কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সংরক্ষিত মহিলা আসনে মনোনয়ন চান আওয়ামী পরিবারের সদস্য সালমা হক


 স্টাফ রিপোর্টার | ২১ জানুয়ারি ২০১৯, সোমবার, ৬:০৭ | নারী 


গত ৩০শে ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার পর এখন শুরু হয়েছে সংরক্ষিত মহিলা এমপি পদের জন্য তোড়জোর। অনেকেই এই পদের জন্য চেষ্টা তদবিরে ব্যস্ত। ধানমণ্ডির আওয়ামী লীগের সভাপতির কার্যালয় থেকে ৩০ হাজার টাকায় মনোনয়ন ফরম বিক্রি করা হচ্ছে। অনেকেই ফরম কিনছেন। কিশোরগঞ্জ থেকে ‘৩২০ মহিলা আসন ২০’ এর জন্য মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন জেলা শহরের আওয়ামী পরিবারের সদস্য হিসেবে পরিচিত জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি সালমা হক।

সালমা হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স করেছেন। ছাত্রজীবনে ক্রীড়াবিদ ছিলেন। স্কুল পর্যায়ে ঢাকা বিভাগে ব্যাডমিন্টনে রানার্সআপ হয়েছিলেন। ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গেও জড়িত ছিলেন। পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগ করে, শহরে এরকম যে দু’চারটা পরিবার রয়েছে, এর মধ্যে সালমা হকদের পরিবার অন্যতম।

সালমা হক বর্তমানে শহরের পৌর মহিলা কলেজে শরীরচর্চা শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন। স্কাউটিংয়েও তার অনবদ্য কৃতিত্ব রয়েছে। তিনি ২০১৭ ও ২০১৮ সালে পুরুষ-মহিলার সম্মিলিত প্রতিযোগিতায় জেলায় শ্রেষ্ঠ রোভার হবার পর ময়মনসিংহ বিভাগেও শ্রেষ্ঠ রোভার হয়েছিলেন।

২০১৫ সালে জাপানে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক স্কাউট জাম্বুরিতে তিনি ইন্টারন্যাশনাল সার্ভিস টিমে কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি স্কাউটের পক্ষ থেকে ভারত এবং ভুটানও সফর করেছেন। তার নেতৃত্বে পৌর মহিলা কলেজ দল ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় কয়েক বছর ধরে ঢাকা বোর্ডে একাধিক ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ হচ্ছে।

সালমা হক রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডেও সমানভাবে সক্রিয়। দল যখন বৈরি পরিবেশ মোকাবেলা করেছে, তখনও তিনি সংগঠনের কাজ চালিয়ে গেছেন। তার বাবা মরহুম একেএম ফায়জুল হকও আওয়ামী লীগের একজন নিবেদিত সংগঠক ছিলেন। সালমা হকের তিন ভাই আওয়ামী রাজনীতির জন্য কারা নির্যাতন ভোগ করেছেন। তার এক ভাই সায়দুল হক শেখর সরকারি গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের প্যানেলে ভিপি পদে নির্বাচন করেছিলেন। ছোট বোন শিক্ষিকা লায়লা হক বন্যা গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদে ছাত্রলীগের প্যানেলে মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নির্বাচিত হয়েছিলেন।

সালমা হক জানান, তিনি প্রতিটি নির্বাচনে দলের জন্য সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত মাঠে কাজ করেছেন। সর্বশেষ নির্বাচনেও তিনি প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের জন্য সকাল থেকে রাত পর্যন্ত গ্রামে গ্রামে কাজ করেছেন। তিনি সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গেও জড়িত রয়েছেন। তার একমাত্র সন্তান দশম শ্রেণির ছাত্রী ফারিহা রাইসা একজন নৃত্য শিল্পী। তার স্বামী মোস্তফা কামাল কিশোরগঞ্জের একজন প্রথিতযশা সাংবাদিক।

সালমা হক বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে দায়িত্ব দেন, তাহলে বিগত দিনের মতই দলের প্রতি নিবেদিত থেকে দলের সুনাম অক্ষুন্ন রেখে অর্পিত দায়িত্ব আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করে যাব।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর