কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরব আইডিয়াল কলেজের চটকদার বিজ্ঞাপনে অভিনব প্রতারণা


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১০ মে ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৩৬ | ভৈরব 


প্রতিষ্ঠার তিন বছরে তিন বারই স্থান পরিবর্তন করা হয়েছে। পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ এবং প্রজেক্টরের মাধ্যমে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস তো দুরের কথা আধুনিক বিজ্ঞানাগার এবং কম্পিউটার ল্যাবের কোনো অস্থিত্বই নেই। বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা হলেন কলেজ শিক্ষক। প্রতিষ্ঠাতা নিজে একাই অধ্যক্ষ এবং সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

সর্বশেষ কলেজের ক্যাম্পাস শহরের কমলপুরের হামিদ টাওয়ারের নিচ তালায় ভাড়া নেয়া দৃষ্টি নন্দন অফিসে চলছে পাদুকার ব্যবসা। তারপরও দেয়ালে কিংবা পত্রিকায় লোভনীয় চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে প্রতারণা করছে প্রতিষ্ঠানটি। প্রকাশ্যে দিবালোকে এমনই নানা অনিয়ম ও প্রতারণার অভিযোগ উঠলেও দেখার যেনো কেউ নেই।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ২০১৫ সালে ভৈরব আইডিয়াল কলেজ নামে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন পার্শবর্তী জেলা নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার আব্দুর রহমান আজাদ ওরফে লিঙ্কন। ব্যানার, ফেস্টুন ও লিফলেটের মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা চালায় তারা। পরের বছর ২০১৬ সালে শহরের নদী বাংলা সেন্টার পয়েন্টের সামনে একটি ভাড়া ভবনে কলেজ ক্যম্পাস হিসেবে পাঠদান বা সেশন চালু করা হয়। কিন্তু, যথেষ্ঠ শ্রেণিকক্ষ, দক্ষ ও অভিজ্ঞ শিক্ষকের অভাবে মুখ থুবড়ে পড়ে কলেজটি। ফলে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে মাত্র ৩ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়। অবশেষে পরীক্ষার ফলাফলে তারা ৩ জনই অকৃতকার্য দেখা যায়।

পরের বছর স্থান পরিবর্তন করে ভৈরব আইডিয়াল কলেজ।  ভৈরব পৌর শহরের ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নিউটাউন মোড়ের আরেকটি ভবনে কার্যক্রম শুরু করে। ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে মাত্র ৭ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়। পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায় ৩ জন কৃতকার্য হলেও ৪ জনই অকৃতকার্য হয়েছে।

তারপরও থেমে নেই কলেজের চটকদার বিজ্ঞাপন। ততদিনে নানা অনিয়ম ও আর্থিক দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে কলেজটি। এসব ধামাচাপা দিতে ফের স্থান পরিবর্তন করে কলেজটি। এবার শিক্ষার্থীদের দৃষ্টি আর্কষণ করতে ঐতিহ্যবাহী হাজী আসমত কলেজের সামনে হামিদ টাওয়ারে নিচতলার একটি রুমে অফিস করা হয়। সে অফিসেই চলে অফিসের কার্যক্রম ও পাঠদান। ভবনের এপাশ ওপাশ জুড়ে বিশাল একটি সাইনবোর্ড টানানো হয়।

দূর থেকে দেখলে যে কারোই মনে হবে পুরো ভবনই যেনো কলেজ ক্যম্পাস। এবার অনেকটা সফল তারা। ফলে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী ভর্তি হয়। চলতি বছর শেষে পরীক্ষায় অংশ নেয় তারা। কিন্তু, বছর না ঘুরতেই নিচতলা বিশাল অফিস ছেড়ে ৩ তলার একটি ফ্ল্যাটে কার্যক্রম চালায় কলেজটি। আর নিচতলায় এখন চলছে পাদুকার ব্যবসা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাত্র একটি শ্রেণিকক্ষে পাঠদান চলছে। শ্রেণিকক্ষে একজন শিক্ষক ও অফিস কক্ষে ৩ জন বসে রয়েছেন। এদের মধ্যে একজন কলেজ প্রতিষ্ঠাতা, অধ্যক্ষ এবং সভাপতির দায়িত্ব পালন করা আব্দুর রহমান আজাদ ওরফে লিঙ্কন। তিনি সাংবাদিকদের জানান, কলেজে ১১ জন শিক্ষক রয়েছে এবং ১১৩ জন শিক্ষার্থী পাঠগ্রহণ করছে। শিক্ষকদের তালিকা দেখতে চাইলে তিনি দেখাতে ব্যর্থ হন।

এছাড়া পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ এবং প্রজেক্টরের মাধ্যমে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমসহ আধুনিক বিজ্ঞানাগার ও কম্পিউটার ল্যাব প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসব পর্যায়ক্রমে করা হবে। তাছাড়া নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কথা স্বীকার করে লিঙ্কন বলেন, আগে মাসুদ নামের শিক্ষক এসব অপকর্ম করেছে। ফলে তাকে কলেজ থেকে বের করে দেয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা জানায়, যে তুলনায় সেশন ফি এবং মাসিক বেতন নেয়া হয়। সে তুলনায় কলেজে শিক্ষার মান নেই। এক কথায় বলতে গেলে তারা শিক্ষার্থীদের সাথে প্রতারণা করছে।

এদিকে শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে দেয়া ভৈরব আইডিয়াল কলেজের ওয়েবসাইটে গেলে দেখা যায়, কোথায় ক্যম্পাস, কলেজটি কত সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। কে অধ্যক্ষ? কতজন শিক্ষক এবং কে সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন? এমন কি কোন শিক্ষাবর্ষে কতজন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে? কতজন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় কৃতকার্য বা অকৃতকার্য হয়েছে বা চলতি শিক্ষাবর্ষে কতজন শিক্ষার্থী রয়েছে। এমন কোনো তথ্যই নেই।

এ ব্যপারে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসরাত সাদমীন বলেন, শিক্ষা অফিসারের মাধ্যমে খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর