কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে সেমাই, চানাচুর, মুড়িসহ চার ফ্যাক্টরিকে সাড়ে ৮ লাখ টাকা জরিমানা


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১৪ মে ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:৪৬ | ভৈরব 


ভৈরবে ৩টি সেমাই ও ১টি মুড়ি ফ্যাক্টরীতে ভেজালবিরোধী অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব। র‌্যাবের এই অভিযানে ৪টি কারখানাকে সাড়ে ৮ লাখ টাকা জরিমানা করেন র‌্যাবের ভ্রাম্যম্যাণ আদালত। মঙ্গলবার (১৪ মে) বেলা ১২ থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলে এ অভিযান।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের সিনিয়র সহকারী পরিচালক চন্দন দেবনাথের নেতৃত্বে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুজ্জামান।

এসময় শহরের পঞ্চবটি নতুন রাস্তা এলাকার মুন্না চানাচুর ফ্যাক্টরীকে ৪ লাখ টাকা, রাণীর বাজার এলাকায় রাজা সেমাই ফ্যাক্টরীকে ৩ লাখ টাকা, কমলপুর এলাকার জুনাইদ ফুড ইন্ডাষ্ট্রিজকে ১ লাখ টাকা এবং ফাইন মুড়ি কারখানার মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুজ্জামান।

দণ্ডপ্রাপ্ত কারখানার মালিকগণ দীর্ঘদিন যাবত অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্য তৈরি, লাইসেন্সবিহীন পণ্য উৎপাদন, শ্রমিকদের হাতে গ্ল্যাভ্স ও এ্যাপ্রোন না থাকা এবং ভেজাল মিশ্রিত খাদ্যদ্রব্য তৈরি করে আসছিল। অভিযানে মুন্না সেমাই ফ্যাক্টরী থেকে ২ ড্রাম দুষিত তৈল ও জুনাইদ ফুড ইন্ডাষ্ট্রিজ থেকে ২ বস্তা দুষিত সেমাই জব্দ করার পর তা ধ্বংস করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আনিসুজ্জামান জানান, ইতিপূর্বে এসকল ফ্যাক্টরীগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে জরিমানা করেছিল। তারা এখনো পর্যন্ত পরিস্কার পরিচ্ছন্ন ভাবে খাদ্য উৎপাদন না করায় এবং আজও এসকল ফ্যাক্টরীতে পূর্বের অবস্থান বিদ্যমান থাকায় আজকের এ জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়াও অভিযুক্ত প্রত্যেকটি ফ্যাক্টরীর মালিককে আগামী ৩ মাস সময়ের মধ্যে কারখানার পরিবেশ উন্নত করাসহ প্রয়োজনীয় সকল লাইসেন্স করার জন্য সময় দেয়া হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতকে সহযোগিতা করেন ভৈরব পৌরসভার স্যানেটারি ইন্সপেক্টর নাসিমা বেগমসহ র‌্যাব ১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর