কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্বর্ণলতা পরিবহনে গণধর্ষণ শেষে নার্স হত্যায় প্রতিবাদমুখর কিশোরগঞ্জ


 স্টাফ রিপোর্টার | ৯ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৫:৪৯ | বিশেষ সংবাদ 


স্বর্ণলতা পরিবহনের চলন্ত বাসে নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া (২৪) কে গণধর্ষণ শেষে হত্যার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে বৃহস্পতিবার (৯ মে) দিনভর বিক্ষোভ মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। জেলা শহর ছাড়াও বেশ কয়েকটি উপজেলায় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে এসব প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হয়।

এর মধ্যে কেবল জেলা শহরেই পাঁচটি সংগঠনের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। সংগঠনগুলোর মধ্যে রয়েছে, বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন, কিশোরগঞ্জ জেলা শাখা, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, কিশোরগঞ্জ জেলা শাখা, বাম গণতান্ত্রিক জোট, ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ এবং সমকাল সুহৃদ সমাবেশ।

এর মধ্যে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের সামনের সড়কে বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন, কিশোরগঞ্জ জেলা শাখা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। দীর্ঘ এই মানববন্ধনে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক, নার্স, ব্রাদার, নার্সিং ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষ অংশ নেন।

কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে পৌরমেয়র মাহমুদ পারভেজ, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান, জেলা বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ ওয়াহাব বাদল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। কর্মসূচি থেকে ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়ার পৈশাচিক হত্যায় জড়িতদের ফাঁসির দাবি জানানো হয়। বাংলাদেশ নার্সেস এসোসিয়েশন, কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মো. আ. ছালাম ভূইয়া ও সাধারণ সম্পাদক মো. ওমর ফারুক তাদের বক্তব্যে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যার বিচারের দাবি জানান।

বেলা ১১টার দিকে শহরের কালীবাড়ী মোড়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে জেলা মহিলা পরিষদ। কর্মসূচিতে জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট মায়া ভৌমিক, সাধারণ সম্পাদক আতিয়া হোসেন, সাবেক সভাপতি সুলতানা রাজিয়া, নারীনেত্রী বিলকিস বেগম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। কর্মসূচি থেকে তারা নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যার দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করেন।

এদিকে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যার দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবিতে শহরের গৌরাঙ্গ বাজার এলাকার স্টেশন রোডে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। কর্মসূচিতে জেলা বাসদ সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম, জেলা সিপিবি সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এনামুল হক, তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ, বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির জেলা সদস্যসচিব আবুল হাশেম, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান রুমী, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম শাহজাহান, সিপিবি শহর শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ইমাম রঞ্জু, বাসদ নেতা অ্যাডভোকেট মাসুদ আহম্মেদ বক্তব্য রাখেন।

এছাড়া সমকাল সুহৃদ সমাবেশ শহরের কালীবাড়ী মোড়ে এবং ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ শহরের আখড়াবাজার ব্রিজ এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এসব কর্মসূচি থেকে পৈশাচিক এই হত্যাকা-ের সাথে জড়িতদের ফাঁসির দাবি জানানো হয়।

এদিকে গ্রেপ্তার হওয়া বাসচালক মো. নূরুজ্জামান নূরু (৩৯), হেলপার মো. লালন মিয়া (৩২), মো. রফিকুল ইসলাম রফিক (৩০), মো. খোকন মিয়া (৩৮) এবং মো. বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংড়া বকুল (৫০) এই পাঁচজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য  বুধবার (৮ মে) আদালত থেকে ৮দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর হওয়ার পর ওইদিনই তাদের পুলিশ রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে।

নিহত শাহিনুর আক্তার তানিয়া কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। তিনি ঢাকার ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একজন ডিপ্লোমা নার্স ছিলেন। তিনি অবিবাহিত ছিলেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, প্রান্তিক কৃষক গিয়াস উদ্দিনের ছয় সন্তানের মধ্যে শাহিনুর আক্তার তানিয়া ছিলেন সবার ছোট। চার ভাই এবং দুই বোনের মধ্যে সবার ছোট হিসেবে বড়ই আদরের ছিলেন তানিয়া। দুই বছর আগে ডিপ্লোমা নার্সিং শেষ করে চাকরি নিয়েছিলেন ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালে। কর্মস্থল ঢাকা থেকে বাড়িতে আসার জন্য গত সোমবার (৬ মে) বিকাল ৩টায় ঢাকার বিমানবন্দর থেকে স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি বাসে (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৬২৮৫) ওঠেন শাহিনুর আক্তার তানিয়া।

স্বর্ণলতা পরিবহনের বাস মহাখালী থেকে কটিয়াদী হয়ে বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত চলাচল করে। বাসে ওঠে তানিয়া তার বাবাকে জানান, তিনি পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ডে নামবেন। কিন্তু বাড়িতে ফিরতে দেরি হওয়ায় রাত সাড়ে ৮টায় তানিয়ার মোবাইলে ফোন করে নম্বরটি বন্ধ পান বাবা গিয়াস উদ্দিন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে ফোন করে এক ব্যক্তি গিয়াস উদ্দিনকে জানায়, তার মেয়ে বাস দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে এবং বর্তমানে সে কটিয়াদী হাসপাতালে রয়েছে। এ খবর পেয়ে স্বজনেরা হাসপাতালে গিয়ে তানিয়াকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালের জরুরী বিভাগে পড়ে থাকতে দেখেন। হাসপাতালে তারা জানতে পারেন, আল আমিন নামে এক লোক তানিয়াকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে রেখে পালিয়ে গেছে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, সোমবার রাত সাড়ে ৮টায় স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটি বাজিতপুর উপজেলার বিলপাড় গজারিয়া এলাকায় পৌঁছুলে বাসের ভেতর শাহিনুর আক্তার তানিয়াকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণের পর তানিয়ার পরিহিত ওড়না গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়। পরে তানিয়ার লাশ বাস থেকে ফেলে দিয়ে বাসটি দ্রুত পালিয়ে যায়।

মঙ্গলবার (৭ মে) কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে অনুষ্ঠিত হওয়া তানিয়ার ময়নাতদন্তেও ধর্ষণ এবং শারীরিক নির্যাতন ও আঘাতে মৃত্যুর আলামত পাওয়া যায়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর