kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

যেভাবে মোহাম্মদপুর থানা বদলে দিচ্ছেন কিশোরগঞ্জের কৃতি সন্তান জামাল উদ্দিন মীর


 মো. ইব্রাহিম হোসেন | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার, ৭:৪১ | বিশেষ সংবাদ 


দামি মোবাইল ফোন কখনো হারিয়ে যাচ্ছে আবার ছিনতাইকারী ও দুর্বৃত্তদের টার্গেটে পরিণত হচ্ছে। পকেট কেটে, ব্যাগ থেকে বা হাত থেকে টান দিয়ে মোবাইল ফোন নিয়ে যাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে অনেক সময় ভোগান্তির মুখে পড়তে হয়। যেমন চুরি, ছিনতাই বা হারিয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনটি কখনো কখনো অপরাধমূলক কাজে ব্যবহৃত হতে পারে। সেক্ষেত্রে মোবাইল এবং সিমের রেজিস্ট্রি মতে এর প্রকৃত মালিক গ্রেপ্তার বা হয়রানির শিকার হতে পারেন। তবে যে কারণেই ফোন হারাক না কেন, পুলিশের সহায়তায় একজন নাগরিক তার প্রিয় মোবাইল ফোনটি ফিরে পেতে পারেন। এক্ষেত্রে ভুক্তভোগীরা স্বাভাবিকভাবেই পুলিশের দারস্থ হন। জিডি করেন থানায়।

রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় প্রতিনিয়ত হারিয়ে বা ছিনতাই হয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনের জন্য এলাকার জনগণ জিডি করে থাকেন। হারিয়ে যাওয়া সেই মোবাইল ফোন প্রতিনিয়ত উদ্ধারের মাধ্যমে সাড়া ফেলে দিয়েছে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ।

আর যার নেতৃত্বে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ এই কাজের মাধ্যমে প্রশংসিত হচ্ছেন, তিনি হচ্ছেন মোহাম্মদপুর থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর। এই একজন পুলিশ অফিসারকে নিয়ে গর্বিত মোহাম্মদপুরবাসী।

তাকে নিয়ে মোহাম্মদপুরবাসীর পাশাপাশি গর্বিত কিশোরগঞ্জবাসীও। কেননা জামাল উদ্দিন মীর কিশোরগঞ্জ জেলার এক বীরমুক্তিযোদ্ধার কৃতি সন্তান। জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার আবদুল্লাহপুরের এই কৃতী সন্তানের হাত ধরে বদলে গেছে মোহাম্মদপুর থানার পরিবেশ। পুলিশ সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা তৈরি হয়েছে সাধারণ মানুষের মাঝে। পুলিশের কাজে সেখানকার কেউ এখন আর ভয় পায় না। বরং পুলিশকে বন্ধু ভাবছেন থানা এলাকার মানুষ।  ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ জামাল উদ্দিন মীর ২০১৭ সালে আইজিপি ব্যাজ (IGP's Exemplary Good Services Badge) ও পেয়েছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ওসি জামাল উদ্দিন মীরের সার্বিক তত্ত্বাবধান ও নির্দেশনায় নিয়মিত ভাবে হারিয়ে যাওয়া মোবাইল ফোন উদ্ধার করে চলেছেন একঝাঁক মেধাবী, চৌকস ও পরিশ্রমী সাহসী পুলিশ অফিসার। তাদের মধ্যে রয়েছেন, এএসআই শেখ রাসেল, এএসআই মো. রুহুল আমিন, এএসআই মো. তরিকুল ইসলাম ও এএসআই নাজমুল হোসেন।

মোহাম্মদপুর থানায় অফিসার ইনচার্জ হিসেবে জামাল উদ্দিন মীর যোগদানের পর থেকেই মোহাম্মদপুর পুরো পরিবেশই বদলে ফেলেছেন তিনি। পুলিশ সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা তৈরি করেছেন সাধারণ মানুষের মাঝে। পুলিশের কাজে সেখানকার কেউ এখন আর ভয় পায় না। বরং পুলিশকে বন্ধু ভাবতে শুরু করেছে এলাকার মানুষ।

পুলিশ সম্পর্কে মানুষের মনোভাব কীভাবে বদলে দিলেন মোহাম্মদপুর থানায় অফিসার ইনচার্জ জনাব জামাল উদ্দিন মীর? এ ব্যাপারে মোহাম্মদপুর এলাকার জনগণের নিকট খোঁজখবর নিয়ে জানা যায় যে, মাদক নিয়ন্ত্রণ, দ্রুত সেবা দেয়া, মানুষের বিপদে তাৎক্ষণিক ছুটে যাওয়া, সন্ত্রাস-জঙ্গি দমন, ইভটিজিং, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রতিনিয়ত পরিদর্শন করে শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে মতবিনিময় করা, মাদক বিষয়ে মানুষকে সচেতন করাসহ অপরাধ নিয়ন্ত্রণে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ ও সেগুলো কার্যকর করেন তিনি।

এছাড়াও প্রতি শুক্রবারে মোহাম্মদপুর বিভিন্ন মসজিদে জুমার নামাজের আগে মুসল্লিদের সঙ্গে জঙ্গী-সন্ত্রাস ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ প্রতিরোধ করার জন্য মতবিনিময় করে থাকেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ