কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কবি চন্দ্রাবতী’র খোঁজে পাতুয়াইর গ্রামে


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৬ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৩৫ | ইতিহাস-ঐতিহ্য 


পিতা দ্বিজ বংশীদাসও ছিলেন সহজিয়া-কবি। মধ্যযুগের স্বভাব অনুযায়ী রচনা করেছিলেন ধর্মকাব্য। একটির কথা ইতিহাসে গুরুত্বের সঙ্গে উল্লেখিত হয়েছে, তা হলো ‘মনসা মঙ্গল’। কন্যা শুরু করেছিলেন ‘রামায়ন’। শেষ করতে পেরেছিলেন বলে জানা যায় না।

‘ধারাস্রোতে ফুলেশ্বরী নদী বয়ে যায়...’ মর্মে একটি বর্ণনা চন্দ্রাবতী নিজেই দিয়েছেন। তাঁর মৃত্যুও হয়েছে সে নদীর জলে। সেখানে ভেসে ওঠেছিল প্রেমিক জয়ানন্দের মরদেহ।

ত্রি-সীমানায় এখন আর নদীর দেখা নেই। রেকর্ডে ফুলেশ্বরী নদীর খোঁজও পাওয়া যায় না। অনতিদূরে নরসুন্দা নদীর একটি ছোট্ট শাখা কোনক্রমে বয়ে চলেছে। আর চন্দ্রাবতী রয়ে গেছেন স্মৃতির হিরন্ময় নায়িকা হয়ে ইতিহাস ও পৌরাণিকতার পাতায়।

ষোড়শ শতকের মনসা মঙ্গলের কবি কন্যা চন্দ্রাবতীকে বলা হয়ে থাকে বাংলা ভাষার প্রথম মহিলা কবি। কিশোরগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার মাইজকাপন ইউনিয়নের ফুলেশ্বরী নদী তীরের পাতুয়াইর গ্রামে জন্মগ্রহণ করা কালজয়ী এই কবির লেখা পৃথিবীর একুশটি ভাষায় অনুদিত হয়েছে।

তাঁর শিবমন্দির ও বসতবাড়ি সংস্কার এবং সংরক্ষণের দাবি দীর্ঘদিনের হলেও প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর কেবল নোটিশবোর্ড ঝুলিয়েই দায় সেরেছে। অধিদপ্তরের তেমন কোন নজরদারি না থাকায় ইতোমধ্যে শিবমন্দিরের বহু মূল্যবান জিনিস চুরি হয়ে গেছে। জবর দখল হয়ে গেছে তার বসতবাড়িটি। চন্দ্রাবতীর স্মৃতিবিজড়িত শিবমন্দির ও সংশ্লিষ্ট এলাকাকে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে ঘোষণার দাবি উত্থাপিত হলেও তা গ্রাহ্য করা হয় নি।

পরমা সুন্দরী এই রোমান্টিক কবির জন্মস্থান ও তাঁর শিবমন্দির দেখার জন্য দেশের নানা প্রান্ত থেকে প্রতিদিনই দর্শণার্থীরা আসেন। চন্দ্রাবতীর রামায়ন লেখার স্মৃতিবিজড়িত শিবমন্দিরের দৈন্যদশা পীড়াদায়ক হলেও এর সংরক্ষণে তৎপরতা নেই বললেই চলে। ষোড়শ শতাব্দির স্থাপত্যশৈলীর নিদর্শন চন্দ্রাবতীর বাড়িটি পরগাছা উদ্ভিদের বাসস্থানে পরিণত হয়েছে। বাড়িটিতে দর্শনার্থীদের প্রবেশাধিকারও সংরক্ষিত পর্যায়ে চলে গেছে। তবে সম্প্রতি চন্দ্রাবতীর স্মৃতিবিজড়িত বাড়িটি সংরক্ষণের জন্য প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর উদ্যোগী হয়েছে বলে জানা গেছে।

বর্তমানে ফুলেশ্বরী নদীর কোন চিহ্ণ না থাকলেও কালের সাক্ষী হয়ে চন্দ্রাবতীর স্মৃতিবিজড়িত শিবমন্দির ও বাড়িটি দাঁড়িয়ে আছে। মন্দির ও চন্দ্রাবতীর লেখার রামায়ণ সম্পর্কে বিভিন্ন আলোচনা, মন্দিরের নির্মাণ শৈলী ও স্থানীয় অনুসন্ধান থেকে অনুমান করা হয়, মন্দিরটি ষোড়শ শতকের শেষ পাদে নির্মিত, যদিও সুনির্দিষ্ট প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

মন্দিরটি অষ্ট কোণাকৃতির। এটির উচ্চতা ১১ মিটার। আটটি কোণার প্রতিটি বাহুর দৈর্ঘ ১.৭ মিটার। নিচের ধাপে একটি কক্ষ ও কক্ষে যাবার জন্য একটি দরজা রয়েছে। ভিতরে হয় শিবপূজা। নিচের সরলরেখায় নির্মিত অংশটি দু’টি ধাপে নির্মিত। নিচের ধাপের চারদিকে প্রায় অর্ধ বৃত্তাকার খিলানের সাহায্যে নির্মিত প্রশস্ত কুলুঙ্গী রয়েছে। নিচের ধাপে কার্ণিশ পর্যন্ত উচ্চতা ২.৭০মিটার।

কক্ষের ভিতরে সাতটি জানালা সদৃশ কুলুঙ্গি রয়েছে যার প্রস্থ ৫২সেন্টিমিটার এবং দৈর্ঘ ৯৯সেন্টিমিটার। কিছু কারুকাজও আছে। কক্ষের ব্যাস ২.৩৫মিটার। এর কার্ণিশ বরাবর অনুচ্চ ছাদ রয়েছে। দ্বিতীয় ধাপটিও সরলরেখায় নির্মিত। এই পর্যায়েও অর্ধবৃত্তাকারের খিলানের সাহায্যে নির্মিত প্রশস্ত কুলুঙ্গি রয়েছে। কুলুঙ্গির ভিতরে একদা পোড়ামাটির অসংখ্য চিত্র ফলকের অলংকরণ ছিল যা আজ আর অবশিষ্ট নেই।

মন্দিরটি প্রায় ভগ্ন অবস্থায় ছিল, কয়েক বছর আগে প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগ সংস্কার করায় এর প্রাচীন আমেজ আর নেই। এছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে চুনকাম করে এটিকে রাঙানো হয়েছে। ১৯৯১ সালে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটে। এতে মন্দিরের অনেক তি সাধিত হয়। মন্দিরের শিবলিঙ্গটিও চুরি হয়ে গেছে।

১৯৯৬ সালে জাদুঘর ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের পক্ষ থেকে ‘মন্দিরটি প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সম্পত্তি’ এই সাইনবোর্ড টানিয়েই দায়িত্ব শেষ করেছে। এর রক্ষণাবেক্ষণসহ নিরাপত্তার বিষয়টি এখন হুমকির সম্মুখীন।

মন্দিরসংলগ্ন স্থানে স্থাপিত হয়েছে কবি চন্দ্রাবতী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয় মাঠে প্রতি বছর বৈশাখ মাসের এক তারিখে মেলা অনুষ্ঠিত হয়। কবি চন্দ্রাবতীর স্মৃতিকে ধরে রাখার উদ্দেশ্যে এলাকার তরুণদের উদ্যোগে গড়ে তোলা হয়েছে চন্দ্রাবতী স্মৃতি সংসদ।

চন্দ্রাবতীর মায়ের নাম সুলোচনা। মৈমনসিংহ গীতিকা অনুযায়ী, ১৫৫০ সালের দিকে তাঁর জন্ম, আর মৃত্যু ১৬০০ সালে। চন্দ্রাবতী একাধারে কবি এবং সাহিত্যের নায়িকা। বাংলা সাহিত্যের একজন সার্থক ট্রাজিক নায়িকা হিসেবে তিনি কিংবদন্তী হয়ে রয়েছেন।

রোমান্টিক মনের অধিকারী চন্দ্রাবতীর বাস্তব জীবনে ঘটে যাওয়া প্রেমের বিয়োগান্তক ঘটনার বিবরণ পাওয়া যায় মৈমনসিংহ গীতিকার নয়ানচাঁদ ঘোষ রচিত চন্দ্রাবতী পালায়। ১২টি অধ্যায়ে ৩৫৪টি ছত্রের এ লোকগাঁথাটি চন্দ্রাবতীর জীবনীর তথ্যভিত্তিক লিখিত প্রামাণ্য দলিল।

নয়ানচাঁদ ঘোষের বর্ণনায় বলা হয় যে, সুন্দরী চন্দ্রাবতীর সাথে তাঁর বাল্যসখা জয়ানন্দের বন্ধুত্ব গভীর প্রেমে পরিণত হয়। দুই পরিবারের সম্মতিতে জয়ানন্দ ও চন্দ্রাবতীর বিয়ে ঠিক হয়। সে বিয়ের আয়োজনও শুরু হয়ে যায়।

কিন্তু হঠাৎ ঘটে যায় আরেক ঘটনা। আসমানি নামে একটি মুসলমান মেয়ের রূপে মুগ্ধ হয়ে তাঁকেই বিবাহ করে চঞ্চলমতি জয়ানন্দ। এই মর্মান্তিক খবরে চন্দ্রাবতী স্তম্ভিত হয়ে নাওয়া-খাওয়া ত্যাগ করেন। নিদারুণ আঘাতে মুষড়ে পড়া চন্দ্রাবতীকে বিপর্যয়কর অবস্থা থেকে উদ্ধারের জন্য বংশীদাস কন্যাকে একমনে শিবের নাম জপ করতে আর রামায়ণ লিখতে উপদেশ দিলেন।

এসময় চন্দ্রাবতী পিতা দ্বিজ বংশীদাশের কাছে দুটি প্রার্থনা করেন। একটি ফুলেশ্বরী নদীর তীরে মন্দির প্রতিষ্ঠা করা এবং অন্যটি চিরকুমারী থাকার ইচ্ছা। দ্বিজ বংশীদাশ তাঁর দু’টি প্রার্থনাই মঞ্জুর করলেন। এভাবেই এক সময়ের খরস্রোতা নদী ফুলেশ্বরীর তীরে স্থাপিত হয় চন্দ্রাবতীর শিবমন্দির।

বিরহী প্রেমের স্মৃতিময় সে জীবন চন্দ্রাবতী কাটিয়ে দিয়েছেন সাহিত্যের ভেতর। কিছু কাল পর জয়ানন্দ অনুতপ্ত হয়ে আবার তার কাছে ফিরে এলেও চন্দ্রাবতী আর তার সাথে দেখা করেন নি। এতে অভিমানে জয়ানন্দ বাড়ির পাশেই ফুলেশ্বরী নদীতে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

জয়ানন্দের মৃত্যু থামিয়ে দেয় চন্দ্রাবতীকেও। নিজের আবেগ ধরে রাখতে না পেরে ফুলেশ্বরীতে ঝাঁপ দিয়ে জয়ানন্দের শেষ যাত্রায় সঙ্গী হলেন।

অন্যমতে, জয়ানন্দের মৃত্যুর অল্প কিছুদিন পরই শোকাভিভুত চন্দ্রাবতীও দেহত্যাগ করেন। ফলে রামায়ণে সীতার বনবাস পর্যন্ত লেখার পর আর লেখা হয়নি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর