কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


প্রতিটি হৃদয়ে তৈরি হোক একটি করে গ্রন্থাগার


 যাবীন তাসমিন ছানা হক | ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১০:১৩ | মত-দ্বিমত 


"পড়িলে বই আলোকিত হই, না পড়িলে বই অন্ধকারে রই।" বই পড়তে উৎসাহিত করতে এই শ্লোগানটিই সুন্দর এবং যথেষ্ঠ। অস্কার ওয়াইল্ড বলেছেন, "একজন মানুষ ভবিষ্যতে কি হবেন সেটি অন্য কিছু দিয়ে বোঝা না গেলেও তার পড়া বইয়ের ধরণ দেখে তা অনেকাংশেই বুঝা যায়।"

তার মানে একটি বই একজন মানুষের পুরো জীবনকে মুহূর্তেই বদলে দিতে পারে? হ্যাঁ, পারে। হতে পারে তা ইতিবাচক অথবা নেতিবাচক। আপনাকে যদি প্রশ্ন করা হয়, আপনি কি গত শতাব্দীর মনীষীদের সাথে কথা বলতে চান? অবশ্যই আপনার উত্তর থাকবে- হ্যাঁ। তাহলে আসুন আমরা বই পড়ি।

এ বিষয়ে দেকার্তে বলেন, "ভালো বই পড়া মানে গত শতাব্দীর সেরা মানুষদের সাথে কথা বলা।" কী ভাবছেন? এতো গেলো মনীষীদের বাণী।

তাহলে চলে আসুন পবিত্র কুরআনে। পবিত্র কুরআনের প্রথম বাণী ইকরা বা পড়। আর পবিত্র কুরআন জ্ঞানার্জনের অন্যতম মাধ্যম। আপনি যদি আমাকে বলেন, আপনার মন খারাপ! তাহলে আমি আপনাকে এমন এক রাজ্যর সন্ধান দিবো যেখান থেকে ভ্রমণ করে আসলে আপনার মন ভালো হয়ে যাবে। তা হলো- বই।

জেমস রাসেল বলেন, "বই হলো এমন এক মৌমাছি যা অন্যদের সুন্দর মন থেকে মধু সংগ্রহ করে পাঠকদের জন্য নিয়ে আসে।"

এছাড়া ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, "আমাকে মারতে চাইলে চাকু, ছুরি কিংবা পিস্তলের প্রয়োজন নেই, বরং আমাকে বইয়ের জগৎ থেকে দূরে রাখ।"

বইয়ের মাধ্যমে আমরা বিশ্বের ইতিহাস সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারি। বই মানুষের মনুষ্যত্ব, বুদ্ধি, চিন্তা চেতনাকে বিকশিত করে। তাই আসুন আমরা বই পড়ে মনের হাসপাতালে গ্রন্থাগার তৈরি করি। আসুন আমরা প্রতিজ্ঞা করি, প্রতিটি জেলায় নয়, প্রতিটি থানায় নয়, প্রতিটি ইউনিয়ন বা কলোনিতে নয়, প্রতিটি হৃদয়ে একটি করে গ্রন্থাগার তৈরি করি।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর