কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধী অ্যাডভোকেট জহিরের গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন



 স্টাফ রিপোর্টার | ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, বুধবার, ১১:৫৭ | বিশেষ সংবাদ 


অভিযুক্ত অ্যাডভোকেট জহিরুল হক।

তাড়াইল উপজেলা আলবদর কমান্ডার অ্যাডভোকেট জহিরুল হকসহ জেলার সকল যুদ্ধাপরাধীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে যুদ্ধাপরাধ প্রতিরোধ আন্দোলন কমিটি।

বুধবার দুপুরে জেলা শহরের আখড়া বাজার সেতু সংলগ্ন উন্মুক্ত চত্বরে এই মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করা হয়।

কর্মসূচি চলাকালে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কিশোরগঞ্জ যুদ্ধাপরাধ প্রতিরোধ আন্দোলন কমিটির সভাপতি রেজাউল হাবীব রেজা।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন তাড়াইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হক ভুইয়া মোতাহার। প্রধান আলোচক ছিলেন তাড়াইল উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার মো. আবদুল হাই।

বিশেষ আলোচক ছিলেন কিশোরগঞ্জে যুদ্ধাপরাধ প্রতিরোধ আন্দোলন কমিটির উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মো. নিজাম উদ্দিন।

সংগঠনের সহ-সভাপতি আমিনুল হক সাদীর পরিচালনায় এতে অন্যদের মধ্যে সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেম, শহীদ এ.বি. মহিউদ্দিনের ছেলে আসাদুজ্জামান সোহেল, জামাতা মুক্তিযোদ্ধা মো. শওকত উদ্দিন ভুইয়া, যুদ্ধাপরাধ মামলার সাক্ষীর সন্তান শাহরিয়ার রশিদ অন্তর, সমাজকর্মী আজিজুর রহমান দুলাল, সাংবাদিক শামসুল মালেক চৌধুরী লিটন, শফিক কবীর ও ফারুকুজ্জামান, কবি সুভাষ রায় প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

বক্তাগণ গুরুদয়াল সরকারি কলেজের সাবেক জিএস তাড়াইল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভাষা সৈনিক এ.বি. মহিউদ্দিন ও উত্তর সেকান্দরনগর গ্রামের মনোরঞ্জন বাবুর হত্যাকারী বর্তমানে তদন্তনাধীন মামলার আসামি এবং ধলার তসুদ্দুক হোসেন চৌধুরী ও ডা. আতিকুর রহমান চৌধুরীর বাড়িতে অগ্নিসংযোগকারী তাড়াইলের আলবদর কমান্ডার অ্যাডভোকেট জহিরুল হকসহ জেলার সকল যুদ্ধাপরাধীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানান।

কর্মসূচিতে মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সন্তান, যুদ্ধাপরাধ মামলার সাক্ষী, যুদ্ধাপরাধ প্রতিরোধ আন্দোলন কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, কিশোরগঞ্জ শহরের গাইটাল শিক্ষকপল্লীর বাসিন্দা এ.বি. মহিউদ্দিন একাত্তরে তাড়াইল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক থাকাকালে এলাকার যুবক-তরুণদের মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন। একাত্তরের ১০ নভেম্বর বিকালে শিক্ষকপল্লীর বাসা থেকে শহরের কাচারি বাজারে বাজার করতে গেলে রাজাকার-আলবদররা তাকে ধরে নিয়ে হত্যা করে। তার লাশটি শেষ পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। তাড়াইলের সাচাইল গ্রামের লুৎফর রহমান তাড়াইলের ধলা গ্রামের অ্যাডভোকেট জহিরুল হককে এ.বি. মহিউদ্দিনের হত্যাকারী হিসেবে উল্লেখ করে ট্রাইব্যুনালে লিখিত অভিযোগ করেছেন। এর প্রেক্ষিতে ট্রাইব্যুনাল তদন্ত শুরু করেছে।

জানা গেছে, ঘাতক অ্যাডভোকেট জহিরুল হক একাত্তরে এ.বি. মহিউদ্দিনের স্কুলে শিক্ষকতা করতেন। বর্তমানে তিনি জামায়াত নেতা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ