কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এক বেলার অভিযানে ১৪টি চোরাই মোটর সাইকেল উদ্ধার, চোরচক্রের তিন সদস্য আটক


 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, স্টাফ রিপোর্টার, কুলিয়ারচর | ২১ এপ্রিল ২০১৯, রবিবার, ৩:৪৩ | অপরাধ 


মাত্র এক বেলার অভিযানে সাজন ঘোষ (৩০), ফজিলত হোসেন (৩৫) ও মো. রতন মিয়া (৩০) নামে আন্ত:জেলা মোটর সাইকেল চোর চক্রের তিন সদস্যকে আটক করেছে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ। সেই সাথে ১৪টি চোরাই মোটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার (২০ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত কুলিয়ারচর থানার ওসি আবদুল হাই তালুকদারের নেতৃত্বে এসআই আবুল কালাম আজাদ, এসআই মুহাম্মদ আজিজুল হক, এসআই আজাহারুল হক ও এএসআই শীতল চন্দ্র পাল সহ সঙ্গীয় ফোর্স এই অভিযান পরিচালনা করেন।

অভিযানের সময় কুলিয়ারচর উপজেলার রামদী ইউনিয়নের পিরপুর জামতলী মোড় এবং বাজিতপুর উপজেলার হুমায়ুনপুর লঞ্চঘাট এলাকা থেকে চোরচক্রের তিন সদস্যকে আটক এবং ১৪টি চোরাই মোটর সাইকেল উদ্ধার করা হয়।

আটক হওয়া মোটর সাইকেল চোরচক্রের তিন সদস্যের মধ্যে সাজন ঘোষ কটিয়াদী উপজেলার ভোগপাড়া ঘোষপাড়ার হরি ঘোষের ছেলে, ফজিলত হোসেন বাজিতপুর উপজেলার হুমায়ুনপুর হোসেনপুরের মৃত আরজ আলী মেম্বারের ছেলে এবং মো. রতন মিয়া বাজিতপুর উপজেলার হুমায়ুনপুর চৈতনপুরের রফিজ মিয়ার ছেলে।

এক বেলায় ১৪টি চোরাই মোটর সাইকেল উদ্ধারসহ মোটর সাইকেল চোরচক্রের তিন সদস্যকে আটকের ঘটনায় এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। তারা পুলিশের এই সফলতার প্রশংসা করে এই মোটর সাইকেল চোরচক্রের বাকি সদস্যদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রাখার জন্য অভিযান সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন। চোরচক্রের বাকি সদস্যদের আটক করা গেলে মোটর সাইকেল চুরি অনেকাংশে কমে যাবে বলেও মনে করছেন তারা।

পুলিশ জানায়, কুলিয়ারচর থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার (২০ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার রামদী ইউনিয়নের পিরপুর জামতলী মোড়ে অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় একটি চোরাই মোটর সাইকেলসহ চোরচক্রের সদস্য সাজন ঘোষকে আটক করে পুলিশ।

আটক হওয়া সাজন ঘোষের দেয়া তথ্যমতে বিকাল ৩টার দিকে কুলিয়ারচর থানার ওসি আবদুল হাই তালুকদারের নেতৃত্বে এসআই আবুল কালাম আজাদ, এসআই মুহাম্মদ আজিজুল হক, এসআই আজাহারুল হক ও এএসআই শীতল চন্দ্র পাল সহ সঙ্গীয় ফোর্স বাজিতপুর উপজেলার হুমায়ুনপুর লঞ্চঘাট এলাকায় অভিযান চালায়।

সেখানে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে চোর চক্রের সদস্যরা ১১টি চোরাই মোটর সাইকেল ফেলে রেখে পালিয়ে গেলে ১১টি চোরাই মোটর সাইকেল জব্দ করে পুলিশ। এছাড়া অভিযানে আরো দু’টি চোরাই মোটর সাইকেলসহ চোরচক্রের দুই সদস্য ফজিলত হোসেন ও মো. রতন মিয়াকে পাকড়াও করে পুলিশ।

কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল হাই তালুকদার বলেন, মোটর সাইকেল চোরচক্রের তিন সদস্যকে আটকের পর আমরা থেমে নেই। চোরচক্রের বাকি সদস্যদের ধরতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি তাতে আমরা সফল হব। এছাড়া মোটর সাইকেল উদ্ধার ও আটকের ঘটনায় এসআই আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর