কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মাদকের বিরুদ্ধে প্রয়োজন দুর্বার সামাজিক আন্দোলন ও প্রতিরোধ


 শরীফুল্লাহ মুক্তি | ১০ মে ২০১৯, শুক্রবার, ৮:২০ | মত-দ্বিমত 


গত ১১ এপ্রিল জাতীয় দৈনিক ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’-এ একটি সরজমিন প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। শিরোনামটি ছিলো ‘ইয়াবা চেরাগে হাজার কোটি টাকা, দেশে তারকা হোটেল প্রাসাদ দুবাইয়ে ব্যবসা অস্ট্রেলিয়ায় বাড়ি’। প্রতিবেদনটি যে কোনো সুস্থ, বিবেকবান ও দেশপ্রেমিক মানুষকে ভাবিয়ে তুলবে। দেশে হচ্ছেটা কী? আমরা ছোট সময় রূপকথার আলাদিনের চেরাগের অনেক গল্প শুনেছি। আলাদিনের চেরাগে ঘষা দিলেই বেরিয়ে আসত বিশাল এক দৈত্য। বেরিয়েই বলতো ‘হুকুম করুন মালিক’। চোখের পলকেই সেই দৈত্য মালিকের পছন্দের জিনিস সামনে হাজির করে দিত।

কিন্তু রূপকথার এ গল্পকে বাস্তবরূপ দিয়েছেন টেকনাফের কিছু মানুষ। আর তাদের চেরাগের নাম হলো ‘ইয়াবা চেরাগ’। এ ইয়াবা চেরাগের ছোঁয়ায় রাস্তার ফকির হয়ে যাচ্ছে রাজা-বাদশা। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম ধ্বংসকারী মরণনেশা ডার্টিপিলখ্যাত ইয়াবা বেচে এই কারবারিরা হাজার কোটি টাকার মালিক বনে যাচ্ছে।

প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ইয়াবা কারবারিদের অঢেল সম্পদের মালিক বনে যাওয়ার নানা গল্প। গত ২০ এপ্রিল একই দৈনিকে ‘ইয়াবা পাচারে নতুন টেকনিক কাট-আউট’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত সংবাদে জানা যায় ইয়াবা পাচারে মূল হোতাদের পরিচয় গোপন রাখতে বর্তমানে অনুসরণ করা হচ্ছে ‘কাট-আউট’ পদ্ধতি। সংবাদে উঠে এসেছে কিভাবে আন্তর্জাতিক মাফিয়া চক্র ও জঙ্গিদের অনুসরণ করা এ পদ্ধতি প্রয়োগ করে আমাদের দেশে সফল হয়েছে ইয়াবা কারবারিরা। একই তারিখে একই দৈনিকে প্রকাশিত আর একটি সংবাদ শিরোনামও নজর কাড়ার মতো। শিরোনামটি হলো- ‘আশুলিয়ায় ৯০০ ইয়াবাসহ সিআইডি পুলিশ গ্রেফতার’।

মাদকদ্রব্য হলো এমন ভেষজ ও রাসায়নিক দ্রব্য কিংবা ঔষধ যা কিছুদিন গ্রহণ করলে সেবনকারী শারীরিক বা মানসিকভাবে তার উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ে এবং আসক্তির সৃষ্টি হয়। এটি কয়েকবার গ্রহণ করার পর বারবার গ্রহণ করতে ইচ্ছে করে এবং এরূপ ইচ্ছে জাগার পর তা গ্রহণ না করলে কিংবা হঠাৎ গ্রহণ বন্ধ করলে শরীরে নানা রকম বিরূপ প্রতিক্রিয়া ও যন্ত্রণার সৃষ্টি হয়। মাদকদ্রব্য বারবার গ্রহণের ফলে শরীরে এর চাহিদা এবং ব্যবহারিক মাত্রা ক্রমাগত বৃদ্ধি পেতে থাকে।

সাধারণত শিশু-কিশোররা প্রথমে সিগারেটের মাধ্যমে নেশার জগতে প্রবেশ করে। এরপর তারা আস্তে আস্তে অন্য ধরনের মাদকে আসক্ত হয়। আমাদের দেশে প্রচলিত মাদকদ্রব্যগুলো হলো- আফিম, ফেনসিডিল, হেরোইন, ইয়াবা, মরফিন, পেথিড্রিন ও বুপ্রেনরফিন ইনজেকশন, গাঁজা, ভাং, মদ, তাড়ি, ঘুমের ঔষধ ইত্যাদি। আমাদের দেশে পথশিশুদের কাছে মাদক হিসেবে ড্যান্ডি বেশ জনপ্রিয়। ড্যান্ডি এক ধরনের আঠা, যা মূলত সলিউশন নামে পরিচিত। এতে টুলুইন নামক একটি উপাদান আছে। এটি মাদক হিসেবে তালিকাভূক্ত।

মাদক হিসেবে আমাদের দেশে একসময় ফেনসিডিল শীর্ষস্থান দখল করলেও বর্তমানে ইয়াবা সবাইকে ছাড়িয়ে গিয়েছে। ইয়াবাকে কেউ বলে বাবা, কেউ বলে হর্সপাওয়ার, কেউ বলে মুরুব্বি, কেউ বলে মাল, কেউ বলে জিপি। আবার কেউবা ডাকেন মারহাবা, কেউবা ডাকেন গুটি নামে।  তবে ভয়ঙ্কর এই মাদক ইয়াবা মাদক ব্যবসায়ী ও ব্যবহারকারীদের কাছে ‘বাবা’ সাংকেতিক নামেই বেশি পরিচিত।

মূলত Yaba (ইয়াবা) শব্দটি দুটি থাই শব্দ Yar ও Bah থেকে এসেছে। এর অর্থ হলো Crazy Medicine বা উত্তেজক ঔষধ। উত্তেজক মাদক Amphetamine এর অ্যানালগ Methamphetamine এর সঙ্গে আরো কতিপয় যৌগের মিশ্রণ ঘটিয়ে ইয়াবা তৈরি করা হয়। সাধারণত ৪ মি.মি. থেকে ৫ মি.মি. ব্যাস এবং ২.৫ মি.মি. থেকে ৩ মি.মি. পুরু গোলাকৃতির ট্যাবলেট আকারে এটি তৈরি করা হয়। দেখতে অনেকটা ছোট আকারের ক্যাণ্ডির মতো। রং লালচে, কমলা, সাদা কিংবা সবুজাভ। এটি আঙুর, কমলা, ভ্যানিলা ইত্যাদি বিভিন্ন স্বাদ ও গন্ধের হয়ে থাকে। এ কারণে কোমলমতি শিশু-কিশোর ও তরুণ-তরুণীদের শক্তিদায়ক ক্যাণ্ডি বলে বিভ্রান্ত করে সহজে ইয়াবা সেবনে অভ্যস্ত করা যায়।

বাংলাদেশের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশে গত আট বছরে মাদক হিসেবে ইয়াবার ব্যবহার বেড়েছে শতকরা ৬০০ ভাগ বা ছয় গুণ। এর প্রধান ব্যবহারকারী তরুণ প্রজন্ম। ইয়াবা সেবন করলে ২ থেকে ৩ ঘণ্টার মধ্যে এর স্নায়ু উত্তেজক ক্রিয়া শুরু হয়ে প্রায় ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা স্থায়ী হয়। এই সময়ের মধ্যে ব্যবহারকারী শারীরিক ও মানসিকভাবে এমন এক জগতে অবস্থান করে যেখানে ক্ষুধা, বেদনা, ক্লান্তি ও অবসাদ নেই। বরং ব্যবহারকারীর মধ্যে এক ধরনের অতিমানবিক শক্তি ভর করে। কিন্তু ১০-১২ ঘণ্টা শেষে এর প্রভাব কেটে যাওয়ার পর নতুন করে আবার এ মাদকটি গ্রহণ না করলে ব্যবহারকারীদের সোজা আকাশ থেকে পাতালে পতিত হবার অবস্থা হয়। মাদকের প্রভাব তাকে যে পরিমাণ গতি, ক্ষিপ্রতা, উচ্ছলতা ও ক্ষমতা যোগায়, রক্তপ্রবাহ থেকে এর প্রভাব দূরীভূত হলে ব্যবহাকারী তার দ্বিগুণ পরিমাণ ভেঙ্গে পড়ে। তার মধ্যে নেমে আসে মৃত মানুষের নিস্তেজতা, নিঃস্বতা ও অসাড়তা। সীমাহীন ক্লান্তি, অবসাদ, বিষাদ, অসহায়ত্ব ও নৈরাশ্য তাকে এক অন্ধকার গহ্বরে তলিয়ে দেয়।

ইয়াবা কোকেনের চেয়েও মারাত্মক উত্তেজনা সৃষ্টিকারী মাদক। এর ক্রিয়া কোকেনের চেয়েও দীর্ঘস্থায়ী। এর কারণ ইয়াবার মূল উপাদান মেথামফিটামিন কোকেনের চেয়ে ধীর গতিতে মেটাবলাইজ হয়। সাধারণত গৃহীত মাত্রা বা পরিমাণের উপর ইয়াবার প্রতিক্রিয়া নির্ভর করে। নিয়মিত ইয়াবা সেবন করলে ফুসফুস, লিভার ও কিডনি নষ্ট হয়ে যায়। দীর্ঘ দিন ইয়াবা ব্যবহার করার পরে Speed dug অথবা Crank bugs নামক hallucinatin তৈরি হয়।  এতে সেবনকারীর মনে হয় যেন সারা শরীরে চামড়ার নিচ দিয়ে ছারপোকা কিলবিল করে নড়ে বেড়াচ্ছে এবং সেবনকারী এদের টিপে বের করার জন্য মরিয়া হয়ে উন্মত্ত আচরণ করতে থাকে।

মাদকাসক্তি নানা কারণে হতে পারে। কিছু সাধারণ কারণ উল্লেখ করা যেতে পারে। যেমন- দলগত চাপ বা মাদকাসক্ত সঙ্গী-সাথীদের প্রভাব ও প্রলোভন, মাদক ব্যবসায়ীদের ফাঁদ, মাদকদ্রব্যের প্রতি কৌতুহল, অজ্ঞতা, অসচেতনতা, মূল্যবোধের অবক্ষয়, নৈতিক ও ধর্মীয় শিক্ষার অভাব, পরিবারিক দ্বন্দ্ব, কলহ, পরস্পর অবিশ্বাস ও সাংসারিক অশান্তি, দুর্বল ব্যক্তিত্ব ও মানসিক চাপ সহ্য করার ক্ষমতার অভাব, পরিবারে অন্যান্যদের মাদকদ্রব্য গ্রহণ, মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকা ইত্যাদি। এছাড়াও পরিবারে অপসংস্কৃতির চর্চা এবং অভিভাবকের উচ্ছৃঙ্খল জীবন-যাপন, অভিভাবকের উদাসীনতা, অবহেলা, অতি শাসন কিংবা অতি আদর, পারিবারিক বিচ্ছেদ, বিবাহ-বিচ্ছেদ, বহু বিবাহ, অপরাধ সম্পৃক্ততা ও অবৈধ উপার্জন, বংশগত প্রভাব, ব্যক্তি বিশেষের বিশেষ জৈব রাসায়নিক অবস্থা, মাদকদ্রব্যের সহজলভ্যতাও মাদকাসক্তির ক্ষেত্রে প্রভাবক হিসেবে কাজ করে থাকে।

মাদকাসক্তির বেশ কিছু উপসর্গ থাকে যেগুলো দেখে মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে চেনা যায়। যেমন- অস্বাভাবিক আচরণ করা, খিটখিটে মেজাজ, অস্থির মন-মানসিকতা, হঠাৎ আক্রমণাত্মক ও কলহপ্রবণ হয়ে ওঠা, অধিক রাত পর্যন্ত জেগে থাকা এবং সকালে বিলম্বে ঘুম থেকে ওঠা, অধিকাংশ সময় বিমর্ষ ও চুপচাপ থাকা বা ঘরের দরজা বন্ধ করে থাকা, পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের এড়িয়ে চলা, উচ্ছৃঙ্খল ও অনিয়মতান্ত্রিক জীবনযাপন, সময়মতো খাওয়া-গোসলে অনীহা, কথা বলায় আড়ষ্টতা, স্মরণশক্তি হ্রাস ও দৃষ্টিতে বিহ্বলতা, অকারণে মিথ্যা কথা বলা ইত্যাদি।

মাদকাসক্তির আরও কিছু লক্ষণ হলো- অসহিষ্ণুতা, অধৈর্য ও অমনোযোগ, চোখের কোণে কালিপড়া, শরীর শুকিয়ে যাওয়া, শরীরে দাগ পড়া, টাকা পয়সার চাহিদা খুব বেড়ে যাওয়া, যার তার কাছে টাকা চাওয়া, ব্যবহার্য বিছানা ও পরিধেয় বস্ত্র নোংরা ও দুর্গন্ধযুক্ত থাকা, অকারণে যখন তখন বাড়ির বাইরে যাওয়া, রাত করে বাড়ি ফেরা, ঘরে বসে থাকলে বাইরে যাওয়ার জন্য সারাক্ষণ ছটফট করা, ঘরের গোপন স্থানে মাদক গ্রহণের ব্যবহার্য উপকরণ রাখা, মাদকদ্রব্য গ্রহণ করতে না পারলে শারীরিক বিকার ও যন্ত্রণার নানান প্রকাশ ইত্যাদি।

আমাদের দেশে মাদকাসক্তের হার বাড়ার সাথে সাথে আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলেছে এর চোরাচালান, বাজারজাত ও সামগ্রিক বিপণন। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য এ প্রক্রিয়ায় জড়িয়ে পড়ছে আমাদের কোমলমতি শিশুরা। এতে পথশিশু ছাড়াও মধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানরাও রয়েছে। মাদকাসক্ত ও বাজারজাতকারী এসব শিশু ছোটবেলা থেকেই অন্ধকারের অতল গহ্বরে তলিয়ে যাচ্ছে। অনেক শিশু ভালো-মন্দের বিবেচনাবোধ তৈরির আগেই পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। এরপর জীবিকার তাড়নায় তাদের জড়াতে হয় নানা অপরাধমূলক কাজে। হাতে অর্থ আসার পাশাপাশি শুরু হয় তাদের জীবনের নতুন অধ্যায়, আর তখনই এসব শিশুরা মাদকাসক্তিতে জড়িয়ে পড়ে।

মাদকদ্রব্য নানাভাবে আমাদের দেহের ক্ষতি সাধন করে থাকে। মাদকদ্রব্য মানুষের মস্তিষ্ক, শ্বাসযন্ত্র, রক্তপ্রবাহ, স্নায়ুতন্ত্র, পরিপাকতন্ত্র, প্রজননতন্ত্র, জৈব রাসায়নিক ব্যবস্থা ইত্যাদির উপর অবসাদমূলক, স্নায়ুউত্তেজক, চেতনানাশক, ঘুমদায়ক, মতিভ্রমকারী, স্নায়ুবিক বিশৃঙ্খলাকারী হিসেবে কাজ করে। মাদকদ্রব্য সবচেয়ে ক্ষতি সাধন করে মস্তিষ্ক এবং কেন্দ্রিয় স্নায়ুতন্ত্রের।

দীর্ঘদিন মাদক গ্রহণের ফলে দৃষ্টিশক্তি, শ্রবণশক্তি, স্মৃতিশক্তি, অনুভূতি, চেতনাশক্তি, বুদ্ধি-বিবেক ইত্যাদি লুপ্ত হয়ে যায় এবং সার্বিকভাবে কর্মক্ষমতা হ্রাস পায়। জীবিত থেকেও মাদকদ্রব্য ব্যবহারকারী মৃতবৎ, অথর্ব, অক্ষম ও অকেজো হয়ে থাকে। মাদকদ্রব্য গ্রহণের ফলে কন্ঠনালী, নাসিকা এবং ফুসফুসের ঝিল্লি ও নালীপথগুলো নষ্ট হয়ে পড়ে। অতিমাত্রায় ও দীর্ঘকাল মাদক সেবনে লিভারে পচন ধরে, হার্ট বড় হয়ে যায় এবং হার্টে চর্বি জমে এর কার্যকারিতা নষ্ট হয়ে যায়। মাদকে কিডনি ও রক্তের শ্বেতকণিকা নষ্ট হয়, রক্ত দূষণ ঘটে। দীর্ঘকাল হেরোইন, ফেনসিডিল ও মদ গ্রহণের ফলে শরীরের হরমোনের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে প্রজনন ও যৌনক্ষমতা লুপ্ত হয়। উচ্চ রক্তচাপ, হার্ট-এটাক, লিভার-সিরোসিস, মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ ইত্যাদির অন্যতম কারণ মাদকদ্রব্য গ্রহণ।

মাদকাসক্তি ও অপরাধ একটি আরেকটির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। মাদকাসক্তরা পিতা-মাতা, আত্মীয়-স্বজন ও পরিচিতজনদের কাছে নেশার টাকার জন্য মিথ্যাচার ও ছলচাতুরির আশ্রয় নেয়। অনেক মাদকাসক্ত নিজেদের ঘরের জিনিসপত্র চুরি করে। মাদকাসক্ত ব্যক্তি নেশার টাকার জন্য রক্ত বিক্রয়, দেহ ব্যবসা এমনকি মানুষ খুনের মতো কাজও করতে পারে। চাঁদাবাজি, ছিনতাই, ছিঁচকে চুরি, ডাকাতি, ঠকবাজি ইত্যাদি অপরাধের একটা বড় অংশই মাদক ও নেশার টাকা জোগাড়ের জন্য হয়ে থাকে। মাদকাসক্তিপূর্ণ এলাকায় কারো জানমাল বা জীবনের নিরাপত্তা নেই।  মাদক ব্যবসায়ীরা সন্ত্রাসী কিংবা অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের ছত্রছায়ায় লালিত ও পরিচালিত হয়ে থাকে।

মাদকদ্রব্য অপব্যবহারে আরও নানা ক্ষতিকর প্রতিক্রিয়া আমরা দেখতে পাই। শারীরিক ক্ষতি সাধন ছাড়াও মাদকদ্রব্য মানুষের পারিবারিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, পরিবেশগত নানা রকম ক্ষতি সাধন করে। যেমন- মাদকাসক্ত ব্যক্তির নৈতিক মূল্যবোধ, বিবেক, বিচারবুদ্ধি ও হিতাহিত জ্ঞান না থাকায় তার ক্রোধ, হিংসা, লালসা ও লাম্পট্য থেকে কেউই- এমনকি মা-বাবা, ভাই-বোনও নিরাপদ নয়।

মাদকাসক্ত ব্যক্তির পরিবারের অর্থ-সম্পদ নেশার কড়ি যোগাতে শেষ হয়ে যায়। পরিবারের মান-মর্যাদা ভূলুন্ঠিত হয়। স্বামী-স্ত্রীতে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে, পরিবারে ভাঙ্গন ধরে। মাদকাসক্তির ফলে সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয় ঘটে। চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস, হত্যা, ধর্ষণ, দেহ-ব্যবসা ইত্যাদি বেড়ে যায়। মাদকাসক্ত ব্যক্তি নাগরিকদের সামাজিক নিরাপত্তা নষ্ট করে। পিতামাতার মাদকাসক্তির কারণে বিকলাঙ্গ সন্তানের জন্ম হয় এবং জন্মগতভাবে সন্তানের মধ্যেও মাদকদ্রব্য গ্রহণের প্রবণতা দেখা যায়। নেশার জন্য বারবার সুঁচ ফোটালে শিরায় সংক্রমণ ও ক্ষত সৃষ্টি হয়ে পচন ধরতে পারে। মাদকের ভেজাল বস্তু রক্তে দ্রবীভূত হয় না বলে রক্তনালীর সূক্ষ্ম শিরাপথ বন্ধ হয়ে কিংবা ফেটে বা ছিঁড়ে গিয়ে মৃত্যু ঘটতে পারে। মাদক ব্যবসার বিপুল কালো টাকার প্রভাবে দেশে মুদ্রাস্ফীতি ঘটছে, দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে- ভেঙ্গে পড়ছে সমাজব্যবস্থা।

মাদকের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের কিছু বিশেষ দিকের প্রতি নজর দিতে হবে।  পরিবারের কেউ যাতে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় বা ব্যবহারে জড়িয়ে না পড়ে সে ব্যাপারে সর্বদা সতর্ক বা সজাগ থাকতে হবে। পারিবারিক বন্ধন শক্তিশালী করা, কাজের ফাঁকে ফাঁকে সন্তানদের সময় দেয়া, নিয়মিত খোঁজ-খবর নেয়া। তাদের বই পড়ার অভ্যাস গড়তে উৎসাহিত করা, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকা-সহ সুস্থ বিনোদনের ব্যবস্থা করা এবং খারাপ বন্ধুদের সঙ্গে মেলামেশা করতে না দেয়া। সন্তানের সামনে স্বামী-স্ত্রী বিরোধ না করা, নিজেরা সংযত জীবনযাপন এবং সন্তানকে ছোটবেলা থেকে সংযত জীবনযাপনের শিক্ষা ও নৈতিক শিক্ষা দেয়া।

পরিবারে ধর্মীয় মূল্যবোধ এবং ধর্মীয় অনুশীলনের বিকাশ ঘটানো জরুরি। পরিবারে কোন মাদকাসক্ত ব্যক্তি থাকলে তাকে অপরাধী ভেবে তার প্রতি ঘৃণা কিংবা উপেক্ষা নয়, বরং তাকে একজন অসুস্থ ব্যক্তি ভেবে তার প্রতি সাহায্য ও ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দ্রুত তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা। সন্তানের সামনে ধূমপান বা নেশা জাতীয় কোনো কিছু গ্রহণ করা উচিত নয়। ধূমপান বা নেশার উপকরণের ব্যাপারে সন্তানের কোনো স্বাভাবিক অনুসন্ধিৎসাকে উপযুক্ত ব্যাখ্যা এবং জবাবের মাধ্যমে নিবৃত করা এবং এর কুফল সম্পর্কে তাকে বুঝানো।

সন্তানের চালচলন, কথাবার্তা, অন্যের সাথে মেলামেশা, ঘরের বাইরে যাওয়া এবং সময়মতো ফিরে আসা, খাওয়া-দাওয়া, মেজাজ, আচরণ, অভ্যাস, বন্ধু-বান্ধর ইত্যাদি তীক্ষèভাবে নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করতে হবে। সন্দেহজনক কিছু দেখলে সে বিষয়ে খোঁজ নিতে হবে এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। সন্তানকে অতি শাসন কিংবা অতি আদর করা সমীচীন নয় এবং যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়া সন্তানের হাতে টাকা-পয়সা দেয়া উচিত নয়। কোনো কাজে সন্তানের ব্যর্থতায় শাস্তি নয়। সন্তানকে সান্ত্বনা দিতে হবে ও পরামর্শের হাত বাড়াতে হবে।

সন্তান একরোখা, স্বেচ্ছাচারী, জেদী, কলহপ্রবণ, মারমুখী কিংবা দুর্বল ব্যক্তিত্বের হলে শৈশবেই তার মনস্তাত্বিক বিকাশের চেষ্টা করতে হবে এবং তাকে আত্মবিশ্বাসী, সচেতন ও সুস্থ-স্বাভাবিক শিশু হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। নতুবা বড় হলে সে সহজেই বন্ধুদের প্রভাবে মাদকাসক্ত হতে পারে। মাদক অপরাধ দমনের সাথে সংশ্লিষ্ট যে কোনো কাজে সরকারি বা বেসরকারি সংস্থাকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে সাহায্য করা। অবৈধ মাদকদ্রব্য বিক্রি বা চোরাচালান হতে দেখলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাকে খবর দেয়া। পাড়ায়-পাড়ায় অবৈধ মাদক ক্রয়-বিক্রয় বা ব্যবহারের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলো। মাদকাসক্তি একটি সামাজিক সমস্যা, একটি সামাজিক ব্যাধি- সমন্বিত সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমেই একে নির্মূল করা সম্ভব।

মাদক তা যে কোনো ধরনের হোক না কেন, কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। মানুষের জীবনকে তিলে তিলে ধ্বংস করে দেয় এই মাদক। এটি একটি অভিশাপ। আজকাল মাদক যে শুধূ বখে যাওয়া তরুণদের মধ্যে সীমাবদ্ধ তা কিন্তু নয়। বরং তা শাখা-প্রশাখা বিস্তার করেছে শিশু ও কিশোরদের মাঝেও। বিশেষ করে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের মাঝেও মাদক সেবনের প্রবণতা দিন দিন তুলনামূলকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আবার তা শুধু যে পুরুষদের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকছে তা নয়, আজকাল মহিলাদের মাঝেও মাদক সেবনের প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মাদকের বাজারজাতকরণ সহজ হয়ে উঠেছে। মাদকের আগমন ও বিপণনের পথ দিন দিন বিস্তৃত হচ্ছে শহর-বন্দর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত গ্রামের অলিতে-গলিতে। এক প্রতিবেদনে জানা যায়, প্রতিদিন শুধু রাজধানী ঢাকা শহরেই ইয়াবা বাবদ হাত বদল হয় ৭ কোটি টাকা।

বাংলাদেশের শহর জনপদের ধনী পরিবারের সন্তানদের মধ্যে ইদানিং মাদকাসক্তির যে প্রবণতা দেখা দিয়েছে তা সমগ্র জাতির জন্য এক ভয়াবহ পরিণতির ইঙ্গিত বহন করে। মাদক কেবল আমাদের তরুণ প্রজন্মের প্রাণশক্তি ও মেধাকে ধ্বংস করছে না, মাদকের কারণে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে অপসংস্কৃতি ও অপরাধের বিস্তার ঘটছে। সুতরাং মাদকদ্রব্যের সর্বগ্রাসী গতিকে রুখতে হলে আমাদের সকল শ্রেণি-পেশা ও স্তরের মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। রুখে দাঁড়াতে হবে সকল মানুষকে। মাদকদ্রব্যের বিরুদ্ধে দুর্বার সামাজিক আন্দোলন ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। আর তা না পারলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এক ভয়াবহ পরিণতির মুখোমুখি হবে।

সমাজের মাদকাসক্ত শিশুদের আলোর পথে ফিরিয়ে আনা খুব যে বেশি কষ্টের তা কিন্তু নয়। এক্ষেত্রে পরিবারের সহায়তা অন্যতম নিয়ামক হিসেবে কাজ করতে পারে। শিশুদের সব সময় পারিবারিক বলয়ে আবদ্ধ রাখতে হবে। তাদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলতে হবে। অন্যায় করলেও দূরে সরিয়ে দেয়া যাবে না। তাছাড়া সমাজ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রত্যাশিত কার্যকর ভূমিকাও জরুরি। প্রয়োজন সুষ্ঠু সংস্কৃতি ধারণ ও লালন। এছাড়াও উচ্চবিত্তদের সহযোগিতা, জ্ঞানীদের জ্ঞান বিতরণ এবং প্রচারের মাধ্যমেই এ সমস্যার সমাধান অনেকাংশে সম্ভব। মাদক নিয়ন্ত্রণে রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি থাকা সবচেয়ে বেশি জরুরি।  সীমান্ত পথে মাদক চোরাচালান ও দেশের অভ্যন্তরে মাদকদ্রব্যের বেচাকেনা অত্যন্ত কঠোর হাতে বন্ধ করতে হবে। মাদকবিরোধী কৌশলের অংশ হিসেবে শিশু-কিশোর ও তরুণদের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও গণমাধ্যমে অবশ্যই তথ্যসমৃদ্ধ ও কার্যকর প্রচারণা কার্যক্রম সবসময় চলমান থাকতে হবে।

আমাদের দেশে মাদক অপরাধ সংক্রান্ত আইন ও শাস্তির বিধান আছে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে তা যথাযথভাবে প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন হচ্ছে না। মাদক অপরাধীরা প্রভাবশালী হওয়ায় আইনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে অধিকাংশ সময়ই বের হয়ে যায়। আর রাঘব-বোয়ালরা তো সব সময় ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থাকে। হেরোইন, ফেনসিডিল, আফিম, মরফিন, নেশার ইনজেকশন, গাঁজা, ভাং, মদ, তাড়ি, ঘুমের ঔষধ ইত্যাদির উৎপাদন, সংগ্রহ, সংরক্ষণ, বহন-পরিবহন, ক্রয়-বিক্রয় ও ব্যবহার মাদকদ্রব নিয়ন্ত্রণ আইন-১৯৯০ মোতাবেক নিষিদ্ধ ও দ-নীয় অপরাধ। মাদক অপরাধের শাস্তি ছয় মাস কারাদন্ড থেকে সর্বোচ্চ মৃত্যুদ- পর্যন্ত হতে পারে। মাদক অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আইনের প্রয়োগ কঠোর হওয়া উচিত যাতে মাদকাসক্তরা কিংবা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িতরা গ্রেফতার হওয়ার পর সহজে জামিন নিয়ে কিংবা মুক্ত হয়ে আবার একই অপরাধের সাথে যুক্ত হতে না পারে।

সর্ষের ভেতর ভূত রেখে মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে কখনোই জয়ী হওয়া যাবে না। মাদক নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজন জাতীয় নীতি এবং শক্ত রাজনৈতিক অবস্থান; প্রয়োজন সত্যিকারের রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় ও টকশোতে মাঝে মাঝে মাদকের সাথে জড়িত অপরাধীদের বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-ের কথা শুনা যায়- এটাও কাম্য নয়। মাদকবিষয়ক অপরাধ দমনে বিচারবহির্ভূত প্রক্রিয়া জাতিসংঘের মাদকবিষয়ক চুক্তির পরিপন্থী। অপরাধ প্রতিরোধে যেসব সংস্থা কাজ করছে তাদের আইনের যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করা উচিত। সত্যিকার অর্থে মাদক নির্মূল করতে হলে শুধু চুনোপুঁটি ধরলে হবে না, অপরাধের রাঘব-বোয়াল ধরতে হবে। অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক সাজা নিশ্চিত করতে হবে।

আমরা চাই সুস্থ, সুন্দর ও সার্থক জীবন। মাদকের বিস্তার রোধে বাল্যকাল থেকেই সবার মধ্যে নৈতিক ও মানবিক শিক্ষা এবং মূল্যবোধ জাগ্রত করতে হবে। অনেক ছেলেমেয়ে কৌতুহলের বশেই ভালোমন্দের বিচার না করেই নেশার দিকে ঝোঁকে। তাই কৈশোরেই সচেতন হলে এরা বেশি বয়সেও মাদক থেকে দূরে থাকবে। মাদকমুক্ত জাতি গঠন করতে হলে পরিবারকে সবচেয়ে বেশি সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি সমাজ এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকেও এ বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। তাই আসুন আমরা সবাই সমাজে এ অন্ধকার পথে এগিয়ে চলা শিশুদের প্রতি যতœবান ও দায়িত্ববান হই। তাদের আলোর পথে ফিরিয়ে আনতে নিজ নিজ অবস্থান হতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেই। সকলেই মাদকমুক্ত থাকি এবং মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হই। ভবিষ্যত প্রজন্ম যুব সমাজকে মাদকাসক্তির প্রভাব থেকে রক্ষা করি। মাদকাসক্তিমুক্ত থেকে ৩০ (ত্রিশ) লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের প্রিয় মাতৃভূমির উন্নয়নের আত্মনিয়োগ করি।

আমরা আশা করি সরকার টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসার বিষয়টি আমলে নিয়ে তা নিরসনে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কঠোর হস্তে মাদক-পাচার ও মাদক-ব্যবসা দমন করবে এটাই জাতির প্রত্যাশা। কোনো আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মাদক ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পড়–ক এটি কোনোভাবেই কাম্য নয়। ধিক্কার জানাই  এই সকল মাদক ব্যবসায়ীদের যারা নিজস্বার্থে দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধ্বংস করছে।

লেখক: শরীফুল্লাহ মুক্তি
প্রাবন্ধিক, শিক্ষা-গবেষক ও  ইন্সট্রাক্টর, উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি)।
ই-মেইল- ahmsharifullah@yahoo.com




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর