কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফায়ার ফাইটার সোহেল রানার পরিবারের উপযুক্ত সদস্যকে চাকরি দেবে সরকার


 স্টাফ রিপোর্টার | ১০ এপ্রিল ২০১৯, বুধবার, ৬:৪৭ | বিশেষ সংবাদ 


রাজধানীর বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকান্ডে আটকে পড়াদের বাঁচাতে গিয়ে জীবন উৎসর্গকারী ফায়ারম্যান সোহেল রানার পরিবারে উপযুক্ত কেউ থাকলে তাকে চাকরি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) সকাল সোয়া ১১টায় ফায়ার সার্ভিসের ফুলবাড়িয়ার সদর দপ্তরে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে দেয়া বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এই আশ্বাস দেন।

ফায়ারম্যান সোহেল রানার পরিবারের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়ে এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, তাদের পরিবারে সোহেল রানা একজন উপার্জনক্ষম ব্যক্তি ছিল। আমাদের ফায়ার সার্ভিস তো বটেই, আমরাও সবাই লক্ষ্য রাখবো, তার পরিবারে যদি উপযুক্ত কেউ থাকে তার একটা চাকরির ব্যবস্থা করে দেব।

সোহেল রানার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, তিনি মানুষকে ভালোবাসতেন। দেশকে ভালোবাসতেন। তার প্রমাণ তিনি রেখে গেছেন।

সোহেল রানাকে সরকারের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেয়া হয়েছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সিএমএইচে ভর্তি থেকে আরম্ভ করে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তাৎক্ষণিকভাবে তাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে সিঙ্গাপুর পাঠানো হয়েছে। চিকিৎসায় কোনো রকমের ত্রুটি ছিল না।

জানাজার আনুষ্ঠানিকতায় স্বজনদের পক্ষ থেকে বক্তব্য দিতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন সোহেল রানার ছোট ভাই উজ্জল মিয়া। তিনি বলেন, আমার ভাই দেশের জন্য জীবন দিয়েছেন। সে দেশের জন্য জীবন দিয়েছে আমরা এতে গর্বিত। আমরা চাই সবাই যেন তার মতো দেশের জন্য কাজ করতে পারি। আমার ভাই ছিল পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তার মৃত্যুতে আমরা পথে বসে গেছি। আমরা চাই, প্রধানমন্ত্রী যাতে আমাদের পরিবারের প্রতি সুদৃষ্টি দেন।

উজ্জল আরো বলেন, আমার ভাই সব সময় দায়িত্ববান ছিলেন। এমন ছিল, যে প্রত্যেক সময় কোনো কাজের দায়িত্ব থাকলে সেটি মন দিয়ে করতেন। অন্যের কাজে সব সময় আগ্রহ দেখাতেন। তিনি মানুষকে ভালোবাসতেন। আপনারা আমার ভাইকে ক্ষমা করে দেবেন। আমার ভাই যেন জান্নাতবাসী হয় এজন্য দোয়া করবেন।

উল্লেখ্য, গত ২৮ মার্চ ২৩ তলার বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুন লাগার পর আটকে পড়াদের উদ্ধারে অংশ নিয়েছিলেন ফায়ারম্যান সোহেল রানা। উদ্ধারের এক পর্যায়ে ওভারলোড দেখায় লেডারটি। পরে ওজন কমাতে মই বেয়ে নামতে গিয়ে গুরুতর আহত হন সোহেল রানা।

তারপর থেকে সিএমএইচে আইসিইউতে ভেন্টিলেশনে রেখে তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল। অবস্থার আশানুরূপ উন্নতি না হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে গত শুক্রবার (৫ই এপ্রিল) সন্ধ্যায় এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে সোহেল রানাকে সিঙ্গাপুর পাঠানো হয়।

কিন্তু চিকিৎসকদের প্রাণান্ত চেষ্টা আর দেশবাসীর অফুরান প্রার্থনাকে ব্যর্থ করে দিয়ে তিনি চলে যান না ফেরার দেশে। সোমবার (৮ই এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় রাত ২টা ১৭ মিনিটে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান ফায়ার ফাইটার সোহেল রানা।

এ সংক্রান্ত সংবাদ: অগ্নিবীর সোহেল রানাকে চোখের জলে শেষ বিদায়




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর