কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


১৭ মাস পর জানা গিয়েছিল দুই তরুণীর খুনের কথা, সাড়ে ১০ বছর পর দুই ঘাতকের ফাঁসির আদেশ


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, রবিবার, ১০:০৯ | এক্সক্লুসিভ 


ছবি: উপরের বামে নিহত ঊর্মি ও ডানে নিহত সুমী, নিচে বামে মনির ও ডানে শামীম।

ঘটনাটি ২০০৮ সালের ১৬ই জুলাইয়ের। রহস্যজনকভাবে কিশোরগঞ্জ শহর থেকে নিখোঁজ হয় আফরোজা আক্তার সুমি (১৯) ও আফরোজা আক্তার ঊর্মি (১৯) নামের দুই কলেজ পড়ুয়া তরুণী। এর পর থেকেই তাদের কোন হদিস পাওয়া যাচ্ছিল না। উধাও হওয়ার ১৭ মাস পর ২০০৯ সালের ১৫ই ডিসেম্বর জানা গিয়েছিল, দুই তরুণীই খুন হয়েছে।

মুঠোফোনে পরিচয়ের সূত্র ধরে ২০০৮ সালের ১৬ই জুলাই কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশে কর্মরত কনস্টেবল মনিরুজ্জামান ওরফে হলুদ ওরফে সুজন (৩৯) এবং চট্টগ্রামের লালখান বাজারের একটি ইলেকট্রনিক্স দোকানের কর্মচারী শামীম হাওলাদার ওরফে জহির (৪৭)  দুই তরুণী আফরোজা আক্তার ঊর্মি ও আফরোজা আক্তার সুমিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরগঞ্জ থেকে রাজধানীর কাওরান বাজারের ওয়েস্টার্ন গার্ডেন হোটেলে নিয়ে যায়। সেদিন রাতে তারা স্বামী-স্ত্রীর পরিচয়ে রাজধানীর কাওরান বাজারের হোটেল ওয়েস্টার্ন গার্ডেনের ৩০৬ ও ৩০৭ নং কক্ষে ওঠে। রাতেই দুই প্রেম প্রতারক হোটেল কক্ষে ঊর্মি এবং সুমিকে ধর্ষণ শেষে শ্বাসরোধ করে নৃশংসভাবে হত্যা করে বাইরে থেকে তালা দিয়ে পালিয়ে যায়।

ওইদিনই গভীর রাতে দুই তরুণীর খুন হওয়ার বিষয়টি জানতে পেরে হোটেল কর্তৃপক্ষ ঝামেলা এড়াতে ঊর্মি ও সুমির লাশ দু’টি সব্জির ঝুড়িতে ভরে গুম করার পদক্ষেপ নেয়। পরে একটি ঝুড়ি মগবাজার হাতিরঝিলের পানিতে ফেলে দেয় এবং অপর ঝুড়ি তেজগাঁও রেলস্টেশনের পাশের ডাস্টবিনে ফেলে দেয়।

দীর্ঘ ১০ বছর ৭ মাস পর রোববার (১৭ই ফেব্রুয়ারি) কিশোরগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এ চাঞ্চল্যকর দুই তরুণী ঊর্মি ও সুমী হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। বেলা পৌনে ৩টার দিকে ট্রাইব্যুনালের বিচারক কিরণ শংকর হালদার রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে ঘাতক পুলিশ কনস্টেবল মনিরুজ্জামান ওরফে হলুদ ওরফে সুজনকে মৃত্যুদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা এবং অপহরণের পৃথক ধারায় ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়। আরেক ঘাতক শামীম হাওলাদার ওরফে জহিরকে মৃত্যুদণ্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানা এবং অপহরণের পৃথক ধারায় ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

এছাড়া মামলার বাকি ছয় আসামি মো. দিলবর হোসেন (৩১), মোস্তফা মীর রানা (৪৪), আবুল হোসেন ওরফে আবুল (৪৭), বাবুল মিয়া (৫৪), জয়নাল আবেদীন (৩৮) এবং কবির হোসেন শান্ত (৩৪) কে চার বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড এবং পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ছয় মাস করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এই ছয় আসামির সবাই হোটেল ওয়েস্টার্ন গার্ডেনের মালিক ও কর্মচারী।

রায় ঘোষণার সময় আদালতে মো. দিলবর হোসেন, মোস্তফা মীর রানা এবং জয়নাল আবেদীন এই তিন আসামি উপস্থিত ছিল। মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত দুই আসামিসহ পাঁচ আসামি পলাতক রয়েছে।

মৃতুদণ্ডে দণ্ডিত দুই আসামির মধ্যে পুলিশ কনস্টেবল মনিরুজ্জামান ওরফে হলুদ ওরফে সুজন নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলার হাটবারেঙ্গা গ্রামের আব্দুস সোবহানের ছেলে এবং শামীম হাওলাদার ওরফে জহির ঝালকাঠি জেলার নলসিটির কাওখিড়া আমিরাবাদ গ্রামের ফজলে আলী হাওলাদারের ছেলে।

এছাড়া দণ্ডিত বাকি ছয় আসামি হোটেল ওয়েস্টার্ন গার্ডেনের মালিক ও কর্মচারীদের মধ্যে মো. দিলবর হোসেন নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও এর উত্তর খংসারদী গ্রামের সালেহ মোহাম্মদের ছেলে, মোস্তফা মীর রানা সোনারগাঁও এর আমিনপুর গোয়ালদি গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীন মীরের ছেলে, আবুল হোসেন আবুল নরসিংদী জেলার রায়পুরার মির্জাচরন গ্রামের মৃত সুরুজ মিয়ার ছেলে, বাবুল মিয়া সোনারগাঁও এর বাড়ী সোনারগাঁও মজলিস গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজ প্রধানের ছেলে, জয়নাল আবেদীন নগর জোরার গ্রামের মো. মালেক মিয়ার ছেলে এবং কবির হোসেন শান্ত সোনারগাঁও পঞ্চবটি গ্রামের মো. আবুল হাশেমের ছেলে।

অন্যদিকে নিহত দুই তরুণীর মধ্যে আফরোজা আক্তার সুমি শহরের গাইটাল পেট্রলপাম্প এলাকার বাসিন্দা সাবেক স্কুলশিক্ষক মো. আবু বাক্কারের মেয়ে এবং আফরোজা আক্তার ঊমি শহরের তারাপাশা এলাকার বাসিন্দা অ্যাডভোকেট মো. নূরন্নবীর কন্যা। নিহত দুই তরুণী পরস্পরের বান্ধবী ছিল।

মামলার বিবরণ ও সংশ্লিষ্ট সূত্র অনুযায়ী, মুঠোফোনে পরিচয়ের সূত্র ধরে আফরোজা আক্তার সুমির সাথে শামীম হাওলাদার ওরফে জহিরের সখ্য গড়ে ওঠে। শামীম হাওলাদার ওরফে জহির ছিল বিবাহিত এবং দুই সন্তানের জনক। সে চট্টগ্রামের লালখান বাজারের একটি ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রীর দোকানে কাজ করতো। কিন্তু মুঠোফোনে সুমির সাথে কথা বলার সে তার পরিচয় দেয় ইলেক্ট্রনিক্স কোম্পানির কর্মকর্তা হিসেবে।

একইভাবে আফরোজা আক্তার ঊর্মির সাথে মুঠোফোনে পরিচয় থেকে সখ্য গড়ে ওঠে কিশোরগঞ্জ পুলিশ লাইন্সের কনস্টেবল মনিরুজ্জামান ওরফে হলুদ ওরফে সুজনের। কনস্টেবল মনিরুজ্জামান ওরফে হলুদ ওরফে সুজন নিজেকে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলে পরিচয় দেয় ঊর্মির কাছে।

মুঠোফোনে কথা বলার এক পর্যায়ে দুই বান্ধবীই সরাসরি দেখা করে তাদের দুই মুঠোফোন প্রেমিকের সঙ্গে। এই দেখাদেখির পর্বেই মনিরুজ্জামান ওরফে হলুদ ওরফে সুজন এবং শামীম হাওলাদার ওরফে জহিরের মধ্যে যোগাযোগ হয় এবং তারা একে অপরের ফোন নম্বর বিনিময় করে।

সম্পর্কের এক পর্যায়ে দুই তরুণী জানতে পারে, তাদের প্রেমিক মনির ও শামীম তাদের সঙ্গে প্রতারণা করছে। এ অবস্থায় তারা সরে পড়তে চাইলে চতুর দুই প্রেমিক ঢাকায় ফ্লাটবাড়ি ও জমি কিনে দেয়ার কথা বলে তাদের প্রলুব্ধ করে। এক পর্যায়ে ২০০৮ সালের ১৬ই জুলাই মনিরুজ্জামান ওরফে হলুদ ওরফে সুজন ঊর্মিকে এবং শামীম হাওলাদার ওরফে জহির সুমীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ফুসলিয়ে কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকায় নিয়ে যায়। সেদিন রাতেই তারা স্বামী-স্ত্রীর পরিচয়ে রাজধানীর কাওরান বাজারের হোটেল ওয়েস্টার্ন গার্ডেনের ৩০৬ ও ৩০৭ নং কক্ষে ওঠে। রাতেই দুই প্রেম প্রতারক হোটেল কক্ষে ঊর্মি এবং সুমিকে ধর্ষণ শেষে শ্বাসরোধ করে নৃশংসভাবে হত্যা করে। পরে বাইরে থেকে তালা দিয়ে হোটেল কর্তৃপক্ষকে খাবার আনার কথা বলে তারা পালিয়ে যায়।

কিন্তু দুই তরুণীর পরিবারের কেউই জানতো না দুই তরুণীর এই নৃশংসভাবে খুন হওয়ার ঘটনা। বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যাওয়ার পর সুমির বাবা মো. আবু বাক্কার কারও নাম উল্লেখ না করে কিশোরগঞ্জ সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন। তিনবার মামলারটির তদন্ত কর্মকর্তা বদল করা হয়। এরই মধ্যে আটক হয় দুই প্রেম প্রতারক মনির ও শামীম। কিন্তু তিন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মো. আলমগীর হোসেন, এসআই মো. মোশারফ হোসেন ও এসআই খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান কেউই দুই তরুণীর উধাও রহস্যের কিনারা করতে পারেননি।

এ পরিস্থিতিতে বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত মামলাটি পুনঃতদন্তের নির্দেশ দেয়। ঘটনার প্রকৃত কারণ খুঁজে বের করতে পুলিশের তৎকালীন মহাপরিদর্শক নূর মোহাম্মদ এর নির্দেশে পুলিশ হেডকোয়ার্টারের সিকিউরিটি সেলের এক এআইজির নেতৃত্বে গঠন করা হয় উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত টিম। এ টিমের সদস্যরা হাজতি আসামি মনির ও শামীম হাওলাদারকে ৭ দিনের রিমান্ডে এনে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। আর এতে বের হয়ে আসে চাঞ্চল্যকর ও লোমহর্ষক হত্যার বিষয়টি।

ঘাতক পুলিশ সদস্য মনির ও কাওরান বাজারের হোটেল ওয়েস্টার্ন গার্ডেনের হোটেল বয় দিলবার ২০০৯ সালের ১৫ই ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আয়াত আলীর কাছে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জোড়া খুনের বর্ণনা দেয়। পরে শামীমও আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা ডিবির তৎকালীন ওসি মো. আমজাদ হোসেন ২০১০ সালের ২৯শে এপ্রিল আট জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। দীর্ঘ সাক্ষ্য-শুনানি শেষে রোববার (১৭ই ফেব্রুয়ারি) চাঞ্চল্যকর এই মামলাটির রায় ঘোষণা করেন কিশোরগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক কিরণ শংকর হালদার।

রায়ের পর মামলার বাদী নিহত আফরোজা আক্তার সুমি’র বাবা মো. আবু বাক্কার সাংবাদিকদের কাছে রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে মৃত্যুদ-ে দ-িত পলাতক দুই আসামিকে গ্রেপ্তারের মাধ্যমে সাজা কার্যকরের দাবি জানান।

রাষ্ট্রপক্ষে স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট এম এ আফজল এবং আসামি পক্ষে  অ্যাডভোকেট মো. সিরাজ উদ্দিন মামলাটি পরিচালনা করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর