কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বর্ণাঢ্য আয়োজনে ঈশা খাঁ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ২:৩১ | শিক্ষা  


বর্ণাঢ্য আয়োজনে ঈশা খাঁ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ এর ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদাযাপিত হয়েছে। বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের সর্বপ্রথম পূর্ণাঙ্গ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে কিশোরগঞ্জ শহরে প্রতিষ্ঠিত ঈশা খাঁ বিশ্ববিদ্যালয় গৌরবের সাথে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সকালে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ডা. আ.ন.ম. নৌশাদ খান, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. সুলতান উদ্দিন ভূঞা ও ট্রেজারার অনিল চন্দ্র সাহা কেক কেটে, পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন।

পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গিয়ে শেষ হয়।

প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ডা. আ.ন.ম. নৌশাদ খান বলেন, কিশোরগঞ্জ হাওরবেষ্টিত জেলা। হাওরসহ আশেপাশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলার শিক্ষার্থীদের কথা মাথায় নিয়ে ঈশা খাঁ বিশ্ববিদ্যালয় তার কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়টি অত্যন্ত সুনামের সাথে পাঠদানসহ যাবতীয় শিক্ষা, সাংস্কৃতিক, সামাজিক কর্মকান্ডে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। দরিদ্র, মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রম যেন ব্যাহত না হয় সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে।

উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. সুলতান উদ্দিন ভূঞা বলেন, ঈশা খাঁ বিশ্ববিদ্যালয় গৌরবের সাথে ৭ম বর্ষে পদার্পন করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি সদস্য, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী অত্যন্ত আনন্দঘন পরিবেশে দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠান উদযাপন করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান বজায় রাখতে শিক্ষকরা সর্বদা সচেষ্ট। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করা গ্র্যাজুয়েটরা দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে দক্ষতা ও সুনামের সাথে কাজ করছে। অচিরেই বিশ্ববিদ্যালয় তার নিজস্ব স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তরিত হবে।

ট্রেজারার অনিল চন্দ্র সাহা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়টি কিশোরগঞ্জের শিক্ষাক্ষেত্রে অভূতপূর্ব পরিবর্তন এনেছে। ঈশা খাঁ বিশ্ববিদ্যালয়টি ভবিষ্যতেও শিক্ষা বিস্তারে এই দেশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আমি মনে করি।

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের ডীন প্রফেসর মো. রফিকুল আলম, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন প্রফেসর মো. আরজ আলী, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার চৌধুরী খায়রুল হাসান, প্রক্টর রিয়াদ আহমেদ তুষার, লাইব্রেরী সায়েন্স বিভাগের চেয়ারম্যন প্রফেসর  নূরুল আমিন, আইন বিভাগের চেয়ারম্যন মহসিন খান, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী, ইংরেজী বিভাগের চেয়ারম্যান বদরুল হুদা সোহেল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি সদস্য, সকল বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ কিশোরগঞ্জে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রথম দিন বুধবার (১৩ মার্চ) সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আতশবাজি ও ফানুস উড়ানো হয়। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর