কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জাতিগত-ভাষাগত ঐক্যের আহ্বান জানালেন কিশোরগঞ্জের সন্তান সিনেটর শেখ রহমান চন্দন


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ২৩ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:১১ | প্রবাস 


জাতিগত-ভাষাগত ঐক্য রচনার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের বহুজাতিক সমাজে নিজেদের অবস্থান সুসংহত করার আহবান জানিয়েছেন প্রথম কোন বাংলাদেশি আমেরিকান হিসেবে জর্জিয়া অঙ্গরাজ্য সিনেট সদস্য নির্বাচিত হওয়া শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন। তিনি ডেমক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী হিসেবে সিনেট ডিস্ট্রিক্ট-ফাইভ থেকে সিনেট সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

রোববার (২১ এপ্রিল) দুপুরে নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে পালকি পার্টি সেন্টারে গণমাধ্যমের সাথে কথা বলার সময় সকলের মধ্যে নির্ভেজাল ঐক্যের আহ্বান জানিয়ে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন বলেন, দু:খজনক হলেও সত্য যে, কেউ সামনে এগুতে চাইলে অন্যেরা টেনে ধরেন। ভাবেন, আমি আগে যাবো, সে কেন যাবে? এমন মনোভাব পরিহার করতে হবে। যিনি এগুতে চান, তাকে আন্তরিক অর্থে সহায়তা দিলে প্রকারান্তরে মূলধারায় আরোহনের পথই সুগম হয়।

কিশোরগঞ্জের সন্তান শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন ১৯৮১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। এরপর তিনি নর্থ ক্যারোলিনায় ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়া থেকে এমবিএ করেন।

শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন গত বছর ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সম্মেলনে জাতীয় কমিটিতে প্রথম বাংলাদেশি কার্যকরী সদস্য নির্বাচিত হন। মূলধারার রাজনীতিতে অনেকের কাছেই অনায়াসে গ্রহণযোগ্য নেতা হিসেবে আলোচিত ব্যক্তিতে পরিণত হন। গত বছরের ৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত মধ্যবর্তী নির্বাচনে তিনি ডেমক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী হিসেবে সিনেট ডিস্ট্রিক্ট-ফাইভ থেকে লড়ছিলেন। বিপুল ভোটের ব্যবধানে তিনি রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বীকে ধরাশায়ী করেছেন।

এ প্রসঙ্গে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন বলেন, আমি বাংলাদেশী কিংবা দক্ষিণ এশিয়ান অথবা মুসলমান, এমন পরিচয়ে উপস্থাপন করলে কখনোই নির্বাচিত হতে পারতাম না। কারণ আমার এলাকায় ভোটারের সিংহভাগই এসব অঞ্চল বা ধর্মের নন। সে জন্যে আমাকে ওইসব ধর্মবিশ্বাসীগণের যাবতীয় কাজে পাশে থাকতে হয়েছে। অর্থাৎ গীর্জা, সিনেগগ, চার্চে গেছি। তারা অনুষ্ঠান করলে সেখানেই যাতায়াত করেছি। তাদের যে কোন সমস্যাকে নিজের বিবেচনায় নিয়েছি। এভাবে তাদের মন জয় করেছি বলেই নির্বাচনে আমি জয়ী হতে পেরেছি।

নিজের অভিজ্ঞতায় প্রবাসীদের পরামর্শ দিয়ে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন বলেন, শুধু বাঙালি হয়ে থাকলে চলবে না। বাঙালিত্ব হৃদয়ে ধারণ করেই আমেরিকান হতে হবে। কারণ, এটি তো বাংলাদেশ নয়। বহুজাতিক সমাজের সাথে মিশে যেতে পারলেই জননেতা হওয়া সম্ভব। নিউইয়র্কের দুয়েকটি এলাকায় বাংলাদেশী ভোটারের সংখ্যা সন্তোষজনক হলেও বিজয় অর্জনে কতটা সহায়ক সেটি বিবেচনার দাবি রাখে।

শেখ রহমান চন্দন বলেন, নির্বাচনে জয়ী হতে সর্বপ্রথম কমিউনিটিভিত্তিক ঐক্য গড়তে হবে। নিজেরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকি, তাহলে নিকট প্রতিবেশী ভিনদেশীরাও এগিয়ে আসতে স্বাচ্ছন্দবোধ করবেন। এটি হচ্ছে নির্বাচনে বিজয়ের অন্যতম পূর্বশর্ত।

সিনেটর চন্দন আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্র হচ্ছে ভাগ্য গড়ার উর্বর একটি ভূমি। স্বপ্ন পূরণের উদাহরণ প্রতিনিয়ত তৈরী হচ্ছে। সততা, নিষ্ঠার সাথে অকৃপণভাবে কাজ করতে পারলেই অভিষ্ঠ লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব। বাংলাদেশী আমেরিকানরাও এমন উদাহরণ তৈরী করেছেন বহুজাতিক এ সমাজে। বিশেষ করে আমাদের সন্তানেরা তরতর করে এগিয়ে যাচ্ছেন। তাদেরকেও সহায়তা দিতে হবে। অভিভাবক হিসেবে এ দায়িত্ব সকলেরই। তাদের মধ্য থেকেও সিনেটর, কংগ্রেসম্যান, এমনকি প্রেসিডেন্ট হতে পারে বলেও মন্তব্য করেন শেখ রহমান।

শেখ রহমান বলেন, যারা সিটিজেনশিপ নিয়েছেন, তারা যেন ভোটার হিসেবেও তালিকাভুক্ত হন এবং নির্বাচনের দিন কেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। তাহলেই নিজেদের অধিকার আদায়ের ক্ষেত্রে বড় একটি ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়া সম্ভব।

তিনি বলেন, অনেকেই বাংলাদেশের রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েছেন এই প্রবাসেও। এতে দোষের কিছু নেই। তবে পাশাপাশি মার্কিন রাজনীতিকেও ধারণ করতে হবে। কারণ, এই সমাজের আপনিও একটি অংশ। সেখানে সোচ্চার থাকতে হবে নানাবিধ সুযোগ-সুবিধা আদায়ের স্বার্থে।

সিনেটর চন্দন বলেন, নিউইয়র্ক, লসএঞ্জেলেস, ডেট্রয়েট, প্যাটারসন এলাকায় বাংলাদেশীরা সংখ্যায় বেড়েছে। তাই সকলের মধ্যে নির্ভেজাল ঐক্য থাকলে যে কোন নির্বাচনে জয়ী হবার পথ সুগম হতে পারবে। ন্যূনতম একটি ইস্যুতেও হতে পারে এ ঐক্য। ঐক্যের ব্যাপারে নিউইয়র্কের কন্সাল জেনারেলও উদ্যোগ নিতে পারেন। কিংবা যে কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠিও এগিয়ে আসতে পারেন। এটি হচ্ছে সময়ের দাবি।

শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন বলেন, আমাদের সন্তানেরা বড় হচ্ছে। তাদের কথা ভেবেই ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোন বিকল্প নেই। তাহলে ওরাও শক্তি পাবে, বলিষ্ঠতার সাথে উচ্চারণে সক্ষম হবে যে, আমরা বাঙালির উত্তরাধিকারি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর