কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দেড় বছরেও ধরা পড়েনি যৌতুকলোভী স্বামী, অসহায় রেখার আকুতি


 স্টাফ রিপোর্টার | ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:৩১ | তাড়াইল  


কিশোরগঞ্জে যৌতুক মামলায় মো. পিয়াস ওরফে সুজন নামের এক ব্যক্তিকে ২০১৭ সালের ২০ জুলাই দেড় বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয় কিশোরগঞ্জের ১নং বিচারিক আদালত। রায় ঘোষণার দেড় বছর পরও তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। সাজাপ্রাপ্ত ওই আসামী রংপুর জেলার কোতোয়ালী থানার পূর্ব খাসভাগ গ্রামের শাহাদুজ্জামানের ছেলে।

আদালত সূত্র জানায়, সুজনের সাথে কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার তালজাঙ্গা গ্রামের রুস্তম আলীর মেয়ে রেখা আক্তারের বিয়ে হয় ২০০৮ সালের আগস্টে। বিয়ের পর স্বামী স্ত্রী রাজধানীর মোহাম্মদপুরে বসবাস করছিল। ওই সময় থেকেই সুজন বিভিন্ন অজুহাত তুলে বাপের বাড়ি থেকে যৌতুক এনে দেয়ার জন্য রেখাকে নির্যাতন শুরু করে। নির্যাতন সইতে না পেরে এক পর্যায়ে রেখা  ছেলে সন্তানসহ বাবার বাড়ি চলে আসেন।

২০১৬ সালের ৫ মে সুজন শ্বশুর বাড়ি এসে এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। রেখার অসহায় বাবা যৌতুক দিতে না পারায় সুজন রেখা ও তার ছেলেকে ফেলে রেখে চলে যায়। এ অবস্থায় রেখা ২০১৬ সালের ৭ জুন কিশোরগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে যৌতুক নিরোধ আইনের ৪ ধারায় মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি আমলে নিয়ে প্রথম শ্রেণির বিচারিক আদালতে পাঠানো হয়। এ মামলায় গত ২০১৭ সালের ২০ জুলাই কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো: ইকবাল মাহমুদ আসামী মো: পিয়াস ওরফে সুজনকে ১৯৮০ সালের যৌতুক নিরোধন আইনের ৪ ধারায় দোষি সাবস্ত করে ১ বছর ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো দশ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন।

সেই সাথে পলাতক সুজনের বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানাসহ গ্রেফতারি পরোয়ানা ইস্যু করা হয়। সেই পরোয়ানা পাঠানো হয় রংপুর জেলার কোতোয়ালী থানায়। কিন্তু রায় ঘোষণার দেড় বছর পরও সুজনকে গ্রেফতার করতে পারেনি কোতোয়ালী থানার পুলিশ।

এ অবস্থায় চরম হতাশায় আছেন বাদী রেখা আক্তার ও তার বাবার বাড়ির লোকজন। রেখা আক্তার জানান, তার স্বামীর বিরুদ্ধে ওই মামলায় সাজা হওয়া ছাড়াও নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের আরেকটি মামলা কিশোরগঞ্জ ট্রাইবুনালে বিচারাধীন। পুলিশ তার যৌতুক লোভী স্বামীকে গ্রেফতার না করতে পারায় তিনি অনেকটা আতঙ্কে আছেন বলে জানান।

তিন বছর বয়সী একমাত্র সন্তানকে নিয়ে অনিশ্চিত জীবনে কান্নাই যেন এখন তার একমাত্র সমবেদনা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর