কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নার্স তানিয়া হত্যার প্রতিবাদে কটিয়াদীতে মানববন্ধন ও গণস্বাক্ষর


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, স্টাফ রিপোর্টার, কটিয়াদী | ১৫ মে ২০১৯, বুধবার, ৯:২৪ | কটিয়াদী 


চলন্ত বাসে কটিয়াদীর মেয়ে নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া (২৪) কে গণধর্ষণ শেষে হত্যার প্রতিবাদে কটিয়াদীতে প্রতিবাদ কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। বুধবার (১৫ মে) কটিয়াদীতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে হাসপাতালের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়।

সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে একাত্মতা ঘোষণা করে বণিক সমিতি, ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতি, বিভিন্ন ডায়াগনষ্টিক সেন্টার, মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভ সমিতিসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন অংশ নেয়।

এতে উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহাব আইন উদ্দিন, স্বাস্থ্য বিভাগের উপপরিচালক (অব.) ডা. মো. মুক্তাদির ভূঞা, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার তাজরিনা তৈয়ব, বণিক সমিতির সভাপতি মো. শফিকুল ইসলাম, ওষুধ ব্যবসায়ী সমিতির প্রতিনিধি মাও. সাঈদ আহম্মদ, সাংবাদিক সারোয়ার হোসেন, রেনেসাঁর পরিচালক মো. সাদেক, মেডিকেল রিপ্রেজেনটেটিভ সমিতির সভাপতি হাদিউল ইসলাম, ব্যবসায়ী ফারুক আহম্মেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা নার্স তানিয়াকে চলন্ত বাসে গণধর্ষণ শেষে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত বিচার আইনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।

অপর দিকে সচেতন নারী সমাজের উদ্যোগে হাজেরা সুলতান উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষক-কর্মচারী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন। এছাড়া তারা গণস্বাক্ষর কর্মসূচি শুরু করেছেন। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাজেরা খাতুন।

সচেতন নারী সমাজের সভাপতি তানিয়া সুলতানা হ্যাপী বলেন, এ ঘটনায় জড়িত প্রকৃত আসামীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবীতে উপজেলার সকল ইউনিয়ন এবং গ্রাম থেকে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করা হবে। এ গণস্বাক্ষরের কপি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর হাতে তুলে দেয়া হবে। তাদের দাবি এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি যেন বিলম্বিত না হয় এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিচারের ব্যবস্থা করা হয়।

প্রতিবাদ কর্মসূচির অংশ হিসাবে অপরাধীদের শাস্তির দাবিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে কটিয়াদী রক্তদান সমিতি প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছে।

এদিকে ঘটনার ৯দিন অতিবাহিত হলেও ঘটনার অন্যতম হত্যাকারী ধর্ষক বোরহানসহ অন্যান্য আসামী গ্রেপ্তার না হওয়ায় পরিবারের পক্ষ থেকে উদ্বেগ, আশংকা প্রকাশ করে তানিয়ার পিতা গিয়াস উদ্দিন বলেন, অবিলম্বে সকল আসামীকে গ্রেপ্তার করে দ্রুততম সময়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

উল্লেখ্য, গত ৬ মে সোমবার রাতে ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালের স্টাফ নার্স শাহিনূর আক্তার তানিয়া স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসে করে গ্রামের বাড়িতে আসার পথে রাত সাড়ে আটটার দিকে বাজিতপুর উপজেলার বিলপাড়-গজারিয়া এলাকায় গণধর্ষণ শেষে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার হন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর