কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় স্কোয়াশ চাষে স্বপ্ন দেখছেন কৃষক আতাবুর


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ১২ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:৪৭ | কৃষি 


পাকুন্দিয়া উপজেলার আঙ্গিয়াদী গ্রামের কৃষক আতাবুর রহমান ১৫ শতক জমিতে স্কোয়াশ চাষ করে দারুণ সাফল্য পেয়েছেন। তিনি ১৫ শতক জমিতে স্কোয়াশ চাষ করে সময়মত সেচ প্রদান, ফ্রুট ফ্লাই এর জন্য ফাঁদ ব্যবহার ও মোজাইক ভাইরাসের জন্য ছত্রাকনাশক স্প্রে ব্যবহার করায় জমিতে কোন ধরনের রোগ বালাইয়ের আক্রমণ করতে পারেনি। বর্তমানে তার ক্ষেতের স্কোয়াশ স্থানীয় ভাবে বাজারজাত শুরু হয়েছে।

জমি প্রস্তুত, বীজবপন ও সার কীটনাশক বাবদ তার ৭-৮ হাজার টাকা খরচ হয় এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে ৪০-৫০ হাজার টাকার স্কোয়াশ বিক্রি করতে পারবেন বলে কৃষক আতাবুর আশা প্রকাশ করেন। মাত্র দুই মাস বয়সেই স্কোয়াশ গাছে সবজি দেখে অন্যান্য কৃষকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, স্কোয়াশ একটি বিদেশী সবজি। ইউরোপে ‘জুকিনী’ ও সৌদি আরবে ‘কোচা’ নামে পরিচিত। বিশ্বের অনেক দেশে এটি খুব জনপ্রিয় একটি সবজি। কুমড়া গোত্রের এই সবজিটি স্বল্প জীবনকালিন, সুস্বাদু ও উচ্চ ফলনশীল হওয়ায় বাংলাদেশের কৃষকদের কাছে  ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। দুই রঙের স্কোয়াশ বাংলাদেশে দেখতে পাওয়া যায় সবুজ এবং হলুদ। তার মধ্যে সবুজ স্কোয়াশ বেশ জনপ্রিয়।

বীজ বপন করার ৩০ দিনের মধ্যে ফুল আসতে শুরু করে এবং ৪৫ দিন থেকে ফসল সংগ্রহ শুরু হয়। প্রায় ৮০দিন পর্যন্ত ফসল সংগ্রহ করা যায়। প্রতিটি গাছেই ১০ থেকে ১৫টি পর্যন্ত ফল আসতে দেখা দেখা যায়। জাতভেদে প্রতিটি সবজি ১ থেকে ৩ কেজি ওজনের হয়ে থাকে। যার খুচরা বাজার মুল্য প্রতি কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা ও পাইকারি ৩০-৩৫ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হয়। রোগবালাইয়ের মধ্যে মোজাইক ভাইরাস ও ফ্রুট ফ্লাই আক্রমন লক্ষ্য করা যায়। সময়মত দমন ব্যবস্থা নিলে সহজেই ফসল ঘরে তোলা যায়।

সরেজমিনে উপজেলার আঙ্গিয়াদী গ্রামের কৃষক আতাবুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ ভাইয়ের কাছে স্কোয়াশ সবজি সর্ম্পকে জানতে পারি এবং তা চাষ করার আগ্রহ প্রকাশ করি। সে মোতাবেক তিনি চাষের পরামর্শ ও বীজ প্রাপ্তির স্থানের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন। তারপর আমি বীজ সংগ্রহ করে ১৫ শতক জমিতে এই সবজি চাষ শুরু করি। স্বল্প সময়ে এত ফলন আসায় আমি খুবই আনন্দিত।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে এই ফসলটি সংগ্রহ ও বিক্রয় করছি। যা থেকে বেশ লাভবান হওয়ার স্বপ্ন দেখছি আমি। আমার এই সবজি চাষ দেখে এলাকার অন্য কৃষকরাও এই সবজি চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন এবং চাষও শুরু করে দিয়েছেন। আমিও পরবর্তী মৌসুমে দুই বিঘা জমিতে চাষ করার পরিকল্পনা নিয়েছি। এছাড়াও উপজেলার ষাটকাহন গ্রামের কৃষক জসিম উদ্দিন, চরটেকী গ্রামের কৃষক মমিন মিয়া স্কোয়াশ চাষ করেছেন।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. হামিমুল হক সোহাগ জানান, স্কোয়াশ একটি স্বল্প জীবনকালীন, উচ্চ ফলনশীল কুমড়া গোত্রীয় সবজি। এ সবজিতে শসা ও কুমড়ার মিক্সড স্বাদ পাওয়া যায়। বিভিন্ন রেষ্টুরেন্ট সহ স্থানীয় বাজারে এ সবজির চাহিদা রয়েছে। তাই খুব সহজে এই সবজিটি চাষ করে কৃষক লাভবান হতে পারেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো. সাইফুল হাসান আলামিন বলেন, গতানুগতিক ফসল আবাদ থেকে লাভ জনক সবজি আবাদে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। কম সময়ে বেশী ফলন পাওয়ায় অনেক কৃষক স্কোয়াশ চাষে আগ্রহী হচ্ছেন। অন্যান্য সবজির সাথে সাথী ফসল হিসাবে স্কোয়াশ চাষ করে কৃষকদের অতিরিক্ত মুনাফা হচ্ছে। ধীরে ধীরে পাকুন্দিয়া উপজেলায় স্কোয়াশ সবজির চাষ আরও বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি মনে করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর