কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অষ্টগ্রামের টিআইপি দিয়ারা খাল পুনঃখননে বিএডিসি, কৃষকের স্বস্তি


 অজিত দত্ত | ২ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৯:১৩ | কৃষি 


অষ্টগ্রাম উপজেলার কাস্তুল ইউনিয়নের টিআইপি দিয়ারা খালটি দীর্ঘদিন আগে পলি পড়ে ভরাট হয়ে যায়। খালে পানি না থাকায় গত ৬/৭ বছর ধরে দুই পাড়ের প্রায় দুই হাজার একর ফসলি জমিতে সেচ দেয়া নিয়ে সংকটে রয়েছেন কৃষক। বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে বসানো হয় ১০০টিরও বেশি অগভীর নলকূপ। এসব অগভীর নলকূপের মাধ্যমে এতোদিন সেচ সংকট মোকাবেলার চেষ্টা করে আসছিলেন কৃষক।

এরকম পরিস্থিতিতে খালটি পুনঃখননের উদ্যোগ নেয় বিএডিসি। ইতোমধ্যে চার কিলোমিটারের এই খালটির প্রায় ৫০ ভাগ পুনঃখননের কাজ শেষ হয়েছে। বাকি অংশ পুনঃখননের কাজও অব্যাহত রয়েছে। ফলে জমিতে সেচ নিয়ে দীর্ঘদিনের ভোগান্তির অবসান হতে যাচ্ছে কৃষকের।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, টিআইপি দিয়ারা খালটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় দুই পাড়ের জমিতে সেচের পানির সংকট সৃষ্টি হয়ে আসছে। খালটি পুনঃখনন শুরু হওয়ায় এখন আশার আলো দেখছেন কৃষক। পুনঃখননের কাজ শেষ হলে হাওরের প্রায় ২ হাজার একর সেচের জমির ফসল রক্ষা পাবে। দুই পাড়ের জমিতে খালের পানি দ্বারা সেচ প্রদান করা সম্ভব হবে।

এছাড়া খালটি খনন হলে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার না করে ভূউপরিস্থ পানির ব্যবহার বৃদ্ধি পাবে। বর্তমানে ২০-২৫টি এলএলপি চালু আছে। খাল খনন সম্পন্ন হলে ৬০টিরও বেশি এলএলপি চালু করা যাবে। এর বাইরে খনন করা খালের মাটি খালের দুই পাড়ে ফেলে রাস্তা (গোপাট) তৈরি হলে হাওরের ফসল পরিবহনেও সুফল পাবেন কৃষক।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএডিসি) ময়মনসিংহ সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক বদরুল আলম বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করে টিআইপি দিয়ারা খালটি পুনঃখননের পদক্ষেপ নেন। খালটির পুনঃখননে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৯ লাখ ৩১ হাজার ২৮০টাকা।

ক্ষুদ্র সেচ উন্নয়ন প্রকল্প (এমডিএমআইডিপি) এর আওতায় ধলেশ্বরী নদী থেকে ধোপাবিল পর্যন্ত চার কিলোমিটার সেচ প্রকল্পটির প্রস্থ ১২ মিটার করে গিয়ে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জানুয়ারি থেকে ৯০ দিনের কর্মসূচিতে খালটি পুনঃখনন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এই পুনঃখনন কাজের ৫০ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার (১ মার্চ) খাল পুনঃখননের কাজ পরিদর্শন শেষে উপজেলা বিএডিসি কর্মকর্তা রওকন জাহান কাজের অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে প্রকল্প পরিচালক বদরুল আলম জানান, বিএডিসি সবসময় কৃষকদের স্বার্থে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে এবং ভবিষ্যতেও তা অব্যাহত থাকবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর