kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

সৌদির সড়কে ঝরে গেলো জসিমের স্বপ্ন



 বিশেষ প্রতিনিধি | ৯ জানুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার, ৫:৫১ | প্রবাস 


পৈত্রিক তিন কাঠা জমি বন্ধক রেখে ও ধারদেনা করে প্রায় নয় লাখ টাকা খরচ করে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সৌদি আরবে পাড়ি জমান জসিম উদ্দিন (৪৪)। সেখানে মাত্র ৬শ’ রিয়াল বেতনে জসিম উদ্দিন চাকুরি করতেন। গত ২২ মাসে তিন লাখের মতো টাকা বাড়িতে পাঠিয়েছেন। আরো অন্তত ৬ লাখ টাকা ঋণ এখনো পরিশোধের বাকি রয়ে গেছে।

শুক্রবার (৫ই জানুয়ারি) রাতে স্ত্রী মিনার আক্তারের সাথে দীর্ঘ প্রায় দুই ঘন্টার ফোনালাপে জসিম উদ্দিনের কথাতেও ছিল সেই ঋণ পরিশোধ করার সুতীব্র আকাঙ্ক্ষার কথা। স্বা-স্ত্রীর এই কথোপকথনে ছিল একমাত্র মেয়ে ও যমজ দুই ছেলেকে পড়ালেখা শিখিয়ে মানুষ করার নানা স্বপ্নের কথাও।

কিন্তু সেই ফোনালাপই হয়ে ওঠে জসিম-মিনার দম্পত্তির শেষ আলাপ। রাত পোহাতেই মরুময় সৌদি আরবের সড়কে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনা কেড়ে নেয় জসিম উদ্দিনের তাজা প্রাণ। এভাবে দূর পরবাসে তাদের স্বপ্নের এমন অপমৃত্যু ঘটবে, সেটা কল্পনাতেই আসেনি মিনার আক্তারের!

সৌদি আরবের জিজান প্রদেশে শনিবার (৬ই জানুয়ারি) ভোরে মর্মান্তিক এক সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় জসিম উদ্দিনের। ওই সড়ক দুর্ঘটনায় মোট ১০ বাংলাদেশীর মৃত্যু হয় এবং আরো অন্তত ১০জন গুরুতর আহত হয়।

নিহতদের এই দীর্ঘ তালিকায় থাকা কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার প্রত্যন্ত চর হাজীপুর গ্রামের জসিম উদ্দিন (৪৪) এর বাড়িতে এখন শুধুই কান্না আর শোকাহত মানুষের মিছিল। নিহত সৌদি প্রবাসী জসিম উদ্দিন চর হাজীপুর গ্রামের মৃত আবুল কাসেমের ছেলে।

স্বজনেরা জানান, চর হাজীপুর গ্রামের মৃত আবুল কাসেমের পাঁচ ছেলে ও এক মেয়ে। তাদের মধ্যে তৃতীয় জসিম উদ্দিন। প্রায় ২০ বছর আগে প্রান্তিক চাষী বাবা আবুল কাসেম মারা যান। পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে বড় ভাই ঢাকায় কাজ করেন। জসিম উদ্দিনসহ বাকি চার ভাই এলাকাতেই চাষাবাদ করে কোন রকমে নিজেদের সংসার টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন। এর মধ্যে জসিম উদ্দিনের পরিবারে মা ও স্ত্রী ছাড়াও তার তিন সন্তান রয়েছে। কিন্তু তার স্বল্প আয়ে বৃহৎ এই পরিবারের খরচ সামলানো দিন দিনই দুঃসহ হয়ে ওঠে। এ পরিস্থিতিতে ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় শেষ সম্বল পৈত্রিক তিন কাঠা জমি বন্ধক রেখে ও ধারদেনা করে প্রায় নয় লাখ টাকা খরচ করে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সৌদি আরবে পাড়ি জমান জসিম উদ্দিন।

কিন্তু বিধিবাম! শনিবার (৬ই জানুয়ারি) ভোরে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে নিজ কোম্পানির গাড়ি দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় জসিম উদ্দিনের। শনিবার (৬ই জানুয়ারি) দুপুরে সৌদি আরব থেকে প্রবাসী শ্যালক মাজহারুল মিয়া মোবাইল ফোনে জসিমের পরিবারকে এই দুর্ঘটনার খবর জানান। এরপর থেকেই পরিবারটিতে মাতম আর আহাজারি চলছে।

মঙ্গলবার বিকালে জসিম উদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে জানা যায়, নিহত জসিম উদ্দিনের পরিবারে মা, স্ত্রী ও তিন সন্তান রয়েছে। তিন সন্তানের মধ্যে সবার বড় মেয়ে তুলনা খাতুন চর হাজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী এবং যমজ দুই পুত্র সন্তানের মধ্যে আরিফুল ইসলাম রনি চর হাজীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ও শরীফুল ইসলাম জনি একই বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তির এমন মর্মান্তিক মৃত্যুতে শোকে মুহ্যমান গোটা পরিবার। স্ত্রী মিনার আক্তার বার বার মুর্চ্ছা যাচ্ছেন। বৃদ্ধা মা রাবেয়া খাতুন (৬০) বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন। একমাত্র বোন মজিদা আক্তারের আর্তনাদ আর আহাজারি। ভাইদের চোখেও কান্না।

নিহত জসিম উদ্দিনের ছোট ভাই আবুবক্কর সিদ্দিক জানান, সুদের উপর টাকা ঋণ করে তার ভাই জসিম উদ্দিন সৌদি আরবে গিয়েছিলেন। সেখানে মাত্র ৬শ’ রিয়াল বেতনে জসিম উদ্দিন চাকুরি করতেন। গত ২২ মাসে তিন লাখের মতো টাকা বাড়িতে পাঠিয়েছেন। আরো অন্তত ৬ লাখ টাকা ঋণ রয়ে গেছে। এ পরিস্থিতিতে সড়ক দুর্ঘটনায় জসিম উদ্দিনের মৃত্যুতে পরিবারটি দিশেহারা হয়ে পড়েছে। কিভাবে তারা ভাই হারানোর শোক সামলাবেন, কিভাবে বিপুল অঙ্কের এই দেনা শোধ করবেন। আবার কিভাবে পরিবারটি চলবে। এসব নিয়ে এখন দুঃশ্চিন্তার আর শেষ নেই!

বৃদ্ধা মা রাবেয়া খাতুন বিলাপ করতে করতে বলেন, ‘শেষ বারের মতোন আমার ছ্যাড়াডারে একবার দেখতাম চাই। সরকাররে কইন আমার ছ্যাড়াডার লাশ যাতে আমারে আইন্যা দে।’




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ