কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে এসএসসি’তে শতভাগ পাশ মাত্র দুই বিদ্যালয়, অনন্য ধারাবাহিকতা


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৬ মে ২০১৯, সোমবার, ৭:৫৬ | এক্সক্লুসিভ 


এবারের এসএসসি পরীক্ষায় কিশোরগঞ্জ জেলার মোট ২৩৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নিয়েছিল। এর মধ্যে মাত্র দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শতভাগ পাশের কৃতিত্ব অর্জন করেছে। প্রতিষ্ঠান দু’টি হচ্ছে, কিশোরগঞ্জ শহরের এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলা আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়।

এর মধ্যে এসভি সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে সর্বমোট পরীক্ষার্থী ছিল ২৩৯জন। প্রতিষ্ঠানটি থেকে ১৩৬ জন জিপিএ-৫ সহ  শতভাগ পরীক্ষার্থী পাস করেছে।

অন্যদিকে আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয় থেকে ৪৬জন পরীক্ষার্থী ছিল। প্রতিষ্ঠানটি থেকে শতভাগ পাশ ছাড়াও জিপিএ-৫ পেয়েছে মোট ১৯ জন।

এই দু’টি বিদ্যালয়ের মধ্যে ২০১৫ সাল থেকে শতভাগ পাশ ও সর্বাধিক জিপিএ-৫ এর কৃতিত্ব দেখিয়ে কিশোরগঞ্জ জেলায় ধারাবাহিকভাবে প্রথম স্থান দখল করে আছে এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়।

অন্যদিকে ২০১৩ সালে প্রথম বারের মতো এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েই শতভাগ পাশ ও জিপিএ-৫ অর্জন করে চমক দেখায় আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়। এরপর থেকে ধারাবাহিকভাবে শতভাগ পাশ ও ঈর্ষণীয় জিপিএ-৫ অর্জন করে চলেছে প্রতিষ্ঠানটি।

সর্বশেষ ২০১৪ সালের এসএসসি পরীক্ষায় জেলায় শীর্ষস্থান দখল করেছিল কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়। ওই বছর বিদ্যালয়টির ২৬৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে শতভাগ পাশ ছাড়াও ১৯৭ জন জিপিএ-৫ পাওয়ার কৃতিত্ব দেখায়। ২০১৪ সালে এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৪০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করে ২৩৮ জন এবং জিপিএ-৫ পায় ১৬৪ জন। ২০১১ সালের পর ২০১৪ সালে জেলায় শ্রেষ্ঠত্বের আসন কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় পুনরুদ্ধার করলেও তা ধরে রাখতে পারেনি।

এর পরের বছর ২০১৫ সাল থেকেই শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট চলে যায় এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের হাতে। প্রতিষ্ঠানটি থেকে ২৫১ জন পরীক্ষার্থীর শতভাগ পাশ ছাড়াও মোট ১২৯ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ লাভ করে পুনরায় জেলায় প্রথম স্থানের দখল নেয়। এরপর থেকে ধারাবাহিকভাবে প্রতিষ্ঠানটি থেকে শতভাগ পাশ এবং সর্বোচ্চ জিপিএ-৫ অর্জনের মাধ্যমে শীর্ষস্থানের দখল ধরে রেখেছে।

২০১৬ সালে বিদ্যালয়ের মোট ২২৯ জন পরীক্ষার্থীর সবাই পাশ করে। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ১১২ জন, মানবিক বিভাগে ৪জন ও বাণিজ্য বিভাগে ৩জনসহ মোট ১১৯ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ পায়। ২০১৭ সালে কিশোরগঞ্জ সরকারি এসভি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মোট ২২৮ জন পরীক্ষার্থীর সবাই পাশ করে। এর মধ্যে মোট ১৮৮ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ পায়। গত বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টির মোট ২৩৩ জন পরীক্ষার্থীর সবাই পাশ করে। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পায় মোট ১৯৩ জন ছাত্রী। ধারাবাহিকভাবে কিশোরগঞ্জে এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এসব ফলাফল ছিল জেলার মধ্যে সর্বোচ্চ সাফল্য।

অন্যদিকে এবার নিয়ে টানা সপ্তমবারের মতো এসএসসি পরীক্ষায় শতভাগ পাশের অনন্য কৃতিত্ব দেখিয়েছে পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলা আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়।  বিদ্যালয়টি থেকে এবার ৪৬ জন পরীক্ষা দিয়ে সবাই পাশ করেছে। এর মধ্যে ১৩জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। গত বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টি থেকে ৪৬ জন পরীক্ষা দিয়ে শতভাগ পাশ ছাড়াও ১৯টি জিপিএ-৫ লাভ করে।

এর আগে ২০১৩ সালে এসএসসি পরীক্ষায় প্রথমবারের মতো প্রতিষ্ঠানটি অংশ নিয়েই শতভাগ পাশ প্রতিষ্ঠানের কাতারে নাম লেখায়। ওই বছর ১৭ জন পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ-৫সহ ১৭ জনই পাশ করে। এরপর থেকেই এসএসসি পরীক্ষায় ধারাবাহিক সাফল্য দেখিয়ে আসছে প্রতিষ্ঠানটি।

২০১৪ সালে বিদ্যালয়ের ২৮জন পরীক্ষার্থীর সবাই পাশ ছাড়াও মধ্যে ১১ জন জিপিএ-৫ পায়। ২০১৫ সালে ৩২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাশ করে। এর মধ্যে ১৫জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পায়। ২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠানটি থেকে শতভাগ পরীক্ষার্থী কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়। ২৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৪জন জিপিএ-৫ পায়। এর ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালেও বিদ্যালয়টি থেকে ৩৯ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সবাই পাশ করে। এর মধ্যে ২৪ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পায়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর