কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ব্রহ্মপুত্র নদের উপর বাশেঁর সাঁকো, বুকে ফসলের মাঠ ধান চাষ


 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, স্টাফ রিপোর্টার, কুলিয়ারচর | ২২ মার্চ ২০১৯, শুক্রবার, ১১:৩৩ | কুলিয়ারচর 


কিশোরগঞ্জ-নরসিংদী এ দুই জেলার কুলিয়ারচর ও বেলাব উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত দেশের একসময়ের খরস্রোতা একমাত্র নদ ব্রহ্মপুত্রের উপর নির্মিত হয়েছে বাঁশের সাঁকো, নিচে নদের বুকে ফসলের মাঠ, কৃষক করছেন ধান চাষ। পলি মাটি দ্বারা নদের তলদেশ ভরাট হয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের নাব্যতা সংকট দেখা দেয়ায় এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, কুলিয়ারচর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের আলিনগর ও বেলাব উপজেলার বিন্নাবাইদ ইউনিয়নের আওয়ালীকান্দা গ্রামের বাসিন্দারা নদী পারাপারের জন্য নিজেদের উদ্যোগে দুই উপজেলার দুই ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদের উপর বিশাল সাঁকো তৈরি করেছেন। আওয়ালীকান্দা বড় বাড়ির ঘাট নামে পরিচিত খেয়া ঘাটে প্রায় সাড়ে ৫০০ ফিট লম্বা এই বিশাল বাঁশের সাঁকো দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে পারাপার হচ্ছেন তারা।

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার পশ্চিমে সালুয়া ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী ডুমরাকান্দা বাজার। বাজারটির পশ্চিম দক্ষিণ পাশেই নরসিংদীর বেলাব উপজেলার বিন্নাবাইদ ইউনিয়নের আওয়ালীকান্দা গ্রাম। গ্রামটির পূর্ব পাশ দিয়ে বয়ে গেছে কালের গর্ভে হারিয়ে যাওয়া সেই পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদ।

অন্যদিকে কুলিয়ারচর উপজেলার সালুয়া ইউনিয়নে ডুমরাকান্দা বাজার এবং বাজার থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দক্ষিণে ফরিদপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত আলীনগর গ্রামের পশ্চিম পাশে দিয়ে প্রবাহিত ব্রহ্মপুত্র নদ। মিলিত হয়েছে ভৈরবে মেঘনা নদীর সাথে।

ব্রহ্মপুত্র নদটি পার হলেই বেলাব উপজেলার আওয়ালীকান্দা গ্রাম। এই গ্রামের নিকটবর্তী কোন হাইস্কুল না থাকায় ওই গ্রামের  ছেলে-মেয়েরা নদী পার হয়ে আওয়ালীকান্দা গ্রাম থেকে কুলিয়ারচর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়ন আব্দুল হামিদ ভূঞা উচ্চ বিদ্যালয়ের এসে লেখাপড়া করে। তারা এই বিশাল বাঁশের সাঁকোটি পার হয়ে প্রতিদিন আওয়ালীকান্দা গ্রাম থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার দূরে বিদ্যালয়ে আসা যাওয় করে।

সাঁকোর উপরে দাঁড়িয়ে কথা হয় ৮ম শ্রেণির ছাত্রী শিপা আক্তার, তান্জিলা আক্তার, ৭ম শ্রেণির ছাত্র মারুফ, ছাত্রী মিতালী, জান্নাত, ১০ম শ্রেণির ছাত্রী কণা আক্তার, ৯ম শ্রেণির ছাত্রী সবিতা আক্তার, ১০ম শ্রেণির ছাত্র মো. শফিকুল ইসলাম সাইমন, ৯ম শ্রেণির ছাত্র মোজাহিদুল ইসলাম, ৮ম শ্রেণির ছাত্র মো. রায়হান মিয়ার সাথে।

তারা জানায়, বাঁশের সাঁকোটি যখন ছিল না তখন আওয়ালীকান্দা গ্রামের অর্ধশত শিক্ষার্থীকে অনেক কষ্ট করে বিদ্যালয়ে যেতে হয়েছে। বর্ষা মৌসুমে খেয়া নৌকা না থাকলে কিংবা কোনো কারণে নৌকা দেরিতে আসলে কশের সঠিক সময়ে বিদ্যালয়ে গিয়ে পৌঁছা যায় না।

তাছাড়া নদের নাব্যতা সংকটের কারণে বর্ষা মৌসুম ছাড়া খেয়া পারাপার সম্ভব হয় না। নদের অবস্থা এমন দাঁড়ায় কোথাও গর্ত পানি আবার কোথাও ফসলের জমি। ফলে ব্রিজ ছাড়া নদী পার হওয়ার আর কোন উপায় থাকে না। এই অবস্থায় বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া এবং এপার-ওপারে কৃষকদের উৎপাদিত কৃষিপণ্যও সময়মতো ঘরে তোলা খুবই কষ্টকর।

ব্রহ্মপুত্র নদের দুই পাড়ের মানুষের এই কষ্ট লাঘবে আওয়ালীকান্দা গ্রামের মানুষ মিলিত হয়ে ঠিক করেন, তারা নিজ উদ্যোগেই তাদের কষ্ট দূর করতে কাজ করবেন। অবশেষে গ্রামের কিছু যুবক একত্রিত হয়ে আকিব আল হাসানের নেতৃত্বে আওয়ালীকান্দা গ্রামের "আওয়ালীকান্দা উদয়ন সংঘ" নামের একটি সামাজিক সংগঠন গড়ে তুলেন।

আর এ সংগঠনের মাধ্যমে গ্রামের উঠতি বয়সী যুবকরা আওয়ালীকান্দা ও আলীনগর গ্রামের বাড়ি বাড়ি গিয়ে একটি করে বাঁশ ও যার যা দেওয়ার সাধ্য আছে, সেই মতো সাহায্য তুলে নিজেদের উদ্যোগে শুরু করেন এই বাঁশের সাঁকোটি তৈরির কাজ। দীর্ঘ দু’মাস কাজ করার প্রায় সাড়ে ৫০০ ফিট লম্বা এই বাঁশের সাঁকোটির নির্মাণ কাজ শেষ করেন।

সংগঠনটি বাঁশের এই সাঁকোটি ছাড়াও সাঁকো থেকে আওয়ালীকান্দা গ্রাম পর্যন্ত পৌছাতে ৫/৬ ফিট উচু ও ১২ ফিট চৌড়া আনুমানিক ১ হাজার ফিট লম্বা একটি মাটির রাস্তাও নির্মাণ করেন।

সাঁকো ও রাস্তাটির নির্মাণ ব্যায় সম্পর্কে জানাতে চাইলে স্থানীয়রা জানান, সাঁকোটি নির্মাণ কাজে ১ হাজারেরও বেশি বাঁশ লেগেছে। আর আওলালীকান্দা গ্রামবাসীর স্বেচ্ছাশ্রম ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক খরচ বাদ দিয়ে লক্ষাধিক টাকা খরচ হয়েছে।

অন্যদিকে সাঁকো থেকে মাটি ভরাট করে আওয়ালীকান্দা গ্রাম পর্যন্ত যে রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়েছে, তার মাটির মুল্য ও স্বেচ্ছাশ্রম বাদ দিয়ে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। ব্যয়কৃত টাকা আওয়ালীকান্দা উদয়ন সংঘ নামের এই সংগঠন এবং কিছু টাকা এই গ্রামের প্রবাসী, চাকরিজীবি ও সাধারণ মানুষেরা মিলে অনুদান দিয়েছেন।

আর এ কাজে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেছেন আওয়ালীকান্দা উদয়ন সংঘ-এর সভাপতি আকিব আল হাসান, সহ-সভাপতি মো. মিজান নিরবসহ সংগঠনের অন্যান্য সদস্য, এলাকার যুবসমাজ, সাবেক মেম্বার শাজাহান শিরাজী, ৬১ নং আওয়ালীকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. গোলাম মোস্তফা ও বিন্নাবাইদ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ফরহাদ রেজা প্রমুখ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর