কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত স্বর্ণলতা পরিবহনের বাস গাজীপুর থেকে উদ্ধার


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১০ মে ২০১৯, শুক্রবার, ১০:০০ | বিশেষ সংবাদ 


বাজিতপুরে স্বর্ণলতা পরিবহনের চলন্ত বাসে কটিয়াদীর মেয়ে ইবনে সিনা হাসপাতালের নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া (২৪) কে গণধর্ষণ শেষে হত্যার ঘটনায় রিমান্ডে থাকা পাঁচ আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। এরই মধ্যে ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটি (ঢাকা মেট্রো ব-১৫-৪২৭৪) উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১০ মে) বিকালে গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার টোক নয়নবাজার ইউনিয়নের বীর উজুলি গ্রামের ঈদগাহ মাঠে পরিত্যক্ত অবস্থায় বাসটিকে উদ্ধার করে পুলিশ রাতে বাজিতপুর থানায় নিয়ে আসে।

অন্যদিকে স্বর্ণলতা পরিবহনের চলন্ত বাসে নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া হত্যায় কিশোরগঞ্জে প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। শুক্রবার সকালে কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় কিশোরগঞ্জ-ভৈরব আঞ্চলিক মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন, পাকুন্দিয়া পৌরসদর ঈদগাহ গেইটের সামনে মানববন্ধন এবং কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের কালীবাড়ী মোড়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হয়। এসব কর্মসূচি থেকে তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যায় জড়িতদের ফাঁসির দাবি জানানো হয়।

গত বুধবার (৮ মে) নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া হত্যায় গ্রেপ্তার হওয়া পাঁচ আসামি বাসচালক মো. নূরুজ্জামান নূরু (৩৯), হেলপার মো. লালন মিয়া (৩২), মো. রফিকুল ইসলাম রফিক (৩০), মো. খোকন মিয়া (৩৮) এবং মো. বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংড়া বকুল (৫০) কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ওইদিনই তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ।

রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এসব তথ্য যাচাই-বাছাইয়ের পাশাপাশি এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের ধরতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছে পুলিশ। রিমান্ডে আসামিদের দেয়া তথ্যের সূত্র ধরে বুধবার (৮ মে) রাত থেকে বৃহস্পতিবার (৯ মে) বিকাল পর্যন্ত গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ।

অভিযানের এক পর্যায়ে বৃহস্পতিবার (৯ মে) বিকালে গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার টোক নয়নবাজার ইউনিয়নের বীর উজুলি গ্রামের ঈদগাহ মাঠে পরিত্যক্ত অবস্থায় ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটি (ঢাকা মেট্রো ব-১৫-৪২৭৪) উদ্ধার করে পুলিশ। পরে রাতে বাসটি বাজিতপুর থানায় এনে রাখা হয়।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গ্রেপ্তারকৃতরা খুবই চতুর। তারা তদন্ত সংশ্লিষ্টদের বিভ্রান্ত করতে একেক সময় একেক ধরনের তথ্য দিচ্ছে। তবে তাদের দেয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। শুরুর দিকে স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটি নিয়েও তারা বিভ্রান্তিকর তথ্য দেয়। স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটির নম্বর ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৬২৮৫ বলে জানিয়েছিল তারা। সে অনুযায়ী বাসটিকে উদ্ধারও করা হয়। কিন্তু বাসটিতে ঘটনার আলামত না পাওয়ায় পুলিশি জেরার মুখে আসামিরা জানায়, ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটির নম্বর ছিল ঢাকা মেট্রো ব-১৫-৪২৭৪। পরে এই বাসটিকেও উদ্ধার করে পুলিশ। জব্দ করা দু’টি বাসই বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বাজিতপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সারোয়ার জাহান।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র আরো জানিয়েছে, ওই রাতে সিএনজিতে করে যে দু’জন তানিয়ার নিথর দেহ হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিল, তাদেরকে চিহ্ণিত করা হয়েছে। তারা দু’জনেই বাসের কর্মী। তাদের মধ্যে স্বর্ণলতা পরিবহনের কটিয়াদীর কাউন্টার মাস্টার মো. রফিকুল ইসলাম রফিক পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলেও অপরজন স্বর্ণলতা পরিবহনের সুপারভাইজার আল আমিন এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। তবে ঠিক কতজন এই ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিল, তা এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, সোমবার (৬ মে) রাত সাড়ে ৮টায় স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটি বাজিতপুর উপজেলার বিলপাড় গজারিয়া এলাকায় পৌঁছুলে বাসের ভেতর শাহিনুর আক্তার তানিয়াকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণের পর তানিয়ার পরিহিত ওড়না গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়। পরে তানিয়ার লাশ বাস থেকে ফেলে দিয়ে বাসটি দ্রুত পালিয়ে যায়। মঙ্গলবার (৭ মে) কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে অনুষ্ঠিত হওয়া তানিয়ার ময়নাতদন্তেও ধর্ষণ এবং শারীরিক নির্যাতন ও আঘাতে মৃত্যুর আলামত পাওয়া যায়।

নিহত শাহিনুর আক্তার তানিয়া কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে। তিনি ঢাকার ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একজন নার্স ছিলেন।

কর্মস্থল ঢাকা থেকে বাড়িতে আসার জন্য গত সোমবার (৬ মে) বিকাল ৩টায় ঢাকার বিমানবন্দর থেকে স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি বাসে (ঢাকা মেট্রো ব-১৫-৪২৭৪) ওঠেন শাহিনুর আক্তার তানিয়া। স্বর্ণলতা পরিবহনের বাস মহাখালী থেকে কটিয়াদী হয়ে বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত চলাচল করে। বাসে ওঠে তানিয়া তার বাবাকে জানান, তিনি পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ডে নামবেন। কিন্তু বাড়িতে ফিরতে দেরি হওয়ায় রাত সাড়ে ৮টায় তানিয়ার মোবাইলে ফোন করে নম্বরটি বন্ধ পান বাবা গিয়াস উদ্দিন।

রাত সাড়ে ১০টার দিকে ফোন করে এক ব্যক্তি গিয়াস উদ্দিনকে জানায়, তার মেয়ে বাস দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে এবং বর্তমানে সে কটিয়াদী হাসপাতালে রয়েছে। এ খবর পেয়ে স্বজনেরা হাসপাতালে গিয়ে তানিয়াকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালের জরুরী বিভাগে পড়ে থাকতে দেখেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর