কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় ভগ্নিপতি হত্যায় এক শ্যালকের মৃত্যুদণ্ড, দুই শ্যালকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বুধবার, ৬:৪৯ | বিশেষ সংবাদ 


পাকুন্দিয়ার চাঞ্চল্যকর আক্তারুজ্জামান (৩৫) হত্যা মামলায় মোয়াজ্জেম হোসেন মজু (৩০) নামে এক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড এবং মোবারক (২৮) ও আরমান (২৪) নামে দুই আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া প্রত্যেক আসামিকে পাঁচ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড করা হয়েছে। বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) জনাকীর্ণ আদালতে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মো. আব্দুর রহিম এই রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত মোয়াজ্জেম হোসেন মজু এবং যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত মোবারক ও আরমান তিনজনই সহোদর। তারা পাকুন্দিয়া উপজেলার মান্দারকান্দি গ্রামের নূর হোসেনের ছেলে। অন্যদিকে নিহত আক্তারুজ্জামান একই গ্রামের হাজী মো. আছির উদ্দিনের ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, আক্তারুজ্জামান ও তার স্ত্রী সেলিনা আক্তার সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাই-বোন। ২০১২ সালের ২৬শে জুলাই স্বামী আক্তারুজ্জামানের সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়ে রাগারাগি করে স্ত্রী সেলিনা আক্তার একই গ্রামের বাবার বাড়িতে চলে যায়। পরদিন ২৭শে জুলাই সন্ধ্যায় স্ত্রীকে আনতে শ্বশুরবাড়িতে যান আক্তারুজ্জামান।

স্ত্রীকে বাড়িতে ফিরিয়ে নেওয়া নিয়ে এ সময় চার শ্যালক আজিজুল ইসলাম আরজু, মোয়াজ্জেম হোসেন মজু, মোবারক ও আরমানের সাথে আক্তারুজ্জামানের কথা বাগবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে চার ভাই মিলে আক্তারুজ্জামানকে শাবল, দা ও লাঠি নিয়ে ধাওয়া দেয়। এ সময় তারা আক্তারুজ্জামানকে ধরে পাশের একটি জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে শাবল, দা ও লাঠির আঘাতে ক্ষতবিক্ষত করে আক্তারুজ্জামানকে ফেলে রেখে যায়। স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই মো. রুহুল আমিন বাদী হয়ে চার সহোদর আজিজুল ইসলাম আরজু, মোয়াজ্জেম হোসেন মজু, মোবারক ও আরমানকে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা চলাকালে ২০১৫ সালে আজিজুল ইসলাম আরজু মারা যান।

সাক্ষ্য-তদন্ত শেষে বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) মামলাটির রায় ঘোষণা করেন বিচারক। কিন্তু তিন আসামিই পলাতক থাকায় তাদের অনুপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করা হয়।

সরকার পক্ষে এপিপি হুমায়ুন কবীর এবং আসামি পক্ষে রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী অ্যাডভোকেট লুৎফুর রশীদ রানা মামলাটি পরিচালনা করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর