কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের ১৩ উপজেলায় রোববারের ভোটে লড়ছেন ১৭৫ প্রার্থী


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ২৩ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৮:০৩ | নির্বাচনী হালফিল 


পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় ধাপে রোববার (২৪ মার্চ) কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩টি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ১৩টি উপজেলার মধ্যে মিঠামইন উপজেলায় একক প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদের ছোট বোন সদর ইউপি’র দু’বারের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আছিয়া আলম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে ১২টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে এবং ১৩টি উপজেলাতেই ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করা হবে।

এই নির্বাচনে মোট ১৭৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে মোট ৪৩জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ৭৬জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ৫৬ জন ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩টি উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ২১ লাখ ২৬ হাজার ৮৩০ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ লাখ ৭৩ হাজার ২৪১ জন এবং মহিলা ভোটার ১০ লাখ ৫৩ হাজার ৬০৭ জন। মোট ৮৩৮টি কেন্দ্রের ৫ হাজার ৩৫৭টি ভোটকক্ষে নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করা হবে। শনিবার (২৩ মার্চ) সন্ধ্যার মধ্যেই কেন্দ্রে কেন্দ্রে নির্বাচনী সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাকাউদ্দিন আহাম্মদ রাজন (নৌকা), এনপিপি প্রার্থী মো. সুমন মিয়া (আম), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী সদর উপজেলার বর্তমান ভাইসচেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান (কাপ-পিরিচ) এবং দুই স্বতন্ত্র প্রার্থী সদর উপজেলার বর্তমান মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান কামরুন নাহার লুনা (দোয়াত-কলম) ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের তথ্য ও গবেষণা সেলের সাবেক কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন আহমেদ সেলু (আনারস)।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাত প্রার্থী হলেন, আব্দুল জলিল (বৈদ্যুতিক বাল্ব), পল্লব কর (টিয়া পাখি), মাহাবুবুর রশীদ (মাইক), মো. আব্দুর রেজ্জাক (চশমা), মো. আব্দুস সাত্তার (তালা), শাহজাহান কবীর (টিউবওয়েল) এবং সৈয়দ তৌহিদ (উড়োজাহাজ)।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থী হলেন, তাছলিমা সুইটি (ফুটবল), তাহমিনা আক্তার নাজমা (কলস) ও মোছা. মাছুমা আক্তার (হাঁস)।

হোসেনপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. শাহ জাহান পারভেজ (নৌকা), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রয়াত আয়ুব আলীর ছেলে মোহাম্মদ সোহেল (আনারস) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মো. আব্দুল কাদির স্বপন (দোয়াত-কলম)।

হোসেনপুর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুই প্রার্থী হলেন, মো. মোবারিছ মিয়া (তালা) ও মো. আশরাফ হোসেন (চশমা)।

হোসেনপুর উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থী হলেন, খাইরুন্নাহার হেপী (ফুটবল), রৌশনারা (কলস), মোছা. সুফিয়া কানন (পদ্মফুল) এবং সেলিনা আক্তার (হাঁস)।

তাড়াইল উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৯জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আজিজুল হক ভূঞা মোতাহার (নৌকা), জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী তাড়াইল উপজেলা পরিষদের প্রয়াত চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন ভূঁইয়া কাঞ্চন এর ছেলে মো. জহিরুল ইসলাম ভূইয়া শাহীন (লাঙ্গল), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির ভূঞা (মোটর সাইকেল) এবং দুই স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইসরাত উদ্দিন আহাম্মদ বাবুল (ঘোড়া) ও আলহাজ্ব একেএস জামান সম্রাট (আনারস)।

তাড়াইল উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ প্রার্থী হলেন, মো. সামরুজ্জামান (মাইক), মো. আবুল কাশেম খান (চশমা), মো. মাহমুদুল হাসান রনি (উড়োজাহাজ), হারুন অর রশিদ (টিয়া পাখি), খাইরুল ইসলাম খান (বৈদ্যুতিক বাল্ব), আরাফাত হোসেন মুরাদ (তালা) এবং নাজমুল হক আকন্দ (টিউবওয়েল)।

তাড়াইল উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৯ প্রার্থী হলেন, সৈয়দা রৌশনারা (বৈদ্যুতিক পাখা), রুকিয়া বেগম (হাঁস), কামরুন্নাহার কবিতা (পদ্মফুল), মোছা. রুবি (প্রজাপতি), আইনতুন্নেছা (কলস), বেগম আক্তার (তীর-ধনুক), নার্গিস সুলতানা (সেলাই মেশিন), মোছা. সুমিয়া আক্তার রুভা (ক্যামেরা) এবং মোছা. হেপি আক্তার (ফুটবল)।

করিমগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ আহ্বায়ক আলহাজ্ব নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ (নৌকা), এনপিপি প্রার্থী মো. আনোয়ারুল কিবরিয়া (আম), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী বর্তমান উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খাঁন দিদার (দোয়াত-কলম) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মো. রফিকুর রহমান (আনারস)।

করিমগঞ্জ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছয় প্রার্থী হলেন, গোলাম মুহাম্মদ সুজন (টিয়া পাখি), বাহা উদ্দিন (উড়োজাহাজ), মো. রফিকুল ইসলাম রাসেল (টিউবওয়েল), মো. হান্নান মোল্লা (মাইক), মো. আবু আনিস ফকির (চশমা) এবং মো. জামাল উদ্দিন ফকির (তালা)।

করিমগঞ্জ উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছয় প্রার্থী হলেন, মোছা. দিলোয়ারা বেগম (সেলাই মেশিন), কারিমা বেগম (পদ্মফুল), মোছা. সেলিনা খানম (প্রজাপতি), রুপন রাণী সরকার (ফুটবল), আছমা আক্তার (হাঁস) এবং মোছা. রিনা আক্তার (কলস)।

কটিয়াদী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৬ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের সহ তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক তানিয়া সুলতানা হ্যাপী (নৌকা), জাকের পার্টির প্রার্থী শহীদুজ্জামান স্বপন (গোলাপ ফুল), আওয়ামী লীগের তিন বিদ্রোহী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান লায়ন মো. আলী আকবর (দোয়াত-কলম), আওয়ামী লীগ নেতা মো. আলতাফ উদ্দীন (মোটর সাইকেল) ও ডা. মোহাম্মদ মুশতাকুর রহমান (ঘোড়া) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আনোয়ার আনার (আনারস)।

কটিয়াদী উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ প্রার্থী হলেন, রেজাউল করিম শিকদার (তালা), মো. বকুল মিঞা (টিউবওয়েল), সদরুল হক (বৈদ্যুতিক বাল্ব), মজিবুর রহমান (টিয়া পাখি), মো. কামরুজ্জামান (মাইক) এবং মো. আবুল কালাম (উড়োজাহাজ)।

কটিয়াদী উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ প্রার্থী হলেন, সাথী বেগম (কলস), রোকসানা (ফুটবল) এবং মোসা. নওরীন সুলতানা (হাঁস)।

ভৈরব উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো. সায়দুল্লাহ মিয়া (নৌকা) এবং আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল মনসুর (মোটর সাইকেল) ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অলিউল ইসলাম (আনারস)।

ভৈরব উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থী হলেন, মো. ইসহাক মিয়া (উড়োজাহাজ), আল মামুন (টিউবওয়েল), মো. মোশারফ হোসেন (তালা) এবং মো. শহীদুল্লাহ কায়সার (চশমা)।

ভৈরব উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থী হলেন, মনোয়ারা বেগম (হাঁস), আসমা আহমেদ (পদ্মফুল) এবং মোছা. আছমা খাতুন (কলস)।

নিকলী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কারার সাইফুল ইসলাম (নৌকা), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. ইসহাক ভূঞার ছেলে আহসান মো. রুহুল কুদ্দুস ভূঞা (মোটর সাইকেল) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসিরুজ্জামান আসলাম (আনারস)।

নিকলী উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ প্রার্থী হলেন, এম. হাবিবুর রহমান (টিয়া পাখি), মিছবাহ উদ্দিন (চশমা), মো. আমিরুল আলম মামুন (উড়োজাহাজ), মো. আশরাফ উদ্দিন আসাদ (মাইক), মো. তাহের আলী (টিউবওয়েল), মো. নাজিউর রহমান (বই), মো. শামছুল আলম (বৈদ্যুতিক বাল্ব) এবং রিয়াজুল হক আয়াজ (তালা)।

নিকলী উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ প্রার্থী হলেন, জেসমিন আরা বিউটি (ফুলের টব), মিসেস জাহানারা বেগম (প্রজাপতি), রখা আক্তার (বৈদ্যুতিক পাখা), রেজিয়া আক্তার (কলস), রুবিনা আক্তার (হাঁস) এবং সুমাইয়া হক শিমু (ফুটবল)।

ইটনা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ২ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান (নৌকা) এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. খলিলুর রহমান (আনারস)।

ইটনা উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থী হলেন, মো. ইদ্রিছ আলী (তালা), মো. ফজলুর রহমান (টিউবওয়েল), মো. সাখাওয়াত হোসেন (চশমা) এবং রেজাউর রহমান ভূঞা (টিয়া পাখি)।

ইটনা উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুই প্রার্থী হলেন, নাছরিন সুলতানা মুক্তি (হাঁস) এবং মোছা. মমতাজ বেগম (কলস)।

অষ্টগ্রাম উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেমস (নৌকা) এবং আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী সাবেক ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ কমল মিয়া (ঘোড়া) ও বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ নেতা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান ভূঞা (আনারস)।

অষ্টগ্রাম উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচ প্রার্থী হলেন, আল আমিন (চশমা), মানিক কুমার দেব (তালা), মো. আল এমরান (টিয়া পাখি), মো. তাহের উদ্দিন পাঠান (মাইক) এবং মো. সুরুজ ঠাকুর (টিউবওয়েল)।

অষ্টগ্রাম উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থী হলেন, কানিজ ফাতেমা (কলস), মোছা. লতিফা হক রত্না (ফুটবল) এবং মোছা. শেলী আক্তার (হাঁস)।

বাজিতপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. ছারওয়ার আলম (নৌকা), জাতীয় পার্টির প্রার্থী উপজেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ আমিনুল ইসলাম (লাঙ্গল) এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মআহ্বায়ক মো. মোবারক হোসেন মাস্টার (আনারস)।

বাজিতপুর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাত প্রার্থী হলেন, আবুল ফজল রাছেল (টিয়া পাখি), তানজিত হায়দার (বৈদ্যুতিক বাল্ব), মো. জিল্লুর রহমান (তালা), মো. মাসুদ মিয়া (টিউবওয়েল), মো. শাহজাহান কবীর (উড়োজাহাজ), মো. সুমন মিয়া (চশমা) এবং রাজু মিয়া (মাইক)।

বাজিতপুর উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থী হলেন, আরিফা হোসেন (কলস), গোলনাহার (প্রজাপতি), মোছা. মনোয়ারা খাতুন (হাঁস) এবং মোছা. রুখেয়া বেগম (ফুটবল)।

পাকুন্দিয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ২ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্মআহ্বায়ক মো. রফিকুল ইসলাম রেনু (নৌকা) এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. জাহাঙ্গীর আলম শওকত (লাঙ্গল)।

পাকুন্দিয়া উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে আট প্রার্থী হলেন, মোহাম্মদ আসাদ মিয়া (টিউবওয়েল), আরিফুল হক (বৈদ্যুতিক বাল্ব), মো. দিদারুল আলম (তালা), মো. জুয়েল (মাইক), মো. খলিলুর রহমান (চশমা), মো. নেকবর আলী (টিয়া পাখি), মো. শামছুল হক মিটু (পালকি) এবং মো. তারেক রহমান (উড়োজাহাজ)।

পাকুন্দিয়া উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছয় প্রার্থী হলেন, শামসুন্নাহার বেগম (কলস), মোছা. ফরিদা ইয়াছমিন (হাঁস), মোছা. হাবিবা খাতুন (পদ্মফুল), মোসা. খালেদা বেগম (ফুটবল), সাহেরা আক্তার খাতুন (সেলাই মেশিন) এবং মোছা. জাহানারা খাতুন (প্রজাপতি)।

কুলিয়ারচর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ইয়াছির মিয়া (নৌকা), জাকের পার্টির প্রার্থী মো. সাইদুর রহমান (গোলাপ ফুল), ইসলামী ঐক্যজোট প্রার্থী আবুল কাসেম ফজলুল হক (মিনার) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট মো. আব্দুছ ছাত্তার খোকন (আনারস)।

কুলিয়ারচর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচ প্রার্থী হলেন, মনিরুজ্জামান (টিউবওয়েল), মো. আবদুল আওয়াল (উড়োজাহাজ), মো. গিয়াস উদ্দিন (মাইক), মো. মহসিন মিয়া (তালা) এবং সৈয়দ নুরে আলম (চশমা)।

কুলিয়ারচর উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থী হলেন, বিলকিছ আক্তার (কলস), মোছা. লিপি আক্তার (ফুটবল), আকলিমা বেগম (প্রজাপতি) এবং সাঈদা খানম মুক্তা (হাঁস)।

মিঠামইন উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মিঠামইন উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাত প্রার্থী হলেন, মো. ইব্রাহীম চৌধুরী (চশমা), মো. ইব্রাহিম মিয়া (মাইক), মো. ইসলাম উদ্দিন (উড়োজাহাজ), মো. মজিবুর রহমান (টিয়া পাখি), মো. মতিউর রহমান (টিউবওয়েল), মো. রাসেল ভূঞা (তালা) এবং শেখ সাফিউর রহমান সাফির (বৈদ্যুতিক বাল্ব)।

মিঠামইন উপজেলায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থী হলেন ফেরদৌসী হক রীপা (হাঁস), মোছা. জলি চৌধুরী (ফুটবল) এবং মিনা খাতুন ময়না (কলস)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর