কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নুসরাত রাফি হত্যার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে সচেতন ছাত্র সমাজের প্রতিবাদ সমাবেশ


 মোস্তাফিজ মারুফ | ১১ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৮:৫৭ | কিশোরগঞ্জ সদর 


ফেনীর সোনাগাজীর মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মোমবাতি প্রজ্জ্বলন কর্মসূচী পালন করেছেন শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৭ টায় কিশোরগঞ্জ সচেতন ছাত্র সমাজের উদ্যোগে গুরুদয়াল সরকারি কলেজ প্রাঙ্গণের মুক্তমঞ্চে এই প্রতিবাদ সমাবেশ ও মোমবাতি প্রজ্জ্বলন কর্মসূচী পালন করা হয়।

কর্মসূচীর শুরুতে নিহত শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফি’র আত্মার শান্তি কামনায় এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

প্রতিবাদ সমাবেশে গুরুদয়াল সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক মো. আবুল বাশার সৌরভ বক্তব্য রাখেন।

কর্মসূচীতে প্রথম আলো কিশোরগঞ্জ বন্ধুসভার সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজ মারুফ, অর্পা রায়, আরিফ, সিরাজুম মুনীর, বিবেকানন্দ সহ অর্ধ শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

কর্মসূচী থেকে নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকাণ্ডের হোতা সোনাগাজী সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ দৌলার ফাঁসির দাবি জানানো হয়।

গত ২৭ মার্চ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ এস এম সিরাজ-উদ দৌলা আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাতকে নিজের কক্ষে ডেকে নিয়ে শ্লীলতাহানি করেন। ওই ঘটনায় থানায় মামলা করেন তার মা। ওই মামলায় অধ্যক্ষ কারাগারে রয়েছেন। মামলা তুলে নিতে অধ্যক্ষের লোকজন হুমকি দিয়ে আসছিল বারবার। আলিম পরীক্ষা চললেও আতঙ্কে স্বজনরা পরীক্ষা কেন্দ্রের কক্ষ পর্যন্ত নুসরাতকে পৌঁছে দিতেন।

গত ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথম পত্র পরীক্ষা দিতে সোনাগাজীর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যান নুসরাত। মামলা তুলে না নেওয়াতেই ক্ষিপ্ত হয়ে কৌশলে তাকে পাশের ভবনের ছাদে ডেকে নেওয়া হয়। সেখানে ৪/৫ জন বোরকা পরা ব্যক্তি নুসরাতের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে তার শরীরের ৮০ শতাংশ পুড়ে যায়। টানা পাঁচদিন প্রায় ১০৮ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে বুধবার (১০ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টার দিকে মৃত্যুর কাছে হার মানেন নুসরাত জাহান রাফি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর