কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাজিতপুরের প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে যুক্তরাষ্ট্রের খ্যাতনামা অধ্যাপক মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৪ মার্চ ২০১৯, সোমবার, ৭:১৩ | প্রবাস 


বাজিতপুরের প্রত্যন্ত গ্রাম সরিষাপুরের একটি সাধারণ পরিবারে জন্ম তাঁর। অথচ মেধা ও যোগ্যতায় তিনি ছুঁয়েছেন সম্মানের আকাশ। বিশ্ব মানচিত্রকে উপেক্ষা করে তিনি হাঁটছেন নিজেকে আবিষ্কার করার পথে। বর্তমানে অধ্যাপনা করছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ার লক হ্যাভেন ইউনিভার্সিটিতে। ইউনিভার্সিটির ভূতত্ত্ব ও পদার্থবিদ্যার খ্যাতনামা এই অধ্যাপকের নাম ড. মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান।

দারুণ মেধাবী মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান ৮ম শ্রেণিতে বৃত্তি পাওয়ার পর এসএসসি ও এইচএসসিতেও অসামান্য ফলাফল অর্জন করেন। সত্তর শতাংশেরও বেশি নম্বর পেয়ে ১৯৭৪ সালে এসএসসি এবং ১৯৭৬ সালে তিনি এইচএসসি পাশ করেন। এর মধ্যে এসএসসিতে তাঁর প্রাপ্ত নম্বর ছিল জেলার মধ্যে সর্বোচ্চ।

ভালো ছাত্র হওয়ার সুবাদে শৈশব থেকেই তিনি শুনে আসছিলেন, তিনি একজন ডাক্তার হবেন। এইচএসসি পাস করার পর এই ডাক্তার হওয়ার ইচ্ছা থেকেই তিনি অংশ নেন মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায়। মেধাতালিকায় পঞ্চম হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পান তিনি। পাশাপাশি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম হওয়া ছাড়াও বুয়েটেও ভর্তির সুযোগ পান মেধাবী খালেকুজ্জামান। পরিবারের আগ্রহে তাকে ভর্তি হতে হয়েছিল বুয়েটে।

কিন্তু খালেকুজ্জামানের সামনে যে আরো বড়ো সুযোগ অপেক্ষা করছিল, তা জানতেন না কেউই। ১৯৭৬ সালে এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার পর তাঁর দাদা গণি মিয়া সংবাদপত্রের মাধ্যমে জেনে খালেকুজ্জামানকে জানিয়েছিলেন, যারা এসএসসি এবং এইচএসসিতে ৭০ শতাংশেরও বেশি নম্বর যারা পেয়েছেন, তারা সোভিয়েত সরকারের বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

খোঁজখবর নিয়ে তিনি ইউএসএসআর স্কলারশিপ এর জন্য আবেদন করেন এবং নির্বাচিত হন। ওই বছরই তিনি বৃত্তি নিয়ে পাড়ি জমান সোভিয়েত ইউনিয়নে।

মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে অনার্স-মাস্টার্স এবং ভাষা কোর্স সম্পন্ন করে ৬ বছর পর ১৯৮২ সালের নভেম্বরে মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান দেশে ফিরে আসেন। দেশে ফিরে ভূতাত্ত্বিক জরিপের ভূতাত্ত্বিক হিসাবে তিনি কাজ শুরু করেন। প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা হিসাবে ৭৫০ টাকা বেতন স্কেলে ১৯৮৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রায় তিন বছর কাজ করেন তিনি।

এই সময়ের মধ্যে আবারও স্কলারশীপ পান তিনি। এডিবি’র স্কলারশীপ পেয়ে ভূতত্ত্ব বিষয়ে স্নাতকোত্তর করার জন্য ১৯৮৭ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান। ডেলাওয়্যার বিশ্ববিদ্যালয়ে ভূতত্ত্ব বিষয়ে স্নাতকোত্তর শেষে পিএইচডি করেন তিনি।

টানা ৩২ বছরের অ্যামেরিকা জীবনে অর্জন করেছেন খ্যাতি, সম্মান আর মর্যাদা। সমসাময়িক সময়কে জয় করে সাহস, সততা ও নম্রতার মাধ্যমে যারা শিখর স্পর্শ করেছেন ড. মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান তাদের মধ্যে একজন।

সুদূর মার্কিন মুল্লুকে থেকেও সবসময় মাতৃভূমির প্রতি আকর্ষণ অনুভব করেন ড. মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান। তাঁর অসাধারণ সব কাজ, তাঁকে যেভাবে সম্মানিত করছে, তেমনিভাবে সম্মানিত হচ্ছে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ।

ড. মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান মনে করেন, পৃথিবীকে দেখা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই তিনি বিশ্বের প্রতিটি কোণ দেখতে চান। কেননা, বাহ্যিক জগত ছাড়া অভ্যন্তরীণ জগতকে জানা সম্ভব নয়।                                                                         -(সংক্ষেপিত)

সূত্র: দ্যাইনক্যাপ.কম, লিংক: The Mastermind




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর