কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সহকারী গ্রন্থাগারিক ও শিক্ষক প্রসঙ্গ


 মোহাম্মদ কামরুজ্জামান | ১ মে ২০১৯, বুধবার, ৯:২৩ | মত-দ্বিমত 


শিক্ষা  নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন সময় দেয়া উৎসাহমূলক বক্তব্য এবং কাজ আমাদের স্বপ্ন দেখায়। কিন্তু আমরা যখন দেখি শিক্ষার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম গ্রন্থাগার ও গ্রন্থাগারিকদের নিয়ে হেলাফেলা হয়, তখন হতাশ না হয়ে আশ্চর্য হই! আশ্চর্য হই এই ভেবে শিক্ষা নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা ও আগ্রহের বাইরে গিয়ে কাজ করা এই মাধ্যমটিকে কে বা কারা পরিচালিত করছে? বর্তমানে শিক্ষা খাতের সবচেয়ে অবহেলিত শ্রেণিটি হচ্ছে গ্রন্থাগারিকগ। এদেরকে কোন স্থানে বা কোথায় রাখবেন শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা মনে হয় ভেবেই পাচ্ছেন না! তবে আমাদের সর্বশেষ শিক্ষানীতি কিন্তু তা বলে না।

জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এর ২০তম অধ্যায়ের কৌশল অংশের ১০-১২ নম্বরে বলা হয়েছে- ‘‘১০. নীতি, পরিকল্পনা ও সমন্বয়গত সমস্যার সমাধান ও উন্নয়নের জন্য শিক্ষা, সংস্কৃতি ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের সমন্বয়ে একটি সংবিধিবদ্ধ এবং সার্বিক মর্যাদাসম্পন্ন কার্যকর গ্রন্থাগার কাউন্সিল স্থাপন করা হবে। ১১. মন্ত্রনালয় /বিভাগ, অধিদপ্তর ও পরিদপ্তরকে নিজ নিজ প্রশাসনাধীন গ্রন্থাগার ও তথ্যকেন্দ্র উন্নয়ন ও নতুন গ্রন্থাগার স্থাপনায় কাউন্সিলের পরামর্শ অনুযায়ী নীতি ও পরিকল্পনা প্রণয়ন করা। ১২. প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গ্রন্থাগারিক ও সহকারী গ্রন্থাগারিকের পদ সৃষ্ঠি করা ও তাদের যথার্থ মর্যাদা নিধারণ করা হবে।’’

অত্যন্ত সময়োপযোগী এই শিক্ষানীতি বাস্তবায়নে আমরা কি দেখলাম? দেখলাম, সরকারী চাকুরী বিধিমালা ২০১২তে সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিকভাবে গ্রন্থাগারিকদের কর্মচারী হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে। যা ছিলো একেবারেই অন্যায় এবং ক্ষেত্রবিশেষে গ্রন্থাগারিক পেশা সম্পর্কে  অজ্ঞতার বহিঃপ্রকাশ। লাইব্রেরী এসোসিয়েশন বাংলাদেশ ল্যাব, বিদ্যালয় গ্রন্থাগার সমিতি,  মাধ্যমিক বিদ্যালয় গ্রন্থাগার সমিতি সহ গ্রন্থাগার পেশাজিবীদের আরও কয়েকটি সংগঠন এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করলে  ৫ মে, ২০১২শিক্ষা মন্ত্রনালয় কর্তৃক জারীকৃত, ‘বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা) এর তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের চাকুরী বিধিমালা-২০১২ এর আংশিক সংশোধনী এনে ২ এর‘ছ’ অনুচ্ছেদে সহকারী গ্রন্থাগারিক শব্দ দুটি বাদ দিয়ে বলা হয়েছে, ‘‘কর্মচারী অর্থ বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নন টিচিং স্টাফ অর্থাৎ তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী(অফিস সুপারিন্টেন্ডেট/হিসাব রক্ষক/উচ্চমান সহকারী/টাইপিষ্ট কাম অফিস সহকারী/অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর/ গ্রন্থাগার সহকারী) এবং চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী ( এম এল এস এস অর্থাৎ পিয়ন/ দপ্তরী/ গার্ড/ক্যাশ পিয়ন// আয়া/ মালী/ ঝাড়–দার) বুঝাইবে।”

যদিও এই সংশোধনীতে গ্রন্থাগারিকরা নন টিচিং স্টাফ নয় এটা স্পষ্ট কিন্তু তাদের পদের মর্যাদা আরও স্পষ্ট হওয়া উচিত ছিলো তদোপরি গ্রন্থাগার পেশাজীবিরা এই সংশোধনীকে স্বাগত জানিয়েছিলো। তারা সান্তনা পেয়েছিলো যে, গ্রন্থাগারিক, সহকারী গ্রন্থাগারিকগন নন টিচিং স্টাফ নন। কিন্তু আমাদের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ২০১৭ সালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির তথ্য চেয়ে পাঠানো ছকের  ২নং ক্রমিকে সুস্পষ্ঠভাবে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের পরিপত্রকে অমান্য করা হয়েছে। বেনবেইস থেকে পাঠানো স্টাফ প্যাটার্ণের একই অবস্থা! সহকারী গ্রন্থাগারিককে ২নং ছকে কর্মচারীদের সাথে রাখা হয়েছে।

এখানে কথা হলো, শিক্ষানীতি, মন্ত্রনায়লয়ের সংশোধনী এর কিছুই কি মা উ শি, বেনবেইজকে স্পর্শ করেনা! অন্যথায় তারা কেন উল্টো পথে হাটছে? এই বিষয়টি নিয়ে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত দশ সহস্রাধিক গ্রন্থাগার পেশাজীবীদের মধ্যে অসন্তোষ, অশান্তি বিরাজ করছে।

কলেজ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কর্ম কর্মরত সহকারী গ্রন্থাগারিক পদটি মূলত ২য় শ্রেণির বেতনভুক্ত পদ ছিলো। ২০১৫ সালের সর্বশেষ বেতন কমিশন এটিকে ১০ম গ্রেড ভুক্ত করে। বর্তমানে তারা সেভাবেই বেতন ভাতাদি গ্রহন করছে। তাহলে এই পদটি নিয়ে এত হেলাফেলা কেন? মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর কি ‘সহকারী গ্রন্থাগারিক’ ও ‘গ্রন্থাগার সহকারী’ পদটি গুলিয়ে ফেলছেন? তা না হলে কিভাবে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে  সংশোধনী উপেক্ষা করে এই ছক এখনও পাঠানো হয়? এই ছকের কারনে ইতঃমধ্যে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে এবং আরও হওয়ার আশংকা তৈরী হচ্ছে। সারা বছর ক্লাশ নিলেও সহকারী গ্রন্থগারিকরা কোন বিষয় ভিত্তিক প্রশিক্ষণে অংশ নিতে পারেননা। তারা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটিতে শিক্ষক প্রতিনিধি হতে পারেননা । এমন সব আরও সমস্যায় পরতে হচ্ছে। গ্রন্থাগার পেশায় নিযুক্ত ব্যক্তিদের অসম্মান করে কিভাবে মানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করা হবে? শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গ্রন্থাগারিক, সহকারী গ্রন্থাগারিকদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে বহু আগেই শিক্ষক মর্যাদা দান করেছে।

প্রতিটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত গ্রন্থাগারিককে তার নির্ধারিত গ্রন্থাগারের দায়িত্বের পাশাপাশি শ্রেণিকার্যক্রমে অংশগ্রহন, পরীক্ষায় দায়িত্ব পালন, অভ্যন্তরীন পরীক্ষার খাতা মূল্যায়ন, বছরের নতুন বই সংগ্রহ, বিতরন সহ শিক্ষা সংশ্লিষ্ট সকল কার্যক্রমে অংশ নিতে হয়, এর পরও তারা শিক্ষক নন! বর্তমান সরকারের সূদুর প্রসারী ও শিক্ষা বিষয়ে ইতিবাচক চিন্তা থেকেই এই পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। যা দেশ বিদেশে প্রশংসিত হয়েছে এবং হচ্ছে। বিদ্যালয়ে কর্মরত ১০ম গ্রেডের স্টাফ হিসেবে সহকারী গ্রন্থাগারিক গনকে ‘সহকারী শিক্ষক (গ্রন্থাগার)’ হিসেবে রেখে নতুন আইন করলে সরকারের কোন ক্ষতি বা ব্যয় বৃদ্ধি হবেনা। বরং ১০ সহস্রাধিক গ্রন্থাগার পেশাজিবীদের মনে এনে দিতে পারে স্বস্তি। মানুষকে খাটো করে নয়  বরং সম্মান করেই সুষ্ঠু, সুন্দর, শিক্ষিত সমাজ গঠন সম্ভব।

মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী, মাননীয় আইন প্রণেতাগন, শিক্ষা সচিব মহোদয়সহ সংশ্লিষ্ট সকলের বিষয় ভেবে দেখা সময়ের দাবী।

# মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, সহকারী গ্রন্থাগারিক, আরজত আতরজান উচ্চ বিদ্যালয়, কিশোরগঞ্জ  এবং আহবায়ক, মাধ্যমিক বিদ্যালয় গ্রন্থাগার সমিতি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর