কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

জমির অভাবে কিশোরগঞ্জে হচ্ছে না হাইটেক পার্ক!



 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার, ১২:০৫ | অর্থ-বাণিজ্য 


কিশোরগঞ্জের ১৩টি উপজেলার কোথাও উপযুক্ত জমি না পাওয়ায় আইটি ভিলেজ/সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক নির্মাণ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এরই মধ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানানোও হয়েছে। এ ব্যাপারে এখন সরকারের হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ বিকল্প ব্যবস্থা নেবে কিনা সেটির ওপরই নির্ভর করছে এই জেলায় আইটি ভিলেজ নির্মাণ।

দেশেই বিশ্বমানের সফটওয়্যার তৈরি ও তরুণ প্রজন্মকে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে আয়ের সুযোগ করে দিতে হাইটেক পার্ক অর্থাৎ প্রযুক্তিপণ্যের শিল্পাঞ্চল গড়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রযুক্তিনির্ভর এসব হাইটেক পার্ক প্রযুক্তিভিত্তিক শিল্পায়ন, তরুণদের কর্মসংস্থান এবং হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার শিল্পের উত্তরণ ও বিকাশে দুয়ার খুলে দেবে; এটি একদিন জাতীয় রাজস্ব আয়ের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হবে- এমনটি আশা করছে সরকার। এ লক্ষ্যে ২০২০ সালের মধ্যে ১২টি জেলায় হাইটেক পার্ক নির্মাণ এবং পর্যায়ক্রমে সব জেলায় আইটি পার্ক গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের তৎলীন ব্যবস্থাপনা পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) হোসনে আরা বেগম কিশোরগঞ্জ জেলায় একটি আইটি ভিলেজ/সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক স্থাপনের জন্য ১৫ থেকে ২০ একর জমি চেয়ে ২০১৩ সালের ২০ মে জেলা প্রশাসককে চিঠি দেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে কিশোরগঞ্জের তৎকালীন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কাজী আবেদ হোসেন ২০১৫ সালের ৭ ডিসেম্বর হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে জেলার ১৩টি উপজেলার কোথাও আইটি পার্ক স্থাপনের উপযোগী জমি নেই।

পরে হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (রুটিন দায়িত্ব) সৈয়দ এমদাদুল হক ২০১৭ সালের ৬ এপ্রিল কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসনকে এই জেলায় আইটি পার্ক স্থাপনের জোরালো তাগিদ দেন। তখন জেলার দুর্গম ইটনা উপজেলার কাতিয়ারকোনা মৌজায় ২০ একর খাস জমি (নামা শ্রেণী) এবং কটিয়াদী উপজেলার ভরারদিয়া মৌজার বিভিন্ন দাগে থাকা ‘কান্দা শ্রেণীর’ ৯ দশমিক ৮৭ একর খাস জমির কাগজপত্র সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়।

তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সামগ্রিক দিক বিবেচনা করে আইটি ভিলেজ স্থাপনের জন্য জমি বা স্থানের যেসব বৈশিষ্ট্য দরকার হয়, সেসব বিবেচনায় উল্লেখিত জমি উপযুক্ত কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। অপরদিকে এখন পর্যন্ত জেলা সদর থেকে জমি সংগ্রহ করতে না পারায় কিশোরগঞ্জ সদরে আইটি ভিলেজ স্থাপনের সম্ভাবনাও শূন্য।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দুলাল চন্দ্র সূত্রধরের কাছে জানতে চাইলে এ ব্যাপারে তার কিছু জানা নেই বলে জানান।

তবে জেলা প্রশাসক মো. আজিমুদ্দিন বিশ্বাস এ ব্যাপারে বলেন, এখানে একটি আইটি ভিলেজ হোক এটা আমরা অবশ্যই চাই। আমরা খুঁজেও দেখেছি। তবে জেলা সদর কিংবা তৎসলগ্ন কোথাও একত্রে ১৫-২০ একর খাস জমি নেই। আর সাধারণ মানুষ তো বিনামূল্যে কিংবা নামমাত্র মূল্যে জমি দিবে না। তাই এখন হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষকেই নিয়ম অনুযায়ী বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। প্রয়োজনে আমরা সহযোগিতা করব।

তথ্যসূত্র: দৈনিক বণিক বার্তা (জমির অভাবে কিশোরগঞ্জে অনিশ্চিত হাইটেক পার্ক)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ