কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কান্না থামেনি সোহেল রানার পরিবারে


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১১ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৬:৫৪ | এক্সক্লুসিভ 


বনানীর এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডে আটকে পড়াদের জীবন বাঁচাতে গিয়ে জীবন উৎসর্গ করা সোহেল রানা মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) সন্ধ্যায় সমাহিত হয়েছেন বাড়ির আঙিনার প্রিয় শিমুল ছায়ায়। চোখের জলে সোহেল রানাকে শেষ বিদায় জানালেও কান্না থামেনি পরিবারের। পাগলের মতো বাড়ির আঙিনায় ছেলের কবরের দিকে ছুটে যান মা হালিমা খাতুন। সোহেল রানার কবরের দিকে তাকিয়ে চোখের জলে ভাসেন বাবা, ভাই-বোন, স্বজনেরা। সোহেল রানার চিরবিদায়ে কাঁদছে হাওরের নিভৃত পল্লী কেরুয়ালা।

ইটনা উপজেলার চৌগাংগা ইউনিয়নের কেরুয়ালা গ্রামের প্রান্তিক কৃষক নূরুল ইসলামের পাঁচ ছেলে-মেয়ের মধ্যে সোহেল রানা ছিলেন দ্বিতীয়। সবার বড় বোন সেলিনা আক্তার। তারপর সোহেল রানা, রুবেল মিয়া (২৩), উজ্জ্বল মিয়া (২১) ও দেলোয়ার হোসেন (১৫)। বাবা নূরুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে প্যারালাইসিসের রোগি। তিনি পার্শ্ববর্তী বর্শিকূড়া হাওরে পত্তনি জমিতে জিরাত চাষ করেন।

২০১৫ সালে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সে ফায়ারম্যান হিসেবে যোগ দেয়ার পর থেকেই সোহেলই ছিলেন পরিবারের আশার আলো। সোহেলের চাকরির সামান্য বেতনেই চলতো অসুস্থ বাবার চিকিৎসা। টেনে-টুনে চলতো ছোট তিন ভাইয়ের লেখাপড়ার খরচ।

চৌগাংগা শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত সোহেল রানার সহপাঠী ছিলেন পার্শ্ববর্তী মাওরা গ্রামের সোহেল। নামের সাথে মিল থাকায় দু’জনের মধ্যেই ছিল গভীর ঘনিষ্ঠতা।

গাজীপুরের একটি সোয়েটার কোম্পানিতে কর্মরত সোহেল জানান, সোহেল রানা স্কুলজীবন থেকেই মানুষের সাথে সম্পর্ককে খুব মূল্য দিতেন। কখনো কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করতেন না। কারো মনে আঘাত দিয়েও কিছু বলতেন না। স্কুলে টিফিনের সময়ে বন্ধুদের সাথে নিজের টাকায় টিফিন কিনে ভাগাভাগি করে খেতেন। সহপাঠী কারো বিপদে পড়ার খবরে সাথে সাথে ছুটে যেতেন।

কেরুয়ালা গ্রামের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসে সোহেল রানাই ছিলেন প্রথম চাকুরে। ২০১৫ সালে সোহেল রানার ফায়ার সার্ভিসে যোগ দেয়ার পর সেবাধর্মী এই প্রতিষ্ঠানের প্রতি ঝোঁক তৈরি হয় অনেক তরুণের। ছুটিতে সোহেল রানা বাড়িতে এলে তাদের অনেকেই ছুটে যেতেন সোহেল রানার কাছে। শুনতেন ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের জীবনযাপনের ধরণ, কাজ আর কর্তব্যের বিবরণ। গ্রামের মধ্যে আদর্শ হয়ে ওঠা সোহেল রানাকে দেখে অনুপ্রাণিত হতেন তারা।

তাদেরই একজন মো. শরিফ মিয়া। ২০১৮ সালের ৩রা সেপ্টেম্বর তিনি ফায়ারম্যান হিসেবে যোগ দেন ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সে। বর্তমানে তিনি তাড়াইল ফায়ার স্টেশনে কর্মরত রয়েছেন।

মো. শরিফ মিয়া বলেন, ভাইকে (সোহেল রানা) দেখেই ফায়ার সার্ভিসের চাকরিতে আমি অনুপ্রাণিত হই। ফায়ার সার্ভিসের চাকরির জন্য দরখাস্ত থেকে শুরু করে নিয়োগ এবং যোগদান পর্যন্ত সব কাজেই ভাই আমাকে সর্বতোভাবে সহযোগিতা করেছেন। তার অকৃত্রিম সহযোগিতার জন্যই আমি ফায়ার সার্ভিসের চাকরিতে যোগ দিতে পেরেছি। কিন্তু আমাদের জীবনটাকে সাজিয়ে দিয়ে ভাই এমনভাবে চলে যাবেন, স্বপ্নেও ভাবতে পারিনি।

কেরুয়ালা গ্রামের বাড়িতে টিনের জরাজীর্ণ একটি চৌচালা ঘর সোহেল রানাদের। সেই ঘরটিকে দু’ভাগ করে এক অংশে চাচা রতন মিয়া ও তার পরিবার এবং অন্য অংশে সোহেল রানার বাবা নূরুল ইসলাম পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। রতন মিয়ার পাঁচ ছেলে সন্তানের মধ্যে সবার বড় মোশারফ হোসেন দশম শ্রেণির ছাত্র।

মোশারফ বলেন, ভাই (সোহেল রানা) আমাদের কখনো চাচাতো ভাই মনে করতেন না। আপন ভাইয়ের মতোই তিনি আমাদের আদর-স্নেহ দিতেন। আপন ভাইদের জন্য নতুন জামাকাপড় কিনলে আমাদের জন্যও কিনতেন। সাত জন্মেও মানুষ এমন চাচাতো ভাই পায় কিনা জানি না!

সোহেল রানার বাল্যবন্ধু শহীদুল ইসলাম জানান, সোহেল খুব বন্ধুবৎসল ছিল। তার মাঝে কোন হিংসা-বিদ্বেষ ছিল না। মানুষের সাথে মেশার অসাধারণ একটি গুণ ছিলো তার। যে কারণে সে সহজেই সবার সাথে মিশতে পারতো।

স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল মিয়া জানান, সোহেল রানার মতো ছেলে হয় না। সে গ্রামের সবার খুব প্রিয় ছিল। ফায়ার সার্ভিসে চাকরি হওয়ার পর ছুটিতে বাড়িতে এলে গ্রামের বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের খোঁজ নিতো। সবার সঙ্গে সুন্দর ব্যবহার করতো। এমন ছেলে লাখে একটা হয় না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

স্বজনেরা জানান, সোহেল রানা স্বপ্ন দেখেছিলেন নিজের মতো ছোট ভাই উজ্জ্বলও যেন ফায়ার সার্ভিসে চাকরি করে। এজন্যে সোহেল রানা নিজে উদ্যোগী হয়ে কয়েক বছর ধরে ছোট ভাই বিবিএ শিক্ষার্থী উজ্জ্বল মিয়াকে ফায়ার সার্ভিসে চাকুরির জন্য চেষ্টা করে আসছিলেন। কিন্তু তিন বারের চেষ্টায়ও চাকরিতে নিয়োগবঞ্চিত হন উজ্জ্বল মিয়া। এরপরও মা হালিমা খাতুনের আশা ছিল, সোহেল রানার চাকরি আয়ে জরাজীর্ণ ঘরটি ভেঙ্গে নতুন ঘর উঠাবেন, ছেলেকে বিয়ে করাবেন। কিন্তু সকল আশা ভরসা ভেঙ্গে চুরে শেষ হয়ে গেছে তার।

সোহেল রানা স্থানীয় কেরুয়ালা জামে মসজিদে কোরআন শিক্ষা, চৌগাংগা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে চৌগাংগা শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০১০ সালে এসএসসি পাশ করেন। এরপর অর্থাভাবে বন্ধ হয়ে যায় সোহেল রানার লেখাপড়া। এই সময়ে অটোরিকশা ও টমটম চালিয়ে পরিবারকে সহায়তা করেছেন। এভাবে দুই বছর পাঠবিরতির পর করিমগঞ্জ সরকারি কলেজ থেকে ২০১৪ সালে এইচএসসি পাশ করেন।

এইচএসসি পাশের পর ২০১৫ সালের মাঝামাঝিতে ফায়ারম্যান হিসেবে যোগ দেন ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সে। ট্রেনিং শেষে মুন্সীগঞ্জ নদীঘাট ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে প্রথম যোগদান করেন সোহেল রানা। সেখানে মাস চারেক দায়িত্ব পালন করার পর থেকে তিনি কুর্মিটোলা ফায়ার স্টেশনে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

সর্বশেষ গত ১৫ই মার্চ ছুটিতে বাড়ি এসেছিলেন সোহেল রানা। ছুটি শেষে ২৩শে মার্চ তিনি কর্মস্থলে যোগ দেন। কর্মস্থলে যোগ দেয়ার মাত্র ৫দিন পরেই ২৮শে মার্চ ঘটে বনানীর এফ আর টাওয়ারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের মর্মন্তুদ ঘটনা।

সোহেল রানার ছোট ভাই রুবেল মিয়া জানান, সোহেল রানা কখনো নিজের জন্য ভাবতেন না। সব সময়ে পরিবারের কথা ভেবেছেন। এই কারণে চাকরি হওয়ার পরও ভাইদের লেখাপড়া এবং সংসারের সচ্ছলতার কথা ভেবে বিয়ে পর্যন্ত করেননি। পরিবার থেকে বার বার তাগিদ দিয়েও তাকে বিয়ে করানো যায়নি।

রুবেল বলেন, ভাই-ই ছিলেন আমাদের পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তাঁর মৃত্যু আমাদের স্তব্ধ করে দিয়েছে। সামনে আমাদের জীবন অন্ধকার। এখন একমাত্র সরকারই পারে আমাদের এই অকুলপাথার থেকে বাঁচাতে।

সোহেল রানার বাবা নূরুল ইসলাম বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠে জানান, গত ২৩শে মার্চ ছুটি শেষে চাকরিতে যাওয়ার সময়ে সোহেল বলেছিলেন, ১৫দিনের ছুটি নিয়ে এসে বাবাকে ধান কাটায় সাহায্য করবেন। ধান তোলা শেষে বাবাকে চিকিৎসা করাবেন। কিন্তু বনানীর আগুন সোহেলের সব স্বপ্ন-আশা কেড়ে নিয়েছে।

নূরুল ইসলাম বলেন, তিনটা ছেলের লেহাপড়া করতে হয়। আমি সাধারণ কৃষিকাজ করি, এরপরও অচল আমি। সোহেলই ছিল আমার আশার আলো। সেই আলো নিইভ্যা গিয়া আমরার জীবনটা অহন আন্ধাইর অইয়া গেছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর