্রমুখসহ নাটাবের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, ‘ধুমপান বা তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারে কোন সুফল নেই। বরং এর ব্যবহার ভয়াবহ স্বাস্থ্য ঝূঁকি তৈরি করে। এই ভয়াবহ স্বাস্থ্য ঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনায় রেখে তামাকজাত দ্রব্য নিয়ন্ত্রণে সরকার কাজ করছে। কিন্তু এ ব্যাপারে প্রথমে নিজেদের সচেতন হবে। ব্যক্তি, পরিবার ও সামাজিক সচেতনতার মাধ্যমে তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার থেকে আমাদের সরে আসতে হবে। এজন্যে অবশ্যই সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান করে কাজ করে যেতে হবে।’

এক্ষেত্রে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে জেলার সাংবাদিকদের কাজ করারও অনুরাধ জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে নাটাবের পক্ষ থেকে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন ও প্রচার নিষিদ্ধ এবং পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কিত বিধান সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য সম্বলিত লিফলেট ও বুকলেট আলোচনা সভায় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে সরবরাহ করা হয়।

এছাড়া বক্তারা এ রকম একটি ফলপ্রসূ আলোচনা সভা আয়োজন করায় নাটাবকে ধন্যবাদ দেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর