কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সরকারি খরচে প্রশিক্ষণ শেষে চাকরি, কিশোরগঞ্জে এক হাজার আবেদন


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:১০ | জবস জোন 


সরকারি খরচে যাতায়াত, থাকা-খাওয়া ও প্রশিক্ষণ। ছেলেদের দুই মাস আর মেয়েদের তিন মাস মেয়াদী প্রশিক্ষণ শেষে প্রতিষ্ঠিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সাথে সাথে মিলবে চাকরি। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বেকার যুবক ও যুব নারীদের এই প্রশিক্ষণ পাওয়ার সুযোগ করে দিতে মঙ্গলবার আয়োজন করা হয়েছিল ট্যালেন্ট হান্টিং প্রোগ্রাম।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মঙ্গলবার (৫ ফেব্রুয়ারি) উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এই ট্যালেন্ট হান্টিং প্রোগ্রামে আবেদন নিয়ে হাজির ছিলেন প্রায় এক হাজার বেকার যুবক ও যুব নারী।

বেকার যুবক ও যুব নারীদের জন্য প্রযুক্তিনির্ভর দক্ষতা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম ও বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) এর সহযোগিতায় ট্যালেন্ট হান্টিং প্রোগ্রামটির আয়োজন করা হয়।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) মহাপরিচালক শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মো. মফিজুর রহমান।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) পরিচালক ড. সৈয়দ মো. ইহসানুল করিম, সেপা প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাহদী হাসান ও একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রামের প্রতিনিধি মো. হাবিবুর রহমান।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) এর উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. এনামুল হক।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশের বেকার যুবক ও যুব নারীদের আত্মকর্মী হিসেবে গড়ে তুলে দারিদ্র বিমোচনের জন্য স্বল্প শিক্ষিতদের কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনবল তৈরিতে কাজ করছে সরকার। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) এ আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দারিদ্র বিমোচন প্রকল্প (সেপা) চালু করেছে সরকার।

এই প্রকল্পের আওতায় ২০০৯ সাল থেকে দেশে উন্নত কারিগরি দক্ষতাসম্পন্ন জনগোষ্ঠী সৃষ্টির লক্ষ্যে উচ্চ মানসম্পন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণ প্রদান করে আসছে। এই প্রশিক্ষণের জন্য প্রশিক্ষণার্থীদের প্রশিক্ষণ ফি, থাকা-খাওয়া ও যাতায়াত ভাতা সরকার বহন করে। এছাড়া প্রশিক্ষণ শেষে বিভিন্ন শিল্প কারখানায় চাকরিরও ব্যবস্থা করা হয়। মোট ১২টি ট্রেডের মধ্যে ৯টি ট্রেডে বেকার যুব নারী এবং ৩টি ট্রেডে বেকার যুবকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

এই প্রশিক্ষণের প্রশিক্ষণার্থী বাছাইয়ের জন্য কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ট্যালেন্ট হান্টিং প্রোগ্রামের আয়োজন করা হয়েছে। প্রথম ধাপে বাছাইয়ের মাধ্যমে নির্বাচিত কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে ৭৫ জন যুবক ও ৭৫ জন যুব নারী মোট ১৫০ জনকে প্রশিক্ষণের সুযোগ দেয়া হবে। পরবর্তিতে ধাপে ধাপে এই কার্যক্রম চলমান থাকবে।

অনুষ্ঠানের আয়োজকরা জানিয়েছেন, এই প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের জন্য কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে প্রায় এক হাজার যুবক ও যুব নারী আবেদন করেছেন।

অনুষ্ঠানে আবেদনকারীদের মধ্য থেকে প্রতীকীভাবে প্রশিক্ষণের জন্য নির্বাচিত মোসা. আকলিমা আক্তার নামে এক যুব নারী ও মো. মাহমুদুল হক সোহেল নামে এক যুবকের হাতে প্রশিক্ষণে যোগদানপত্র তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি, সভাপতি ও বিশেষ অতিথিরা।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর