কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


খাবারের পাশাপাশি রেস্টুরেন্টের পরিবেশেও নজর কিশোরগঞ্জের ভোজন রসিকদের


 সাজন আহম্মেদ পাপন | ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার, ২:০৭ | অর্থ-বাণিজ্য 


গত ১৫ বছর আগেও কিশোরগঞ্জ জেলা শহরে দেখা যেতো না সাজানো-গোছানো ও নান্দনিক পরিবেশের রেস্টুরেন্ট। সময় গড়ানোর সাথে সাথে এই শহরে গড়ে উঠেছে অনেকগুলো ব্যতিক্রমধর্মী অত্যাধুনিক রেস্টুরেন্ট। দেশি-বিদেশি সব মুখরোচক খাবারের সাথে এইসব রেস্টুরেন্টের অত্যাধুনিক ও নান্দনিক পরিবেশ আপনাকে মুগ্ধ করে তুলবে এবং সেই সাথে উপহার দিবে এক অন্যরকম অনুভূতি।

মানুষের দৈনন্দিন ও মৌলিক চাহিদার তালিকায় প্রথমেই রয়েছে খাবার। আর তাই খাবারের প্রতি মানুষের আগ্রহ একটু বেশি। ছোট-বড় সকলেরই খাবারের প্রতি রয়েছে ভিন্ন রকমের পছন্দ এবং ভালো লাগা। রেস্টুরেন্ট এখন উদর পূর্তির পাশাপাশি বেড়ানো ও বিনোদনের স্থান হিসেবে জনপ্রিয় হচ্ছে। বিভিন্ন দিবস উদযাপন ছাড়াও পারিবারিক অনুষ্ঠান পালন এবং নানা উপলক্ষ্যে এখন পরিবার নিয়ে মানুষ রেস্টুরেন্টের ভিন্ন স্বাদের খাবার খেতে পছন্দ করেন।

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ভোজন রসিকদের আস্থা অর্জন করতে পারায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে কিশোরগঞ্জের বেশ কয়েকটি নান্দনিক পরিবেশের রেস্টুরেন্ট। প্রতিদিন এইসব রেস্টুরেন্টে নানা বয়সী নারী-পুরুষের সমাগম হয়। এর মধ্যে রয়েছে শহরের স্টেশন রোড এলাকায় গাংচিল রেস্তোরাঁ, রথখলা এলাকায় কয়লা, ধানসিড়ি ফুড প্যালেস, দারুচিনি রেস্টুরেন্ট, গৌরাঙ্গবাজার এলাকায় স্টার ওয়ান রেস্টুরেন্ট, উজানভাটি রেস্টুরেন্ট, বড়বাজার এলাকায় ক্যাসেল সালাম চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, কালী বাড়ী মোড়ে কুটুমবাড়ি রেস্টুরেন্ট ইত্যাদি। এছাড়াও শহরের বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন মানের রেস্টুরেন্ট রয়েছে।

গাংচিল রেস্তোরাঁর সত্ত্বাধিকারী মোঃ আবু সাঈদ জানান, মানুষের খাদ্যাভাসের দ্রুত পরিবর্তন, খাদ্য পরিবেশনের ধরন ও ধারণাকে মাথায় রেখে আধুনিক স্থাপত্যকলা ও মুখোরচক খাবার নিয়ে ২০০৫ সালের ৩১শে জানুয়ারি শুরু হয় গাংচিল রেস্তোরাঁর পথচলা। কিশোরগঞ্জে তারাই প্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদেরকে দিয়ে ইন্টেরিয়র ডিজাইন করিয়ে রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করেন। শুরু থেকেই খাবারের মান ধরে রেখেছে রেস্টুরেন্টটি। খাবারের মেন্যুতে হাওরের ছোট-বড় তাজা মাছ সবসময়ই থাকে।

এছাড়া গাংচিল রেস্তোরাঁ পরিবারের পক্ষ থেকে দরিদ্র এবং অসহায় মানুষদের নিয়মিত ফ্রি খাবার দেয়া হয়ে থাকে বলেও জানান মোঃ আবু সাঈদ।

গাংচিল রেস্তোরাঁতে পরিবার নিয়ে দুপুরের খাবার খেতে আসা শফিকুল ইসলাম বলেন, প্রায়ই এ রেস্তোরাঁতে খাবার খেতে আসি। রেস্তোরাঁর আভ্যন্তরীন নকশা এবং সুস্বাদু দেশীয় খাবার আমাকে এবং আমার পরিবারের সবাইকে আকৃষ্ট করে বারবার আসতে।

কয়লা’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও উদ্যোক্তা বিজয় খোকা বলেন, গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর আমরা কয়লা’র উদ্বোধন করি। আধুনিক ডেকোরেশনের জন্য চায়না থেকে কৃত্রিম ঘাস ও লতাপাতা আনা হয়েছে। ভোরের স্নিগ্ধ আবহ এবং প্রকৃতির সবুজাভের ছোঁয়ায় ইন্টেরিয়র ডিজাইন করা হয়েছে। রেস্টুরেন্টের দেয়ালে, টেবিলের পাশে সবজায়গাতেই রয়েছে শৈল্পিকতার ছোঁয়া। অত্যাধুনিক ও মনোমুগ্ধকর পরিবেশের সাথে মিল রেখে সার্বক্ষণিক মিউজিকের ব্যবস্থা।

আমাদের রেস্টুরেন্টে ক্রেতারা লাইভ দেখতে পাচ্ছেন তাদের অর্ডারকৃত খাবার কিভাবে তৈরি করা হয়। বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অভিজ্ঞ শেফ দ্বারা চাইনিজ, থাই, ম্যাক্সিকান, ইটালিয়ান, বাংলা, ইন্ডিয়ান খাবার ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী লাইভ কিচেনে রান্না করা হয়।

মুখরোচক খাবারের তালিকায় কুরাল মাছ, রুপচাঁদা এবং স্যামন ফিসও রয়েছে। আমরা সর্ব্বোচ গুরুত্ব দিচ্ছি খাবারের মানে। দুই শতাধিক খাবারের আইটেম নিয়ে আমরা যাত্রা শুরু করেছি। আমরা চাই সুস্বাদু খাবারের পাশাপাশি ক্রেতারা যেন সুন্দর একটি পরিবেশে কিছু সময় কাটাতে পারেন।

পরিবার নিয়ে দুপুরের খাবার খেতে আসা মো. ইস্রাফিল বলেন, চমৎকার পরিবেশে খাবার পরিবেশন করা হয়। খাবারের মানও খুব ভালো। ঢাকার নামি দামি রেস্টুরেন্টের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।

ধানসিড়ি ফুড প্যালেসের সত্তাধিকারী রাজিবুল আলম বলেন, রুচিশীল পরিবেশে দেশীয় খাবারের পরিবেশন তরুণ প্রজন্মকে টানতে শুরু করে। ৬ বছর ধরে ব্যবসা করছি, ভালোই চলছে। সকালের নাস্তা, দুপুরের খাবার এবং রাতের খাবারের তালিকার মধ্যে দেশীয় খাবারই বেশি। শুরু থেকেই আমাদের একটা উদ্দেশ্য ছিল খাবারের আসল স্বাদটা দেয়ার। সেজন্য প্রতিদিন তাজা মাছ এবং মাংস ব্যবস্থা করাও বড় চ্যালেঞ্জ।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর