কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ২৫টি সিনেমা হলের মধ্যে ১৭টিই বন্ধ, ৮টি চলছে খুঁড়িয়ে


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:০০ | বিনোদন 


কিশোরগঞ্জে এক সময় বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম ছিলো সিনেমা। কালের বিবর্তন আর সময়ের চাহিদার কাছে আজ হার মানতে বসেছে সেই মাধ্যম। ফলে একের পর এক বন্ধ হতে হতে জেলার ২৫টি সিনেমা হলের মধ্যে ১৭টিই বন্ধ হয়ে গেছে। বাকি ৮টি কোন রকমে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে।

জেলার হাওরের চার উপজেলা ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম ও নিকলী ছাড়া বাকি ৯টি উপজেলাতে ২৫টি সিনেমা হলে এক সময় পাল্লা দিয়ে চলতো সিনেমা। কে কার আগে নামি-দামি সিনেমা এনে চালাতে পারে, সে প্রতিযোগিতাও কম ছিলো না। কিন্তু সিনেমার সেই সুদিন আর নেই। আকাশ সংস্কৃতি গিলে খেয়েছে সিনেমা হলের দর্শক। হাল সময়ে মোবাইল ইন্টারনেট সহজলভ্য হওয়ায় সিনেমা হলমুখী হওয়া এক রকম ছেড়েই দিয়েছে মানুষ।

কিশোরগঞ্জ সদরে ৬টি সিনেমা হল ছিল। এগুলো হলো, শহরের প্রাণকেন্দ্রে মানসী, ইউনিভার্সেল ও রঙমহল, পুলেরঘাট এলাকায় রাখী টকিজ ও ফাল্গুনী এবং সদরের নীলগঞ্জ বাজারে নীলভিউ টকিজ। এর মধ্যে ইউনিভার্সেল সিনেমা হলটি পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। পুলেরঘাট এলাকার রাখী টকিজ ও ফাল্গুনী সিনেমা হল দু’টি বন্ধ করে দিয়ে একটিতে ওয়ার্কসপ এবং অপরটিতে স্ মিল বসানো হয়েছে। এছাড়া নীলগঞ্জ বাজারে নীলভিউ টকিজ বন্ধ করে দিয়ে দোকানপাট বসানো হয়েছে। মানসী ও রঙমহল খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে।

করিমগঞ্জে দু’টি সিনেমা হল ছিল। আঁখী ও সংগীতা নামের সিনেমা হল দু’টিই বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। আঁখী সিনেমা হলটি ভেঙ্গে এতে মার্কেট করা হয়েছে। পুড়ে যাওয়া সংগীতা সিনেমা হলটির জায়গায় মুকিযুদ্ধের ভাস্কর্য তৈরি করা হয়েছে। এই দু’টির বাইরে উপজেলার নিয়ামতপুরে একটি সিনেমা হল বানানো হলেও কিছুদিন পরই সেটি বন্ধ করে দেয়া হয়।

তাড়াইলে খেয়া ও সৈকত নামে দু’টি সিনেমা হল ছিল। এর মধ্যে চিত্রনায়ক সোহেলরানা’র খেয়া ও স্থানীয় মালিকানাধীন সৈকত সিনেমা হল। দু’টি সিনেমা হলই বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে সৈকত সিনেমা হলের জায়গায় একটি কওমী মাদরাসা এবং সোহেল রানার খেয়া বিক্রি করে দেয়ার পর সেখানে একটি এনজিও ক্লিনিক চালানো হচ্ছে।

পাকুন্দিয়া উপজেলা সদরের মৌসুমী সিনেমা হল এবং উপজেলার মঠখোলা এলাকার সুমন সিনেমা হল এখনো কোন রকমে চালু রয়েছে।

হোসেনপুর উপজেলার একমাত্র সখী সিনেমা হলটি দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর মাঝে একবার চালু করা হলেও কিছুদিন পর আবারও বন্ধ হয়ে গেছে।

বাজিতপুর সদরে আলোছায়া নামে একটি এবং উপজেলার সরারচরে শান্তিমহল ও আশা নামে দুইটি সিনেমা হল ছিল। তিনটি সিনেমা হলই দীর্ঘদিন আগে বন্ধ হয়ে গেছে। এরমধ্যে আলোছায়া সিনেমা হলটিকে মার্কেট ও মোটর গ্যারেজে রূপান্তর করা হয়েছে। সরারচরের শান্তিমহল সিনেমা হলটি ভেঙ্গে এটিকে অ্যাডভোকেট ওসমান গণি কলেজ করা হয়েছে এবং সরারচরের আশা সিনেমা হলটিকে ধান-চালের মিলে পরিণত করা হয়েছে।

কটিয়াদীতে মুকুল ও কথাচিত্র নামে দুইটি সিনেমা হল ছিল। এর মধ্যে মুকুল সিনেমা হলটি ভেঙ্গে মার্কেট করা হয়েছে। কথাচিত্র সিনেমা হলটি এই বন্ধ এই চালু এরকম অবস্থায় বর্তমানে অনেকদিন ধরে বন্ধ রয়েছে।

কুলিয়ারচরে আনন্দ সিনেমা হল ও রাজ সিনেমা হল নামে দু’টি সিনেমা হল রয়েছে। অব্যাহত লোকসানের মুখেও সিনেমা হল দু’টি চালু রয়েছে।

জেলার বাণিজ্যিক উপজেলা ভৈরবে ৪টি সিনেমা হল ছিলো। এগুলো হলো, ছবিঘর, পলাশ, দরশন ও মধুমতি। এর মধ্যে ছবিঘর সিনেমা হলটি ভেঙ্গে ছবিঘর শপিং কমপ্লেক্স এবং পলাশ সিনেমা হলটি ভেঙ্গে বাসাবাড়ি করা হয়েছে। বর্তমানে দরশন এবং মধুমতি এই দু’টি সিনেমা হল চালু রয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর