কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হোসেনপুরে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের টিফিনের টাকায় শ্রমজীবীদের শরবত


 স্টাফ রিপোর্টার | ২ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:১২ | সংগঠন সংবাদ 


গ্রীষ্মের তীব্র গরমে ব্যাহত হচ্ছে জনজীবন। কয়েকদিনের প্রচণ্ড গরমে ও রোদে কষ্টদায়ক জীবন পার করছেন শ্রমজীবী মানুষেরা। তাদের অক্লান্ত পরিশ্রম লাঘব করার চেষ্টা চালিয়েছে একদল শিশু। তারা টিফিনের টাকায় শ্রমজীবী মানুষদের শরবত পান করিয়ে তাদের তৃষ্ণা নিবারণের উদ্যোগ নিয়েছে।

হোসেনপুর সরকারি মডেল পাইলট স্কুল এন্ড কলেজের ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের প্রচেষ্টায় গড়ে ওঠা সংগঠন শিশুদের হাসি ফাউন্ডেশন এর সদস্যরা এভাবেই শ্রমিক ও মেহনতি মানুষদের হাতে কোমল পানীয় ও শরবত তুলে দিয়েছে। এ সময় তাদেরকে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিভিন্ন টিপস দিয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ মে) এমন চিত্রই দেখা গেছে হোসেনপুর উপজেলার বিভিন্ন সড়কে।

শরবত পান করানোর সময় ৬ষ্ঠ শ্রেণি পড়ুয়া আলামিন এক রিক্সাচালককে বেশি বেশি পানি খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বলছে। তার কথা হলো, প্রতিদিন কমপক্ষে ১০ লিটার পানি খেতে হবে। এছাড়া পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। সন্তানকে স্কুলে পাঠাতে হবে। আর কোনো প্রকার ড্রেস, জুতা, ব্যাগ ও সহায়ক বইয়ের প্রয়োজন পড়লে তা শিশুদের হাসি ফাউন্ডেশন বহন করবে।

একজন ডাক্তার হলেই  ভাল মানুষ হওয়া যায় না। মানুষ হতে হলে বিবেকবোধের প্রয়োজন। আজকের প্রজন্ম আগামী দিনের বাংলাদেশ, এই শিশুরা এ কথা সার্থক করে তুলেছে। এখান থেকেই হয়তো কেউ একদিন চিকিৎসক হয়ে দেশসেবায় আত্মনিয়োগ করবে।

কথা বলেছিলাম ৬০ বছর বয়সী বৃদ্ধ রিক্সাচালক মোতাহার হোসেন এর সাথে। তার বাড়ি দ্বীপেশ্বর গ্রামে। তিনি প্রায় ৩৫ বছর ধরে এ পেশায় নিয়োজিত। তিনি জানান, শিশুদের এমন উদ্যোগে তিনি ভীষণ খুশি। এর আগেও তিনি শরবত খেয়েছেন কিন্তু তা ছিল রাজনৈতিক কোনো পথসভা থেকে। কয়েকদিনের গরমে রিক্সা টানতে তার আর ভাল লাগছিল না। এরপরও পেটের দায়ে যাত্রীদের এখান থেকে ওখানে নিয়ে যাচ্ছেন। এমন সময় এ শরবত  তার শরীরকে ঠাণ্ডা করেছে।

তার কথায়, ‘আহ কি শান্তি লাগতাছে। অনেক গরমে শরীর থেকে ঘাম বেড় অইতাছে। এখন একটু শান্তি পাইতাছি।’ তিনি সব শিশুদের জন্য দোয়া করেন, যেন সবাই লেখাপড়ায় ভাল করে মানুষের মতো মানুষ হতে পারে।

এ ব্যাপারে স্কুলের প্রধান শিক্ষক এ.এস.এম জহির রায়হান বলেন, বাচ্চারা টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে টিফিন টাইমে মেহনতি মানুষদের শরবত পান করিয়ে তাদের মধ্যে যে সজীবতা দিয়েছে, তা প্রশংসনীয়। আমাদের স্কুলের এসব শিক্ষার্থী আমাদের গর্ব। আমরা শিক্ষকমণ্ডলী সব সময় তাদের পাশে রয়েছি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর