কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


যার হাত ধরে এগিয়ে যাচ্ছে তাড়াইলের প্রাথমিক শিক্ষা


 আমিনুল ইসলাম বাবুল | ২৯ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ২:৩৯ | শিক্ষা  


শিক্ষা এমন একটি অদৃশ্য শক্তি যা কেউ চাইলেও কেড়ে নিতে পারে না। আর এই অদৃশ্য শক্তির প্রাথমিক পর্ব হলো প্রাথমিক শিক্ষা। এই শক্তি কীভাবে প্রয়োগ করলে তা মানুষের জীবনকে বদলে দিতে পারে তা নিয়ে ভাববার মানুষ খুব-ই কম। তবে, কেউনা কেউতো ভাবেই।

আমাদের দেশে মাঠ পর্যায়ে ভাববার দায়িত্বে থাকেন একজন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও তার সহযোদ্ধা একাধিক সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তাবৃন্দ। শিক্ষা কর্মকর্তার যোগ্য নেতৃত্বের বদৌলতে প্রাথমিক শিক্ষার ইতিবাচক পরিবর্তন সাধিত হয়। অনেক শিক্ষা কর্মকর্তা আছেন যারা মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে রুটিন কাজের পাশাপাশি বিভিন্নমুখী উদ্যোগী কর্মসূচি গ্রহণ করে থাকেন। যে উদ্যোগগুলো মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

তেমনি একজন উদ্যোগী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হলেন ফাতেমা সুলতানা। যিনি বর্তমানে তাড়াইল উপজেলায় কর্মরত। প্রায় দেড় বছর ধরে তিনি উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছেন।

‘এগিয়ে যাচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা, এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ- এই শ্লোগানকে ধারণ করে তাড়াইলে প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয় আকস্মিক পরিদর্শন করেছেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার ফাতেমা সুলতানা। উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ৭০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে পর্যাক্রমে রুটিন কাজের পাশাপাশি মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন বিদ্যালয় আকস্মিক পরিদর্শন করে চলছেন তিনি।

এ সময় তিনি বিদ্যালয়ের শ্রেণি কার্যক্রম, ক্লাস রুটিন, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম পরিদর্শন করেন এবং শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলেন পরে তিনি নিজে-ই ভিন্ন-ভিন্ন ক্লাসরুমে প্রবেশ করে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেন। প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক, শ্রেণি শিক্ষক  ও সহকারী শিক্ষকদের সাথে প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে মতবিনিময় করেন।

ফাতেমা সুলতানা বলেন, শিক্ষা কার্যক্রম সুষ্ঠু ও সুন্দর ভাবে পরিচালনার জন্য নিয়মিত বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শন ও মনিটরিং কার্যক্রম করা হয়। এরই অংশ হিসেবে বছরের শুরুতে বিদ্যালয়গুলোতে সময়মত শিক্ষকদের উপস্থিতি নিশ্চিতকরণ, ঝড়ে পড়ার হার হ্রাস, শিক্ষার্থীদের সংখ্যাবৃদ্ধি, সমাপনী পরীক্ষায় পাশের হার বৃদ্ধি, শতভাগ পাশকৃত বিদ্যালয়ের সংখ্যাবৃদ্ধি, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, শিক্ষক ডায়েরি, কৃতিভিত্তিক ব্যবস্থাপনাসহ সকল শিক্ষা কার্যক্রম নিশ্চিতের লক্ষ্যে আমরা উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত ছুটছি। উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালগুলোতে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে প্রজেক্টরে ক্লাস নেওয়ার জন্য জেলা শিক্ষা অফিস হতে শিক্ষকদের কনটেন্ট সরবরাহ করা হয়েছে।

তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, জানুয়ারি-২০১৯ থেকেই উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালগুলোতে প্রায় শতভাগ মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম বাস্তবায়ন হবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর