কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে যুবলীগ নেতা মনি হত্যার বিচার চেয়ে হাজারো জনতার মানববন্ধন


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বুধবার, ৬:২২ | কিশোরগঞ্জ সদর 


কিশোরগঞ্জে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের হাতে যুবলীগ নেতা ও ব্যবসায়ী একেএম ইউসুফ মনি (৪২) খুন এবং তার ছোট ভাই কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম ইয়াকুব সুমন (৩৬) আহত হওয়ার ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার এবং ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে।

বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টা থেকে সোয়া ১২টা পর্যন্ত শহরের আখড়াবাজার সেতু এলাকায় ‘শান্তিপ্রিয় কিশোরগঞ্জবাসী’র ব্যানারে আয়োজিত এই কর্মসূচীতে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলর, সদরের বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, রাজনীতিক, ব্যবসায়ীসহ হাজারো নারী-পুরুষ হাতে হাত রেখে বিশাল মানববন্ধনে অংশ নেন।

কর্মসূচি থেকে অবিলম্বে মনি হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও তাদের ফাঁসি এবং মনি হত্যা মামলাটি চাঞ্চল্যকর মামলা হিসেবে বিশেষ সেলে স্থানান্তরের দাবি জানানো হয়। এ সময় বাবা হত্যার বিচার চেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে নিহত একেএম ইউসুফ মনি’র সপ্তম শ্রেণি পড়ুয়া ছেলে সিয়াম।

এছাড়া কর্মসূচী চলাকালে কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ, জেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শামছুল ইসলাম খান মাসুম, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এনায়েত করিম অমি, নারীনেত্রী বিলকিস বেগম, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু, জেলা বিএনপির অর্থ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিলু, সদরের মারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান হলুদ, বিন্নাটি ইউপি চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র রথখলা ঈশা খাঁ রোডের আট শতাংশ জায়গার মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে গত ২৫শে জানুয়ারি রাত পৌনে ৯টার দিকে সেখানকার মাধবী প্লাজা এলাকায় শতাধিক অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইয়াকুব সুমনের ওপর হামলা চালায়। খবর পেয়ে কাউন্সিলরের বড় ভাই যুবলীগের সক্রিয় কর্মী একেএম ইউসুফ মনি সেখানে গেলে তার উপরও চড়াও হয় সন্ত্রাসীরা।

এ সময় মনি আত্মরক্ষার জন্য দৌড়ে মাধবী প্লাজার তিন তলার সিঁড়ির ওপরে ওঠার চেষ্টা করলেও সন্ত্রাসীরা সিঁড়ির ওপরেই তার ওপর হামলে পড়ে। চাপাতি-রামদা দিয়ে নৃশংসভাবে কুপিয়ে তারা ক্ষতবিক্ষত করে মনিকে। পরে সেখানে মুমূর্ষু মনিকে ফেলে রেখে চলে যাওয়ার সময় মার্কেটটির সামনে রাখা বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে তা-ব চালায় সন্ত্রাসীরা। এছাড়া মনি ও সুমনের আখড়াবাজারের বাসায় গিয়ে সেখানেও ভাঙচুর করে।

অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের অনেকের মুখোশ পড়া ছিল। তারা চলে যাওয়ার পর স্থানীয়রা দুই ভাইকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর রাত ১১টা ১০মিনিটের দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মনিকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহত একেএম ইউসুফ মনি’র স্ত্রী মোছা. আবেদা আক্তার শিখা বাদী হয়ে গত ২৭শে জানুয়ারি কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় ১২ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা ৪০/৫০ জনকে আসামি করে মামলা করেন। ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে অন্তত ১২ সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করলেও মূল অভিযুক্তসহ মনি হত্যায় জড়িত চিহ্ণিত সন্ত্রাসীরা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ, বিপিএম (বার) বলেন, আমরা মনে করছি, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই হতাকা-টি ঘটেছে। জেলা পুলিশ মামলাটি খুব গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর হিসেবে হাতে নিয়ে বিশেষ টিম গঠন করে দিয়েছে। ইতোমধ্যে ভাল ফল পাওয়া গেছে। দুইজন ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। আরো যারা রয়েছে, তাদেরকে ধরতে আমরা কাজ করছি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর