কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে পাঁচ টন ভেজাল সেমাই ও চানাচুর ধ্বংস, সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা, দুই কারখানা সীলগালা


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ মে ২০১৯, সোমবার, ৪:৩০ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের অপারেশনাল টিম এবং কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সমন্বিত ভেজাল বিরোধী অভিযানে রাদিত সামিয়া ফুড প্রোডাক্টস নামে একটি ভেজাল সেমাই কারখানাকে দুই লাখ টাকা এবং মালা ফুড প্রোডাক্টস নামে একটি ভেজাল চানাচুর কারখানাকে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে। এ সময় সামিয়া লাচ্ছা সেমাই নামে রাদিত সামিয়া ফুড প্রোডাক্টস এর উৎপাদিত অন্তত চার টন সেমাই এবং স্পেশাল মালা বোম্বে চানাচুর নামে মালা ফুড প্রোডাক্টস এর উৎপাদিত এক টন চানাচুর গর্তে ফেলে ধ্বংস করা হয়। এছাড়া কারখানা দু’টিকে সীলগালা করে দেয়া হয়।

সোমবার (১৩ মে) দুপুরে র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক লে. কমান্ডার, বিএন এম শোভন খান, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এইচ এম খোদাদাদ হোসেন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. ইব্রাহীম হোসেন এর উপস্থিতিতে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানী অধিনায়ক লে. কমান্ডার, বিএন এম শোভন খান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তারা অভিযানটি পরিচালনা করেন। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার স্বল্প মারিয়া এলাকায় রাদিত সামিয়া ফুড প্রোডাক্টস নামের একটি প্রতিষ্ঠান বিএসটিআই এর সনদ না নিয়ে অবৈধভাবে সেমাই তৈরি করে আসছে। কারখানার ভিতরে মেঝেতে সেমাই মজুদ রাখা, অপরিচ্ছন্ন ও স্যাঁতস্যাঁতে নোংরা পরিবেশে সেমাই তৈরির মতো ভয়াবহ চিত্র পাওয়া যায় অভিযানে।

এছাড়া মানবস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বিভিন্ন ক্যামিকেল ব্যবহার করে সেমাই উৎপাদন করা হচ্ছিল। নিম্নমানের আটা, সোডা, পোড়া তৈল, পাম ওয়েল, ডালডা ও ক্ষতিকারক কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি এসব সেমাই খাওয়ার কারণে ডায়রিয়া, জন্ডিস, টাইফয়েড ও পেটের পীড়াসহ বড় ধরনের রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ঈদুল ফিতরে সেমাইয়ের চাহিদাকে সামনে রেখে রফিকুর রহমান নামে এই অসাধু ব্যবসায়ী ভেজাল সেমাই তৈরি করে বাজারজাত করে আসছে।

এছাড়া সেমাই কারখানাটির সাথেই গড়ে ওঠা মালা ফুড প্রোডাক্টস নামে একটি প্রতিষ্ঠান বিএসটিআই এর সনদ না নিয়ে অবৈধভাবে চানাচুর তৈরি করে আসছে। পোড়ামবিলসহ ক্ষতিকর নানা উপাদান ব্যবহার করে তৈরি করা এসব চানাচুর মানবস্বাস্থ্যের জন্য বিরাট ক্ষতির কারণ হতে পারে। চানাচুর কারখানাটির মালিক দেলোয়ার হোসেন খান মিল্কী দীর্ঘদিন ধরে এই প্রাণঘাতী বাণিজ্য চালিয়ে আসছিলেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এইচ এম খোদাদাদ হোসেন জানান, অবৈধভাবে ও ভেজাল সেমাই তৈরি করার অপরাধে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে সেমাই কারখানাটিকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয় এবং কারখানায় তৈরি করা অন্তত চার টন ভেজাল সেমাই জব্দ করে জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়।

এছাড়া অবৈধভাবে ও ভেজাল চানাচুর তৈরি করার অপরাধে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে চানাচুর কারখানাটিকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয় এবং কারখানায় তৈরি করা অন্তত এক টন ভেজাল চানাচুর জব্দ করে জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়। এছাড়া দু’টি প্রতিষ্ঠানকেই সীলগালা করে দেয়া হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর