কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


চূড়ান্ত লাইসেন্স পাচ্ছে কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বুধবার, ১:৩৮ | অর্থ-বাণিজ্য 


নিটল-নিলয় গ্রুপকে কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোনের (কেইজেড) চূড়ান্ত সনদপত্র (কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স) দেওয়া হচ্ছে। সব শর্ত পূরণ করায় চলতি ফেব্রুয়ারি মাসের ১৮ তারিখে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) এ লাইসেন্স প্রদান করবে। এর আগে ২০১৭ সালের ৩ জুলাই নিটল-নিলয় গ্রুপকে পাকুন্দিয়ার কালিয়াচাপড়া চিনিকলের জায়গায় কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল নামে একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স (প্রি-কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স) দেয় বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)।

এ বিষয়ে বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, টাটার মতো বড় কোম্পানি এ জোনে বিনিয়োগ করবে। এছাড়া আরও বড় কিছু কোম্পানি এখানে বিনিয়োগ করবে। সব শর্ত পূরণ করায় সহসাই চূড়ান্ত সনদপত্র দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, এ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার বিষয়টি উন্নয়নে পিছিয়ে থাকা কিশোরগঞ্জ জেলাকে উন্নয়নের মূল স্রোতে আনতে সহযোগী ভূমিকা পালন করবে। কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল হাওরাঞ্চলের প্রবেশদ্বার ভৈরবের কাছে থাকায় সহজে বিনিয়োগ আকর্ষণ ও বিপুল লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে।

বেজা সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন ভৈরব-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কসংলগ্ন পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৯১ দশমিক ৬৩ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত। এ জোন দেশের সার্বিক আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন তথা শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও জিডিপি বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

এর সঙ্গে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ রয়েছে, যা অর্থনৈতিক অঞ্চল থেকে সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারীদের সরবরাহ করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি প্রয়োজনীয় পানি শোধনাগার প্লান্ট, বর্জ্য পরিশোধনাগার প্লান্ট, অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থাসহ সব পরিবেশবান্ধব ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া এ অর্থনৈতিক অঞ্চল ভৈরব-কিশোরগঞ্জ রেললাইনের গচিহাটা রেলস্টেশনের সঙ্গে নিজস্ব লাইন দ্বারা সংযুক্ত রয়েছে।

নিটল-নিলয়ের এ জোনে গার্মেন্ট ও টেক্সটাইল, তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগ, লেদার ও ফুটওয়্যার, অ্যাগ্রোবেইজড ফুড অ্যান্ড বেভারেজ, ফার্মাসিউটিক্যাল, অটোমোবাইলস, স্টিল, ইলেকট্রনিকস, আইটি, ফার্নিচার, পাওয়ার প্লান্টসহ রফতানি জাতীয় শিল্প খাত স্থাপন করা হতে পারে। ফলে এই অর্থনৈতিক অঞ্চলকে ঘিরে বিপুল সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর