কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নন্দীপুর গ্রামের জন্মভিটায় কমরেড অজয় রায়ের ‘স্মৃতি ফলক’ উন্মোচন


 স্টাফ রিপোর্টার, কটিয়াদী | ২৮ এপ্রিল ২০১৯, রবিবার, ১২:২২ | কটিয়াদী 


কটিয়াদী উপজেলার বনগ্রাম ইউনিয়নের নন্দীপুর গ্রামের জন্মভিটায় প্রয়াত জননেতা কমরেড অজয় রায়ের সমাধিতে ‘স্মৃতি ফলক’ উন্মোচন করা হয়েছে। শনিবার (২৭ এপ্রিল) সকালে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে স্মৃতি ফলক উন্মোচন করেন কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনের সংসদ সদস্য সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ।

স্মৃতি ফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট অশোক সরকার।

অনুষ্ঠানে ঐক্য ন্যাপ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি পংকজ ভট্টাচার্য্য, কিশোরগঞ্জ জেলা বারের সভাপতি অ্যাডভোকেট মিয়া মোহাম্মদ,  সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি জিয়াউদ্দিন তারেক আলী, সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদ, মণিসিংহ ফরহাদ ট্রাস্ট সভাপতি শেখর দত্ত, দৈনিক ইত্তেফাক সম্পাদক তাসমিমা হোসেন, বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক লুভা নাহিদ চৌধুরী, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহাব আইন উদ্দিন, সাংবাদিক রীতা ভৌমিক, স্মৃতি ফলকের স্থপতি রবিউল হোসেন, কমরেড  অজয় রায়ের স্ত্রী জয়ন্তী রায়, পুত্র বিজ্ঞানী  অমিতাভ রায়, বনগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন মিলন, সাবেক চেয়ারম্যান খুর্শিদ উদ্দিন প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, কমরেড অজয় রায় একজন অসাম্প্রদায়িক চেতনার নেতা ছিলেন। তিনি সবসময় ১৭ কোটি মানুষের চিন্তা করে গেছেন।

বক্তাগণ কমরেড অজয় রায়ের স্মৃতি রক্ষার্থে এখানে একটি গ্রন্থাগার স্থাপনের দাবি জানান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নূর মোহাম্মদ এমপি বলেন, আমরা কিভাবে আমাদের সফলতা বিচার করি, কেন আমরা অজয় রায়কে মনে রাখবো? তিনি দেশের জন্য, সমাজের জন্য কি করেছেন?

এমন প্রশ্ন উত্থাপন করে তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা সবাই যেখানে পদ পদবী, অর্থবিত্ত নিয়ে ব্যস্ত, কমরেড অজয় রায় ছিলেন তার ব্যতিক্রম। তিনি ছিলেন অসাম্প্রদায়িক, মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন ব্যক্তি। তিনি দেশ এবং দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করতেন।

নূর মোহাম্মদ এমপি বলেন, উনার (অজয় রায়) লেখা বই পড়ে আমি দারুণ ভাবে উজ্জীবিত হয়েছি। উনার ছেলে, মেয়ের লেখা বইও পড়েছি। কমরেড অজয় রায় এই কটিয়াদীর একজন বিখ্যাত ব্যক্তি ছিলেন। তাঁর সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে।

এজন্য তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে সহযোগিতা পেলে তাদের পাশে থেকে অজয় রায়ের নামে গ্রন্থাগার বা প্রাতিষ্ঠানিক ভবন নির্মাণেরও আশ্বাস প্রদান করেন তিনি।

পরে বনগ্রাম আনন্দ কিশোর উচ্চ বিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে কমরেড অজয় রায়ের নামে বৃত্তি প্রদান করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর