কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


গণধর্ষণ শেষে চলন্ত বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে তানিয়াকে হত্যা


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৭ মে ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:০১ | বিশেষ সংবাদ 


গণধর্ষণ শেষে স্বর্ণলতা পরিবহনের চলন্ত বাস থেকে ধাক্কা মেরে নিচে ফেলে দেয়া হয় শাহিনূর আক্তার তানিয়াকে। এতে মাথা থেতলে যায় তার। বাজিতপুর উপজেলার গজারিয়া জামতলী এলাকার ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কে মুমূর্ষু অবস্থায় পড়ে থাকা তানিয়াকে দুই ব্যক্তি একটি সিএনজিতে করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সোমবার (৬ মে) রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে কটিয়াদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার নিথর দেহ নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাজরিনা তৈয়ব মৃত ঘোষণা করেন।

পরিবার জানায়, পরিবারের সঙ্গে প্রথম রোজা পালনের জন্য স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসে করে তানিয়া কর্মস্থল ঢাকা থেকে কটিয়াদী উপজেলার গ্রামের বাড়িতে ফিরছিলেন। বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ডের গন্তব্যের আগের স্টপেজ কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ডে রাত সাড়ে আটটার দিকে বাসটি যখন পৌঁছে, তখন ভাই কফিল উদ্দিন সুমনের সঙ্গে সর্বশেষ কথা হয়েছিল তানিয়ার। ভাইকে তখন মুঠোফোনে জানিয়েছিলেন, ‘আর মাত্র পাঁচ-সাত মিনিট লাগবে পিরিজপুর পৌঁছতে।’ কিন্তু তানিয়ার আর বাড়ি ফেরা হয়নি। ধর্ষকদলের পাশবিক লালসার শিকার হয়ে তাকে চলে যেতে হয়েছে না ফেরার দেশে।

নিহত শাহিনূর আক্তার তানিয়া (২৪) কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। তিনি ঢাকার ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একজন ডিপ্লোমা নার্স ছিলেন বলে পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে।

পরিবারের অভিযোগ, সোমবার (৬ মে) বিকালে রাজধানীর বিমানবন্দর কাউন্টার থেকে টিকিট নিয়ে স্বর্ণলতা পরিবহনে উঠেছিলেন তানিয়া। স্বর্ণলতা বাস মহাখালী থেকে কটিয়াদী হয়ে বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত চলাচল করে। কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ডে শাহিনুর আক্তার তানিয়া ছাড়া বাসের সব যাত্রী নেমে যায়। গাড়ির ড্রাইভার এবং হেলপার কৌশলে কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ড থেকে তার সাথের চার-পাঁচজনকে যাত্রীবেশে বাসে তুলে। পরে কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ড থেকে বাসটি ছেড়ে দেয়ার পর ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের গজারিয়া জামতলী এলাকায় তানিয়াকে জোরপূর্বক গণধর্ষণ শেষে হত্যা করা হয়।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে, চলন্ত বাসেই তানিয়া গণধর্ষণের শিকার হন। গণধর্ষণ শেষে তাকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেয়া হয়। ফলে মাথা থেতলে যাওয়াসহ তানিয়া শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত পান। এতেই তার মৃত্যু হয়। তানিয়ার নিথর দেহ রাত পৌনে এগারটার দিকে একটি সিএনজিতে করে কটিয়াদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে দুর্ঘটনার কথা বলার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাজরিনা তৈয়ব এগিয়ে গিয়ে পরীক্ষা করে মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় তিনি পুলিশকে বিষয়টি জানালে পুলিশ হাসপাতালে যায়। হাসপাতাল রেজিস্ট্রারে আনয়নকারীর নাম উল্লেখ করা হয়, আল আমিন, পিতা ওয়াহিদুজ্জামান, গ্রাম ভেঙ্গারদি, কাপাসিয়া, গাজীপুর।

এদিকে পাঁচ মিনিটের কথা বলে দীর্ঘ সময় পরও পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ডে শাহিনুর আক্তার তানিয়াকে বহনকারী স্বর্ণলতা বাস না পৌঁছায় তার ভাই কফিল উদ্দিন সুমন মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। গভীর রাতে তারা সংবাদ পান, তানিয়ার লাশ কটিয়াদী হাসপাতাল থেকে থানায় নিয়ে রাখা হয়েছে।

নিহতের ভাই কফিল উদ্দিন সুমন জানান, শাহিনুরের সাথে একটি এলইডি ১৯ইঞ্চি টেলিভিশন, একটি স্যামসং এনড্রয়েড মোবাইল ফোন ও বেতনের ১৫-১৬ হাজার টাকা ছিল।

কটিয়াদী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় ড্রাইভার নূরুজ্জামান (৩৯) ও হেলপার লালন মিয়া (৩৩) কে আটক করা হয়েছে। শাহিনুরের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, ব্যাগ, কাপড় চোপড় পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার ময়নাতদন্তের জন্য লাশ কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয় এবং সেখানেই লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার পর কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) মঙ্গলবার ঘটনাস্থল ও আশপাশ এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় জড়িতদের কোন ছাড় দেয়া হবে না বলেও তিনি জানিয়েছেন।

ডিপ্লোমা নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জেলা বিএমএ তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে। জেলা বিএমএ সভাপতি ডা. মাহবুব ইকবাল ও সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ ওয়াহাব বাদল অবিলম্বে এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর